১৪ মাঘ  ১৪২৮  শুক্রবার ২৮ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

শাসকদলকে ভোট না দেওয়ার মাশুল! ইদে নমাজ পড়তে পারল না ৭টি মুসলিম পরিবার

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 17, 2018 10:03 am|    Updated: June 17, 2018 10:06 am

7 muslim families not allowed to participate in Prayer on Eid For casting vote against TMC

রাজকুমার কর্মকার, আলিপুরদুয়ার: পঞ্চায়েত ভোটে শাসকদলকে ভোট না দেওয়ার মাশুল৷ স্রেফ সন্দেহের বশেই সাতটি মুসলিম পরিবারকে সামাজিক বয়কট৷ এমনকী, শনিবার তাঁদের ইদের নমাজও পড়তে দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ৷ ঘটনা জানাজানি হতেই থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য৷ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে পুলিশ৷ ঘটনাটি ঘটেছে আলিপুরদুয়ারের ভাটিবাড়ি এলাকায়৷

[ভাগীরথীতে তলিয়ে গেলেন হোটেল ম্যানেজমেন্ট পড়ুয়া, শোকের ছায়া নাকাশিপাড়ায়]

আলিপুরদুয়ারের ভাটিবাড়ি পঞ্চায়েতের পূর্ব কুমারিজান এলাকার ১০/২৬২ নম্বর বুথের ভোটার ওই সাতটি পরিবারের সদস্যরা৷ গত ১৭ মে পঞ্চায়েত ভোটের ফল ঘোষণা হয়েছে৷ অভিযোগ, ফল ঘোষণার পরের দিন থেকে সামাজিক বয়কটের শিকার ওই সাতটি পরিবারের ২৬ জন সদস্যরা৷ তাঁদের মধ্যে ১০ জন আবার শিশু৷ কিন্তু, কেন?  শাসকদলের স্থানীয় নেতাদের সন্দেহ, পঞ্চায়েত নির্বাচনে তৃণমূল প্রার্থীকে ভোট দেননি তাঁরা৷ স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ তেমনই৷ এদিকে সামাজিক বয়কটের মুখে পড়ে চরম বিপাকে পড়েছেন ওই সাতটি মুসলিম পরিবার৷ জমির ফসল কাটতে পারছেন না৷ বাড়িতে থাকা ফসল বিক্রিও করতে পারছেন না৷ ফলে বন্ধ হয়ে গিয়েছে রোজগার৷ দোকান-বাজার-সহ সর্বত্রই ওই সাতটি পরিবারের সদস্যদের বয়কট করা হচ্ছে বলে অভিযোগ৷ পরিস্থিতি এমনই, যে শনিবার খুশির ইদে বাড়ির পাশে মাঠে ওই সাতটি পরিবারের সদস্যরা নমাজও পড়তে পারেননি বলে অভিযোগ৷ পরিবারের সদস্য মোফাজ্জল হোসেনের  বক্তব্য, ‘আমরা তৃণমূল কংগ্রেস করি। কিন্তু আমরা তৃণমূল কংগ্রেসকে ভোট দিইনি বলে সন্দেহ করেছে স্থানীয় তৃণমূলের নেতারা। আর সেই কারণে নির্বাচনের ফল ঘোষণার পরের দিন শাসকদলের স্থানীয় নেতারা বাড়িতে এসে সামাজিক বয়কটের কথা ঘোষণা করে যায়। বিষয়টি মিটিয়ে নেওয়ার জন্য সালিশি সভাও বসেছিল৷ কিন্তু, সামাজিক বয়কট তোলা হয়নি৷’

ঘটনাটি জানাজানি হতেই ভাটিবাড়ি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য মামণি দাস৷ ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছে পুলিশও৷ যদিও ওই সাতটি সংখ্যালঘু পরিবারকে সামাজিকভাবে বয়কট করার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স্থানীয় তৃণমূল নেতা মজিদুল হক৷ তাঁর দাবি, ওই সাতটি পরিবারের পাড়া-প্রতিবেশীদের সঙ্গে মিশতে পারে না৷ এটা একান্তভাবেই তাঁদের সমস্যা৷ ওই বুথে তৃণমূল প্রার্থী ১৬৩ ভোটে হেরে গিয়েছেন৷ তাহলে তো ১৬৩ জনকে বয়কট করা হত৷ অন্যদিকে বিষয়টি মিটিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন আলিরপুরদুয়ারের ভাটিবাড়ি তৃণমূল কংগ্রেসের অঞ্চল সভাপতি দীনেশ চন্দ্র দাস৷

[স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ওষুধের পরিবর্তে রোগীদের ‘জল পড়া’র দাওয়াই, সিঙ্গুরে কুসংস্কারের ছায়া]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে