BREAKING NEWS

১ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

সর্বশিক্ষা অভিযানের ক্যালেন্ডারে ছোট্ট নন্দিতার আঁকা ছবি, উচ্ছ্বাস কেতুগ্রামে

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 26, 2018 12:03 pm|    Updated: January 26, 2018 12:03 pm

An Images

ধীমান রায়: পরিবেশ রক্ষায় ছোটরা কীভাবে সদর্থক ভূমিকা পালন করতে পারে, সেই ভাবনাই রঙে-রেখায় ফুটে উঠেছিল ছোট্ট নন্দিতার আঁকা ছবিতে। সে ছবি রাজ্যে সেরা ছবির স্থান তো ছিনিয়ে নিয়েইছিল। এবার জায়গা পেল সর্বশিক্ষা অভিযানের ২০১৮ সালের ক্যালেন্ডারেও। নির্মল বাংলা অভিযানের অঙ্কন প্রতিযোগিতায় পঞ্চম থেকে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রছাত্রীদের বিভাগে রাজ্যে মধ্যে প্রথম হয়েছিল কেতুগ্রাম গার্লস জুনিয়র হাইস্কুলের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্রী নন্দিতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবার তার আঁকা ছবিই জায়গা করে নিয়েছে সর্বশিক্ষা অভিযানের ২০১৮ সালের ক্যালেন্ডারেও। একরত্তির এই সাফল্যে প্রচণ্ড খুশি স্কুলের শিক্ষিকা থেকে প্রতিবেশীরাও।

[ সবথেকে বড় তেরঙ্গা উড়িয়ে নজির বাংলার, দেখুন ভিডিও ]

নন্দিতার বাবা সুব্রত বন্দ্যোপাধ্যায় পেশায় চাষি। মা সঞ্চিতাদেবী গৃহবধূ। ছোট থেকেই আঁকাজোকা ভালবাসে নন্দিতা। বাড়িতেই আঁকার চর্চা করত সে। পরে গ্রামেরই এক শিল্পীর কাছে প্রশিক্ষণ নেওয়া শুরু করে। তার চর্চা যে এতবড় সাফল্য পাবে গোড়ার দিকে কেউ তা ভাবেননি। তবে এভাবেই তো স্বপ্ন সত্যি হয়। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, এবছর নির্মল বিদ্যালয় সপ্তাহ পালনের পাশাপাশি স্কুল ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে অঙ্কন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়েছিল। চারটি বিভাগে চারটি বিষয়ে প্রতিযোগিতা হয়। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির জন্য বিষয় ছিল ‘দিন কাটুক পরিচ্ছন্নতায়’, তৃতীয় ও চতুর্থ শ্রেণির জন্য বিষয় ‘আমাদের কর্তব্য বিদ্যালয়ের পরিচ্ছন্নতা’, পঞ্চম থেকে সপ্তম শ্রেণির জন্য ‘পরিবেশ সুরক্ষায় শিশু সংসদ’ এবং অষ্টম থেকে দশম শ্রেণির বিষয় ছিল ‘বর্জ্য পদার্থের ব্যবস্থাপনা’।

জাতীয় পতাকায় ১৭ বার বদল, কালী স্যারের জিম্মায় সযত্নে সেই ইতিহাস ]

এই চার বিভাগের প্রতিযোগিতায় ‘পরিবেশ সুরক্ষায় শিশু সংসদ’ বিষয়ে রাজ্যে প্রথম স্থান ছিনিয়ে নিয়েছিল নন্দিতা। পুরস্কারের পাশাপাশি তার আঁকা ছবি তাই সর্বশিক্ষা অভিযানের ক্যালেন্ডারেও ছাপা হয়েছে। ছোট্ট নন্দিতা এ ব্যাপারে দারুণ খুশি। সে নিজেই জানিয়েছে, “আমি আরও ভাল আঁকতে চাই। ভাল করে পড়াশোনাও করতে চাই।” মেয়ের এই সাফল্যে গর্বে বুক ভরেছে মা-বাবারও। আগামিদিনে নন্দিতার স্বপ্ন পূরণ হোক, আপাতত তাঁদের প্রার্থনা এটাই। আর সেই স্বপ্নপূরণে সবরকমভাবে পাশে থাকতেও তৈরি তাঁরা।

 ছবি–জয়ন্ত দাস

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement