২৬ কার্তিক  ১৪২৬  বুধবার ১৩ নভেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কের কারণেই খুন করা হয়েছে নানুরের নিখোঁজ সিপিএম নেতা সুভাষচন্দ্র দেকে। তদন্তে নেমে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য হাতে এল পুলিশের। ইতিমধ্যেই খুনের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহতের প্রেমিকা ও তার স্বামীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

শুক্রবার সকালে নানুরের বাঁশপাড়া গ্রামের বাড়ি থেকে বোলপুরের উদ্দেশ্যে রওনা দেন সূচপুর গণহত্যার অন্যতম অভিযুক্ত তথা সিপিএম নেতা সুভাষচন্দ্র দে। সেখানের কাজ সেরে এলআইসি এজেন্ট শেখ নাসিরের সঙ্গে ইলামবাজার যান তিনি। রাত ৮টা নাগাদ শেষবার স্ত্রীর সঙ্গে কথা হয় তাঁর। এরপর থেকেই নিখোঁজ ছিলেন ওই সিপিএম নেতা। এরপর পরিবারের তরফে নানুর থানায় গোটা বিষয়টি জানানো হয়। তদন্ত শুরুর পর শনিবার এলাকার একটি কলেজের সামনে থেকে উদ্ধার হয় সুভাষবাবুর মোটরবাইক। এরপর সিপিএম নেতার মোবাইল টাওয়ার ট্র্যাক করে তদন্তকারীরা। এরপরই মতিয়ুর নামে এক যুবকের নাম হাতে আসে পুলিশের।

তাকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করে পুলিশ। ক্রমাগত জেরায় ভেঙে পড়ে ওই যুবক। পুলিশের দাবি ওই যুবক জানিয়েছে, তাঁর স্ত্রীর সঙ্গে বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল সুভাষবাবুর। শুক্রবার রাতে বাড়ি ফিরে সে দেখে তার স্ত্রীর সঙ্গে বসে রয়েছেন সুভাষবাবু। বিষয়টি নজরে পড়তেই লোহার রড দিয়ে সিপিএম নেতাকে আঘাত করে মতিয়ুর। রক্তাক্ত অবস্থায় মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তিনি। এরপর প্রমাণ লোপাটের জন্য দেহ টুকরো করা হয়। টুকরোগুলি বস্তায় ভরে সুভাষবাবুর বাইক নিয়েই একটি ব্যাগ অজয় নদীতে ফেলে দিয়ে আসে মতিয়ুর। অন্যটি ফেলে বাঁশবাগানে। ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসতেই ওই যুবক ও তাঁর স্ত্রীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। জানা গিয়েছে, যুবকের বয়ানের ভিত্তিতেই দেহাংশ উদ্ধারের জন্য সোমবার নদীতে তল্লাশি চালানো হবে।

[আরও পড়ুন: বিজেপির সংকল্প যাত্রায় হামলার অভিযোগ, মুকুল রায়কে ঘিরে বিক্ষোভ তৃণমূলের]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং