১৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  সোমবার ৬ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত খুনের আসামির রহস্যমৃত্যু, বিষ খেয়ে আত্মহত্যা বলে অনুমান

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: May 11, 2019 5:30 pm|    Updated: May 11, 2019 5:30 pm

A person with lifetime imprisonment has been found dead in Nadia

পলাশ পাত্র, তেহট্ট: যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত খুনের আসামির মৃতদেহ উদ্ধার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়াল নদিয়ার পলাশিপাড়া থানা এলাকার ছোট নলদায়৷ শনিবার সকালে উদ্ধার হওয়া মৃতদেহের পরিচয় জানার পরই তদন্তে নেমেছে পুলিশ৷ প্রাথমিক অনুমান, বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেছে ওই ব্যক্তি৷

[আরও পড়ুন: ব্রাত্য পুরুষ, দেওয়াল লিখন থেকে বুথ এজেন্টের দায়িত্বে তৃণমূলের নারী ব্রিগেড]

পুলিশ সূত্রের খবর, মৃতের নাম রশিদ শেখ৷ বয়স ষাটের উপরে৷ পলাশিপাড়া থানা এলাকার কুলগাছির বাসিন্দা রশিদ একটি খুনের মামলার আসামি৷ যাবজ্জীবন কারাবাসের সাজা হয়েছে৷ ১৪ বছর ধরে সে জেলবন্দি৷ কয়েক বছর আগে মুর্শিদাবাদের লালগোলা মুক্ত সংশোধনাগারে ছিল রশিদ৷ সেই সূত্রে পরিবারের বাসিন্দারা কুলগাছিয়া ছেড়ে লালগোলাতেই থাকছিলেন৷ সাধারণত যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কোনও আসামি ১০ বছর কারাবাসে থাকার পর তার আচার-আচরণ সংশোধিত হয়েছে বলে মনে হলে, পরিবারের সদস্যদের আবেদনের ভিত্তিতে মুক্ত সংশোধনাগারে পাঠানো নিয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারে জেল কর্তৃপক্ষ৷ সেখানে দিনভর বন্দি অবস্থায় থাকতে হয় না৷ যে যার মতো কাজ করতে পারে, সন্ধের পর সবাইকে সেলে ফিরে যেতে হয়৷ তবে কোনও আসামি যথাযোগ্য সংশোধিত হলে, তবেই মুক্ত সংশোধনাগারে যাওয়ার অনুমতি মেলে৷ রাজ্যে এমন মুক্ত সংশোধনাগারের সংখ্যা মাত্র চার৷ লালগোলা, দুর্গাপুর, রায়গঞ্জ এবং মেদিনীপুর৷

[আরও পড়ুন: বসিরহাটে বহিরাগতদের দিয়ে দাঙ্গার নেপথ্যে বিএসএফ, হাড়োয়ায় বিস্ফোরক মুখ্যমন্ত্রী]

রশিদ শেখের ক্ষেত্রেও তেমনই হয়েছে৷ দোষী সাব্যস্ত হওয়ার পর টানা ১০ বছর সে ছিল সংশোধনাগারে৷ এরপর পরিবারের আবেদনের ভিত্তিতে তার আচরণ সংশোধনমূলক মনে হওয়ায় তাকে লালগোলা মুক্ত সংশোধনাগারে পাঠানো হয়৷ সেই থেকে রশিদ সেখানেই থাকে৷ লালগোলা শহরেই থাকে পরিবারও৷ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শুক্রবার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হওয়ায় সংশোধনাগার কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে নিজের কুলগাছির বাড়িতে ফিরেছিল রশিদ৷ স্বামী বাড়ি ফিরেছে, খবর পেয়ে স্ত্রীও গিয়ে পৌঁছান কুলগাছিতে৷ সন্ধের পর রশিদ বাড়ি থেকে বেরিয়ে আর ফেরে না৷ শনিবার সকালে বাড়ি থেকে দু কিলোমিটার দূরে ছোট নলদা এলাকার এক গাছতলায় তার মৃতদেহ উদ্ধার হয়৷ খবর দেওয়া হয় পলাশিপাড়া থানায়৷ পুলিশ গিয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠায়৷ প্রাথমিক অনুমান, পারিবারিক অশান্তির জেরে বিষ খেয়ে আত্মহত্যা করেছে রশিদ৷ এমন ঘটনায় পরিবারে শোকের ছায়া৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে