BREAKING NEWS

১৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  সোমবার ৬ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

খোলা মঞ্চে বাংলাদেশি নাট্যদলকে ‘অপমান’ জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত শিল্পীর

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: August 2, 2018 3:26 pm|    Updated: August 2, 2018 4:06 pm

Bangladeshi drama group 'humiliation' by drama artist

ছবি: রতন দে৷

রাজা দাস, বালুরঘাট: নাট্যমঞ্চে দাঁড়িয়ে বাংলাদেশি নাট্যসংস্থাকে ‘অপমান’ করে সোশ্যাল মিডিয়ায় মুখ পোড়ালেন জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত হরিমাধব মুখোপাধ্যায়৷ বিশিষ্ট এই নাট্যবক্তিত্বের বিরুদ্ধে তোলপাড় সোশ্যাল মিডিয়া৷ চূড়ান্ত ক্ষুব্ধ রাজ্যের নাট্যকর্মীদের একাংশ৷

[সৌজন্যের বার্তা চিনের, প্রতিষ্ঠা দিবসে ভারতীয় সেনাকে আমন্ত্রণ লাল ফৌজের]

জানা গিয়েছে, বালুরঘাটে একটি বেসরকারি বিএড কলেজের নবীনবরণ উপলক্ষে বাংলাদেশের চিন্তক নাট্যগোষ্ঠীর ‘বেহুলা ভাসান’ নামের একটি নাটক মঞ্চস্থ করা হয় বুধবার রাতে৷ মূলত, বাংলাদেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক রক্ষায় ছিল এর প্রধান লক্ষ্য৷ অভিযোগ, নাটক শেষে উপস্থিত বিশিষ্টদের মতামত জানাতে মঞ্চে ডাকা হয়৷ সেসময় জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত তথা বালুরঘাটে বিশিষ্ট নাট্যকার হরিমাধব মুখোপাধ্যায় মঞ্চে উঠেন৷ তিনি মাইক্রোফোন ধরে বেশ কিছু তির্যক মন্তব্য করেন প্রযোজিত ওই নাটক নিয়ে৷ রীতিমতো ‘অপমান’ করেন বাংলাদেশের নাট্যগোষ্ঠীর সদস্যদের৷ তাঁর ওই মন্তব্যে চূড়ান্ত ক্ষুব্ধ হন দর্শক ও নাট্যদলগুলি৷ মাধববাবুর বিতর্কিত মন্তব্যে বাংলাদেশি নাট্যদলের সদস্যরা ও পরিচালক বাবুলাল চৌধুরির মাথা নত হয়ে যায়৷ চরম অস্বস্তিতে পড়ে মাইক্রোফোন কেড়ে নিয়ে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন কলেজের অধ্যক্ষ ববি মহন্ত৷ রাতের এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ঝড় ওঠে সোশ্যাল মিডিয়ায়৷ হরিমাধববাবুর ওই ভূমিকা তুলে ধরে লিখিতভাবে ছড়িয়ে দেওয়া হয়৷ সেখানেই জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত হরিমাধববাবুর বিরুদ্ধে মতামত প্রকাশ করেন বালুরঘাট থেকে শুরু করে কলকাতার বিশিষ্টরা৷ বিতর্ক ছড়িয়ে পড়ে সোশ্যাল মিডিয়ার বাইরেও৷

[বঙ্গোপসাগরে নিখোঁজ মৎস্যজীবীর দেহ উদ্ধার, ট্রলারের সন্ধানে চলছে তল্লাশি]

বালুরঘাটের নাট্যদল সমবেত নাট্যকর্মীর পরিচালক প্রদোষ মিত্র বলেন, ‘‘বাংলাদেশ গাইবান্ধা চিন্তক নাট্যগোষ্ঠী ‘বেহুলা ভাসান’ প্রযোজনা আমাদের মুগ্ধ করেছে৷ তার পরেও একজন জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত নাট্যব্যক্তিত্ব মঞ্চে দাঁড়িয়ে যেভাবে অপমানিত করলেন, এতে বালুরঘাটের একজন নাট্যকর্মী হিসেবে ক্ষমাপ্রার্থী৷ এই অপমান আমাদের মাথা লজ্জায় হেঁট করে দিয়েছে৷ বাংলাদেশ থেকে নাটক নিয়ে তাঁরা ভারত সফরে এসেছেন। সেখানে নাক উঁচু, দাম্ভিক, অহংকারী এই নাট্যবিশারদ ব্যাকরণবাগীশ মানুষটি সুযোগ পেয়েই অপমান করতে সিদ্ধহস্ত৷ এ কারণে তিনি আজ এই শহরে অনেকের কাছে নিন্দিত৷ তিনি নাট্যতাত্বিক, নাট্যবিশারদ৷ কিন্তু মঞ্চে দাঁড়িয়ে অন্য একটি নাট্যদলকে এ ভাবে অপমান অধিকার তাঁকে কে দিয়েছে।’’

[সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে পাহাড়ে সিআইডির অভিযান, বাজেয়াপ্ত গুরুং দম্পতির সম্পত্তি]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে