BREAKING NEWS

২৯ শ্রাবণ  ১৪২৭  শনিবার ১৫ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

‘আগে মনকে গেরুয়া করতে হবে’, তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগদান আটকে দিলেন বাবুল

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: June 9, 2019 10:08 pm|    Updated: June 10, 2019 8:18 am

An Images

চন্দ্রশেখর চট্টোপাধ্যায়, আসানসোল: স্রোতের বিপরীতে হাঁটলেন বাবুল সুপ্রিয়। যাঁরা ঘাসফুলের ঝান্ডা ছেড়ে পদ্ম ফুলের ঝান্ডা ধরতে এসেছিলেন তাঁদের ফিরিয়ে দিলেন আসানসোলের সাংসদ তথা মন্ত্রী। রবিবার বিকেলে জামুড়িয়ায় বিজয় উৎসবে উপলক্ষ্যে জামুড়িয়াবাসীকে ধন্যবাদ জানাতে এসেছিলেন বাবুল। ওই অনুষ্ঠানেই জামুড়িয়ার বিজেপির গ্রামীণ ব্লকের সভাপতি প্রায় শ’দুয়েক স্থানীয় কর্মীকে নিয়ে এসে দাবি করেছিলেন এনারা তৃণমূলের সক্রিয় কর্মী। বিজেপিতে যোগ দিতে ইচ্ছুক। কিন্তু রাজ্যজুড়ে দলবদলের অনুষ্ঠানের চেনা ছবির ছন্দপতন ঘটল জামুড়িয়ায়। দলবদল করতে আসা তৃণমূল কর্মীদের উদ্যেশ্যে বাবুল সুপ্রিয় মঞ্চ থেকে বলেন “যে কেউ এসে বিজেপির ঝান্ডা ধরে নেবে তা হতে দেব না। সবকিছু এত সহজ নয়। আমার যে ভাইয়েরা এতদিন লড়াই করেছে, অত্যাচারিত হয়েছে। তাঁদের আত্মমার্যাদা রাখতে এখনই তাঁদের সঙ্গে আপনাদের মেলাব না”।

বাবুল সুপ্রিয় দলবদল করতে আসা তৃণমূল কর্মীদের বার্তা দেন বিজেপিতে আসার আগে মনটাকে গেরুয়া রঙে রাঙাতে হবে। মাঠে নেমে কাজ করতে হবে। মোদিজির সঙ্গে চলার অঙ্গীকার করতে হবে। এরপর দুমাস বাদে অন্য অনুষ্ঠান করে দেখা যাবে আপনাদের যোগদান করা যায় কিনা। এদিন বাবুল ছিলেন তাঁর পুরানো মেজাজে। প্রথম থেকেই তৃণমূল নেতৃত্বকে একহাত নেন তিনি। জয় শ্রীরাম ধ্বনি তুলে বলেন “রাম নাম সব সময়ই সত্য হয়। তাই ভূতেরা রাম নামকে ভয় পায়। যেমনটা পাচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী”। বাবুলের মতে এরাজ্যে অত্যাচারের বিরুদ্ধে আওয়াজের নাম হল জয় শ্রীরাম। আগে ইন্দিরা গান্ধী বা জ্যোতি বসুদের নামে ব্যঙ্গ করে স্লোগান তৈরি হত। তাতে বেজায় চটতেন কংগ্রেস ও বাম নেতৃত্ব। আমরা তা করিনি। শুধু মনের জ্বালা মেটাতে বলেছি জয় শ্রীরাম। তাতেই বেজায় চটছেন মুখ্যমন্ত্রী।

আসানসোলের সাতটি বিধানসভা কেন্দ্রেই বিপুল ভোটে জয়ী হয়েছেন বিজেপি প্রার্থী। “বদলা নয় বদলের” রাজনীতির আহ্বান জানান বাবুল। বহু সন্ত্রাস হুমকিকে উপেক্ষা করে জামুড়িয়ার মানুষ যেভাবে উজাড় করে ভোট দিয়েছেন তার জন্য ধন্যবাদ জানান। জামুড়িয়ায় তৃণমূলের এক অনুষ্ঠানে আসানসোলের মেয়র ঘোষণা করেছিলেন ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে লিড দিলে কাউন্সিলরদের পুরস্কার দেওয়া হবে। সেই ঘটনার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বাবুল কটাক্ষ করে বলেন, ‘কাউন্সিলররা ভোটে জেতায় না। মানুষের মনে জায়গা করে নিতে হয়। তাই আমাকে দুলাখ ভোট জিতিয়ে মেয়রকে সেই যোগ্য জবাব দিয়েছেন মানুষ।’ অনুব্রত মণ্ডলের নাম না করে তিনি বলেন, ‘তৃণমূলের এক নেতা বলেছিলেন বাবুল জিতলে রাজনীতি ছেড়ে দেবেন কিন্তু তিনি রাজনীতি ছাড়েননি। আর আমার কথা মতো হাওড়া স্টেশনের বাইরে খাঁচায় টিয়াপাখি নিয়ে বসেননি। এদের কথার কোনও দাম নেই।’

ছবি: মৈনাক মুখোপাধ্যায়

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement