৩ কার্তিক  ১৪২৬  সোমবার ২১ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

নিজস্ব সংবাদদাতা, বনগাঁ: ধারে চা দিতে রাজি না হওয়ায় মহিলা দোকানিকে বেধড়ক মারধরের অভিযোগ উঠল এক যুবকের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর ২৪ পরগনার গাইঘাটা থানার ধর্মপুর বাজার এলাকায়। ইতিমধ্যেই অভিযুক্তকে আটক করেছে পুলিশ। তবে এখনও পর্যন্ত এ বিষয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়নি।

[আরও পড়ুন: উৎসব শেষ, ৪দিন পর বিজয়ার মিঠাই নিয়ে বাড়ি ফিরল বহুরূপী ‘ডাকাত’]

জানা গিয়েছে, গাইঘাটার ধর্মপুর বাজার এলাকায় কেষ্টনাথ নামে এক ব্যক্তির একটি চায়ের দোকান রয়েছে৷ দীর্ঘদিন ধরেই কেষ্টবাবুর ছেলের বউ পূর্ণিমা রায় ওই দোকানটি চালান। অভিযুক্ত আলাউদ্দিন মাঝে মধ্যেই ওই দোকানে গিয়ে চা খেয়ে পয়সা পরে দেবে বলে চলে যেত। দীর্ঘদিন ধরে টাকা না দেওয়ায় এ নিয়ে ক্ষোভ বাড়ছিল দোকানির। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার সকালে ফের অভিযুক্ত যুবক দোকানে চা খেতে গেলে পূর্ণিমা দেবী তাকে চা দিতে অস্বীকার করেন। উলটে আগের বাকি পয়সা দাবি করেন তিনি।

সেই সময় চা না খেয়েই ফিরে যায় আলাউদ্দিন। এর কিছুক্ষণ কিছুক্ষণ পর পূর্ণিমাদেবীর বাড়িতে গিয়ে ডাকাডাকি শুরু করে অভিযুক্ত যুবক৷ অভিযোগ, পূর্ণিমাদেবী ঘর থেকে বের হতেই তাঁকে মাটিতে ফেলে বেধড়ক মারধর করে আলাউদ্দিন। নজরে পড়তেই স্থানীয়রা ছুটে গিয়ে পূর্ণিমাকে উদ্ধার করে। তাঁরাই আটকে রাখে অভিযুক্তকে। এরপর খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে অভিযুক্তকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। আক্রান্ত পূর্ণিমা দেবী জানান, ‘দীর্ঘদিন ধরেই চা খেয়ে পয়সা না দিয়ে চলে যেত আলাউদ্দিন। আজকে চা দিইনি সেই কারণে আমার বাড়িতে গিয়ে মারধর করল।’ শেষ পাওয়া খবর অনুযায়ী এ বিষয়ে এখনও কোনও লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়নি। তবে শুধু কী এই অশান্তির জেরেই এই ঘটনা, নাকি এর পিছনে অন্য কোনও রহস্য রয়েছে, তা জানতে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। 

[আরও পড়ুন: সেতুর রেলিং ভেঙে মাঝ নদীতে লরি, মৃত ব্যবসায়ী]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং