১২ আশ্বিন  ১৪২৭  বুধবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

পরিবেশ রক্ষায় ‘নগরবন’ তৈরিতে আগ্রহী বাবুল সুপ্রিয়, জমি চেয়ে আসানসোলের মেয়রকে টুইট

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 18, 2020 11:05 am|    Updated: August 18, 2020 11:16 am

An Images

চন্দ্রশেখর চট্টোপাধ্যায়, আসানসোল: নিজের সংসদীয় এলাকায় কেন্দ্রীয় প্রকল্প ‘নগরবন’ তৈরি করতে ইচ্ছুক আসানসোলের সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় (Babul Supriyo)। এর জন্য জমি চেয়ে তিনি সরাসরি আসানসোলের মেয়র জিতেন্দ্র তিওয়ারির নাম তুলে টুইট করলেন। মেয়রের কাছে তাঁর আবেদন, জমির ব্যবস্থা করা হলেও তাঁর মন্ত্রক থেকে ২ কোটি দেওয়া হবে। এ নিয়ে মেয়রের প্রতিক্রিয়া, সরকারি কাজের প্রস্তাব টুইট করে দেওয়া হয় না। তবু তাঁর ইচ্ছাকে সম্মান জানিয়ে তা বিবেচনা করা হবে বলেও আশ্বাস মেয়রের।

সোমবার কেন্দ্রীয় বনমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় তাঁর টুইট হ্যান্ডেল থেকে পোস্ট করেন, “আসানসোল কর্পোরেশনের মেয়র জিতেন্দ্র তেওয়ারিকে অনুরোধ করব, যত তাড়াতাড়ি সম্ভব আসানসোলে ‘নগরবন’ বানানোর জন্য জায়গা নির্ধারিত করতে। যাতে আমি সত্বর ২ কোটি টাকা অনুদান আসানসোলের জন্য দ্রুত রিলিজ করতে পারি।”

কেন্দ্রের ক্যামপা ফান্ড থেকে এই ‘নগরবন’ প্রকল্পে রাজ্যগুলির জন্য বরাদ্দ হয়েছে ২৩৬.৪৮ কোটি টাকা। যে ফান্ড দেওয়া হবে রাজ্যের বনমন্ত্রীর হাত ধরে। ওই ক্যামপা ফান্ডের মধ্যে ‘নগরবন’ একটি প্রকল্প। তার জন্য প্রয়োজন ১০.৫০ হেক্টর জমি। ২ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে গাছ লাগানোর ফেন্সিং ও রক্ষণাবেক্ষণের জন্য। বাবুল সুপ্রিয় বলেন, ২০২০-২১ অর্থবর্ষে ৪০ টি ‘নগরবন’ প্রকল্প তৈরির লক্ষ্য রাখা হয়েছে। ইতিমধ্যেই তিনটি রাজ্যে ১৪ টি নগরবনের জন্য আবেদন করায় ২ কোটি টাকা করে মঞ্জুর হয়েছে। ৩১ আগস্টের মধ্যে নগরবন তৈরির আবেদন তথ্য সহকারে পাঠিয়ে দিতে হবে কেন্দ্রীয় বন ও পরিবেশ মন্ত্রকে। তারপরেই অক্টোবর থেকে অর্থমঞ্জুর করে কাজ শুরু হয়ে যাবে।

[আরও পড়ুন: জ্বর-শ্বাসকষ্টে বৃদ্ধের মৃত্যু, করোনা সন্দেহে ফোনেই মুখাগ্নির মন্ত্র পড়লেন পুরোহিত]

বাবুল সুপ্রিয়র বক্তব্য, “কেন্দ্রের এই প্রকল্পের সুবিধা যাতে আমার সংসদীয় এলাকা পায়, তার জন্য মেয়রকে দ্রুত আবেদন করতে বলেছি।”এই প্রসঙ্গে মেয়র জিতেন্দ্র তেওয়ারি বলেন, “সরকারি কাজের প্রস্তাব টুইট করে হয় না। তবু বাবুল সুপ্রিয়র টুইটকে সম্মান জানিয়ে আমি দ্রুত জমির ব্যবস্থা করব।” তিনি আরও বলেন, “আসানসোলের বেশিরভাগ পরিত্যক্ত জমি বা ভেস্টেট ল্যান্ড রয়েছে রাষ্ট্রায়ত্ব সংস্থা রেল, ইসিএল ও সেইলের হাতে। ওই সংস্থাগুলিকে চিঠি পাঠিয়ে আবেদন করব যেন ‘নগরবন’ প্রকল্পের জন্য তাঁরা জমি দেন। পাশাপাশি বাবুলবাবুকেও বলবো কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হয়ে তিনিও যেন ওই সংস্থাগুলিকেও জমির ব্যাপারে তদ্বির করেন।”

[আরও পড়ুন: পাঁচিল নিয়ে উত্তেজনার মাঝে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের বিজ্ঞপ্তি! প্রশ্নের মুখে বিশ্বভারতী কর্তৃপক্ষ]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement