২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

রাজনৈতিক হিংসায় নিহত কর্মীদের স্বাধীনতা দিবসে শ্রদ্ধা জানাবে বঙ্গ বিজেপি

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: August 13, 2020 7:51 pm|    Updated: August 13, 2020 7:51 pm

An Images

রূপায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়: রাজনৈতিক হিংসার ঘটনায় পশ্চিমবঙ্গে দলের যে সমস্ত নেতা ও কর্মী শহিদ হয়েছেন কাল স্বাধীনতা দিবসের দিন তাঁদের সম্মান ও শ্রদ্ধা জানাবে বঙ্গ বিজেপি। দলের ৯৮ জন শহিদের বাড়িতে গিয়ে তাদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করবেন বিজেপি নেতারা। পরিবারের খোঁজখবর নেবেন। বৃহস্পতিবার দলের রাজ্যদপ্তরে দলের এই কর্মসূচির কথা জানালেন বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক রাহুল সিনহা (Rahul Sinha)। একসঙ্গে ১৫ আগস্ট বিপ্লবীদের প্রতিও শ্রদ্ধা জানাবে বঙ্গ বিজেপি। এছাড়া, ১৫ আগস্ট (Independence Day) রাজ্যে বিজেপির সমস্ত নেতা-কর্মীরা নিজেদের বাড়িতে জাতীয় পতাকা ও দলের পতাকা উত্তোলন করবে।

এরপর ১৬ আগস্ট রাজ্যের প্রতি বুথে ধরনা কর্মসূচিও নিয়েছে গেরুয়া শিবির। রাজ্যে গণতন্ত্রকে হত্যা করা হয়েছে। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো কাজ করতে পারছে না। তৃণমূল সরকারের বা তৃণমূলের কাজকর্মের বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়া বা অন্যত্র সাধারণ মানুষ প্রতিবাদ করলে শাসকদলের রোষের মুখে পড়তে হচ্ছে বলে অভিযোগ রাহুল সিনহার। অথবা মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে। এরই প্রতিবাদে বিভিন্ন বুথে বা নিজেদের বাড়িতে বিজেপি নেতা-কর্মীরা ১৬ আগস্ট ধরনা কর্মসূচি করবে।

[আরও পড়ুন: ‘চোখের খিদে মেটাতে হট ছবি পাঠাও’, তরুণীকে কুপ্রস্তাব ডিওয়াইএফআই নেতার]

কয়েকদিন আগে সুচনা হওয়া দলের নতুন সদস্য সংগ্রহ কর্মসূচি ‘আমার পরিবার বিজেপি পরিবার’ এ অভূতপূর্ব সাড়া মিলেছে বলে দাবি রাহুলবাবুর। তিনি বলেন, সমস্ত ধর্মের এবং সমাজের সমস্ত স্তরের মানুষের থেকে সাড়া মিলেছে বিজেপি পরিবারে যোগ দেওয়ার জন্য। অন্যদিকে তৃণমূলের দিদিকে বলো কর্মসূচি নিয়ে কটাক্ষ করেছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় সম্পাদক। তাঁর কথায়, দিদিকে বলো আর কেউ বলছে না। তৃণমূল এখন দিশাহারা। কীভাবে জনসংযোগ করবে বুঝে উঠতে পারছে না।

এদিকে, বিধানসভা ভোটের আগে রাজ্যে দলের মধ্যে ঐক্য বজায় রাখাটাই লক্ষ্য। কোনও মতানৈক্য বা দ্বন্দ্ব যেন না থাকে তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন কেন্দ্রীয় নেতারা। সূত্রের খবর, আগামী সপ্তাহে রাজ্যের দায়িত্বপ্রাপ্ত বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতা কৈলাস বিজয়বর্গীয় আসছেন। দলের সকল নেতৃত্বকে নিয়ে তিনি বৈঠক করবেন। এদিকে, রাজ্য বিজেপিতে দুপক্ষের মধ্যে মতানৈক্য চলছে বলে জল্পনা চলছিল। দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ কয়েকদিন আগে সাংবাদিক বৈঠকে স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, “বিজেপি পার্টি একটা পরিবার। আমাদের মধ্যে কোনও গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নেই।”

[আরও পড়ুন: লকডাউনের দিন পরিবর্তন নিয়ে সরকারকে ‘অপদার্থ’ তকমা দিলেন রাহুল সিনহা]

সূত্রের খবর, আগামী সপ্তাহে কলকাতায় রাজ্যের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় নেতারা এসে বৈঠক করলে সেখানে যেমন দলের নতুন কর্মসূচি ও রণকৌশল ঠিক হবে তেমনই বিধানসভা ভিত্তিক সংগঠন নিয়ে আলোচনা হবে। এছাড়া, দলের মধ্যে কোনওরকম মতানৈক্য যেন না থাকে সেটাও ওই বৈঠকে পরিষ্কার বার্তা দিয়ে দেবেন কেন্দ্রীয় নেতারা।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement