৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

নন্দন দত্ত, সিউড়ি: ‘‘মামলার হাত থেকে বাঁচতে ভারতীয় জনতা পার্টিতে আসতে চাইছেন বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল।’’ মঙ্গলবার সিউড়িতে বিজেপির অবস্থান মঞ্চে এসে এমনই বিস্ফোরক দাবি করলেন বাঁকুড়ার সাংসদ সৌমিত্র খাঁ। এখানেই শেষ নয়, জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং-কে জেলা তৃণমূল সভাপতি বলেও কটাক্ষ করেন তিনি।

[ আরও পড়ুন: অস্বাভাবিক আচরণ করছেন বাসিন্দারা, ভূতের ভয়ে আতঙ্কিত গোটা গ্রাম ]

জানা গিয়েছে, বীরভূমের পর্যবেক্ষক হিসাবে মঙ্গলবার জেলায় আসেন সৌমিত্র খাঁ৷ বিজেপির অবস্থান মঞ্চ থেকে দলীয় কর্মীদের জঙ্গি আন্দোলন করার নির্দেশ দেন তিনি৷ বলেন, ‘‘জেলায় কোনও ঘটনা ঘটলেই জেলার সব বুথে একসঙ্গে আন্দোলনে নামতে হবে। যাতে পুলিশ দিয়েও তা থামান না যায়। জেলার সাতশ’শো বুথে তিন হাজার পুলিশ দিয়ে আন্দোলনের মোকাবিলা যাতে না করা যায়।’’ এরপরের বক্তব্যেই বাঁকুড়ার লোকসভা নির্বাচনের প্রসঙ্গও টেনে আনেন তিনি৷ বলেন, ‘‘১২ দিন আগে তিনশো গুন্ডা নিয়ে অনুব্রত মণ্ডল, আমাকে হারাতে গিয়েছিল। কিন্তু তিনি তা রুখে দিয়েছি।’’ পাশাপাশি জেলা তৃণমূল সভাপতিকে কয়লা চোর, বালি চোর বলে আক্রমণ করেন তিনি।

[ আরও পড়ুন: পুজোয় জোটেনি বরাত, ছৌ গ্রাম চড়িদাকে গ্রাস করেছে অদ্ভুত বিষণ্ণতা ]

বিজেপি কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘‘সব পুলিশ তাদের বিপক্ষে নয়। থানার ওসিরা তৃণমূলের ব্লক সভাপতি। বাকিরা অনেকেই ওদের সঙ্গে আছে। প্রতিদিন সিভিকদের মিথ্যা তথ্যের ভিত্তিতে বিজেপি কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে।’’ এরপর আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে বাঁকুড়ার সাংসদ জানান, আগামী বিধানসভা নির্বাচনের ছ’মাস আগে এ রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হবে। তখন সব পুলিশ নিরপেক্ষভাবে কাজ করবে। পাশাপাশি কর্মীদের গোষ্ঠী দ্বন্দ্ব মেটানোরও নির্দেশ দেন সৌমিত্র খাঁ৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং