২ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৯ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সুকুমার সরকার, ঢাকা: বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড টেকনোলজি বা বুয়েটের মেধাবী ছাত্র খুনের ঘটনায় তোলপাড় বাংলাদেশ। জোরকদমে এগোচ্ছে তদন্ত প্রক্রিয়া। আবরার ফাহাদ হত্যা তদন্ত শেষ হওয়ার আগে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা নেওয়া যাবে না বলেই দাবি পড়ুয়াদের। প্রথমে দাবি মানতে আপত্তি থাকলেও, পরে সিদ্ধান্ত বদল করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আপাতত পরীক্ষা স্থগিত বলেই জানান ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এসএম মাহবুবুর রহমান। 

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের সম্পাদিত চুক্তির বিরোধিতা করে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেওয়ায় খুন হন বুয়েটের ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবরার ফাহাদ। অভিযোগ, তাঁকে শের-ই-বাংলা হলের ১০১১ নম্বর কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে ২০১১ নম্বর কক্ষে বেধড়ক পেটান বুয়েট শাসকদলের নেতাকর্মীরা। তাতেই তাঁর মৃত্যু হয়। আবরার হত্যায় উত্তাল সারা দেশ। চলছে ব্যাপক বিক্ষোভ। দু’পাশে সিসি ক্যামেরা বসাতে এবং শের-ই-বাংলা হলের প্রভোস্টকে প্রত্যাহার করার দাবিতে সরব পড়ুয়ারা। ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজনকে ওই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কারও করা হয়েছে।

[আরও পড়ুন: সমালোচনায় সিদ্ধান্ত বদল, PUBG খেলায় আর বাধা নেই বাংলাদেশে]

তারই মাঝে শনিবার থেকে বুয়েটের টার্ম ফাইনাল পরীক্ষা শুরুর কথা ছিল। তবে শিক্ষার্থীদের দাবি যতদিন না পর্যন্ত আবরার হত্যার তদন্ত করা হবে, ততদিন কোনও পরীক্ষা নেওয়া যাবে না। বাধ্য হয়ে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে সিদ্ধান্ত বদল করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এসএম মাহবুবুর রহমান বলেন, “ছাত্রছাত্রীদের দাবি যে আবরার হত্যার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তারা পরীক্ষা দেবে না। তাই আমরা বাধ্য হয়ে পরীক্ষা স্থগিত রাখলাম। তদন্ত প্রক্রিয়া শেষ হলে পরীক্ষার দিনক্ষণ ঘোষণা করা হবে।”

তবে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তাদের দাবি মেনে নেওয়াও কিছুটা হলেও আশার আলো দেখছেন পড়ুয়ারা। কবে শেষ হবে আবরার হত্যা মামলা, তার অপেক্ষায় প্রহর গুনছেন আন্দোলনকারীদের।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং