২৪ বৈশাখ  ১৪২৮  শনিবার ৮ মে ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

করোনা পরিস্থিতির জের, মমতার পর নির্বাচনী প্রচার সভা বাতিলের সিদ্ধান্ত অভিষেকেরও

Published by: Paramita Paul |    Posted: April 22, 2021 6:59 am|    Updated: April 23, 2021 12:57 pm

An Images

রাজ্যে ষষ্ঠ দফার ভোটগ্রহণ সম্পূর্ণ। চার জেলা – উত্তর দিনাজপুর, নদিয়া, উত্তর ২৪ পরগনা, পূর্ব বর্ধমানের মোট ৪৩ আসনে বিক্ষিপ্ত অশান্তির মধ্যে দিয়েই হয়ে গেল নির্বাচন। ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে গেল একাধিক হেভিওয়েট ও তারকা প্রার্থীদের। দিনভর রাজ্যের ভোট ষষ্ঠীর খুঁটিনাটি –

রাত ১০: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পথে হেঁটে এবার সভা বাতিলের সিদ্ধান্ত যুব তৃণমূল সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়েরও। সূত্রের খবর, তিনিও ভারচুয়াল সভা করবেন।

রাত ৯.১৫: কোভিড আবহে সব সভা বাতিল করলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়। টুইট করে জানালেন তিনি। ভারচুয়াল সভা হবে, তবে দিনক্ষণ স্থির হবে পরে। 

রাত ৮.৪০: করোনার কোপ। রাজনৈতির প্রচারে ভিড় সামলাতে রোড শো, মিছিলে নিষেধাজ্ঞা জারি নির্বাচন কমিশনের। আগামী ২ দফার ভোটে প্রচারে কোনও রোড শো, পদযাত্রা করা যাবে না। 

রাত ৮: ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত উত্তর দিনাজপুরের চোপড়া। সকালের পর সন্ধেবেলাও বিজেপি কর্মীদের লক্ষ্য করে গুলি চলে। জখম ৩ জন। অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। প্রতিবাদে চোপড়া থানা ঘেরাও বিজেপির।

সন্ধে ৭: কোভিড পরিস্থিতিতে শেষ দু’দফার ভোট নিয়ে  শুক্রবার বৈঠকে বসছে নির্বাচন কমিশনের ফুল বেঞ্চ। 

সন্ধে ৬.৪৯: বারাকপুরে ভোট পরবর্তী হিংসা। ৫ নং ওয়ার্ড এলাকায় বিজেপির ক্যাম্প অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। প্রতিবাদে বারাকপুর-বারাসত রোড অবরোধ বিজেপি সমর্থকদের।

সন্ধে ৬. ১৫: কালিয়গঞ্জে তৃণমূলের ক্যাম্প অফিসে হামলার অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে। মারধর করা হয় এক ছাত্র নেতাকে। এই ঘটনায় আটক ১। হামলার অভিযোগ অস্বীকার করেছে বিজেপি। 

সন্ধে ৬.০১ : বিকেল ৫ টা পর্যন্ত  চার জেলায় ভোটদানের গড় হার ৭৯.০৯ শতাংশ। নদিয়া জেলায় ভোটের হার সর্বোচ্চ, ৮২.৬৭ শতাংশ।

বিকেল ৪.৫৬: বিকেল ৪টে পর্যন্ত উত্তর ২৪ পরগনায় ভোটদানের হার ৭০ শতাংশের বেশি। আমডাঙায় ভোটের হার সর্বোচ্চ – ৭৫ শতাংশ। 

বিকেল ৪.৩০: ভোটের শেষলগ্নে উত্তপ্ত উত্তর ২৪ পরগনার বাগদা। ভোটারদের সঙ্গে বচসার জেরে গুলিচালনার অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে। বাগদার রণঘাটে বিজেপির ক্যাম্প অফিস ভাঙচুরের অভিযোগ পুলিশের বিরুদ্ধে। পালটা মারধর করা হয় পুলিশকে। গুরুতর জখম এক পুলিশ কর্মী। উর্দি ছিঁড়ে দেওয়ার অভিযোগ। মোট ১০ রাউন্ড গুলি চলেছে বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। ঘটনা খতিয়ে দেখছে নির্বাচন কমিশন। 

দুপুর ৩.৩৩: পলাশিপাড়ার ধাওয়াপাড়ায় তৃণমূল কর্মীদের মারধরের অভিযোগ উঠেছে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে। খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছন তৃণমূল প্রার্থী মানিক ভট্টাচার্য। 

দুপুর ৩.২২: নিউ বারাকপুরে বিজেপির ক্যাম্প অফিস ভাঙচুর করার অভিযোগ উঠেছে। 

দুপুর ৩.২০: বীজপুরে এলাকা দখলকে কেন্দ্র করে অশান্তি। ঘটনাস্থলে আসেন বিজেপি প্রার্থী শুভ্রাংশু রায়। তাঁর অভিযোগ, তৃণমূল কর্মীরা বুথ দখলের চেষ্টা করছিল। বাধা দেওয়ায় তারা বিজেপি কর্মীদের উপর চড়াও হয় বলে অভিযোগ। পালটা তারা তৃণমূলের অফিস ভাঙচুর করে বলে অভিযোগ। তৃণমূল কর্মীকে রাস্তায় ফেলে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। 

দুপুর ২.৫৯: বেলা দেড়টা পর্যন্ত ভোট পড়ল ৫৭.৩০ শতাংশ।

দুপুর ২.৫৫: শেষ দুই দফা নির্বাচন একসঙ্গে হোক। এই আবেদন জানিয়ে ফের নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হল তৃণমূল। ফের চিঠি দিলেন তাঁরা। এর পিছনে তিনটি কারণ দেখাল তাঁরা। 

দুপুর ২.৪৩: থমকে ভোটদান। ভোট দেওয়া সত্বেও ভোট রায়গঞ্জের আদর্শ কমলাবাড়ি স্কুলে ভোট দিতে এসে ভোট পারলেন না আশি বছরের বৃদ্ধা। প্রিসাইডিং অফিসার জানিয়েছেন, তাঁর ভোট নাকি পোস্টাল ব্যালটেই হয়ে গিয়েছে। অথচ ওই বৃদ্ধার দাবি, তিনি পোস্টার ব্যালটে কোনও ভোট দেননি। দাবি, পালটা দাবি ঘিরে উত্তেজনা ছড়িয়েছে এলাকায়।  

দুপুর ২.২৮: নিরাপত্তা বাড়ল তৃণমূল প্রার্থী কৌশানী মুখোপাধ্যায়ের। 

দুপুর ২.১৮: টিটাগড়েও ব্যাপক বোমাবাজি। টাটা গেটের কাছে বোমা পড়ে। জখম ১ শিশু-সহ ৭ জন। তাঁরা বিএন বোস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। বিজেপি ক্যাম্প অফিস ভাঙচুর করা হয়েছে বলে অভিযোগ। এলাকায় ঢুকেছে বিশাল কেন্দ্রীয় বাহিনী।

দুপুর ২.১৫: বারাকপুরের ৪ নম্বর ওয়ার্ডে ব্যাপক বোমাবাজি। বাইকে চেপে এসে দুষ্কৃতীরা ৮-১০টি বোমা ছোড়ে বলে অভিযোগ। 

দুপুর ১.৩৮: কৃষ্ণনগর উত্তরে বিক্ষোভের মুখে কৌশানী মুখোপাধ্যায়। বিজেপির অভিযোগ, একাধিক বহিরাগতকে নিয়ে বুথে-বুথে ঘুরে বেরাচ্ছেন তৃণমূল প্রার্থী। তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখান বিজেপি কর্মীরা। জয় শ্রীরাম স্লোগান দেওয়া হয় বলেও দাবি। 

দুপুর ১.২১: কেতুগ্রাম বিধানসভার অন্তর্গত খাসপুর এলাকায় বিজেপি প্রার্থী মথুরা ঘোষের ওপর হামলার অভিযোগ। তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ।

দুপুর ১.১৪: কাঁকসা থানার পুলিশ অশান্তি রুখতে সকাল থেকেই কড়া মনোভাব। ভোটের গন্ডগোল আটকাতে এখনও ২১ জনকে আটক করেছে কাঁকসা থানার পুলিশ। কাঁকসার সিপিএমের জোনাল অফিসের সামনে অবাঞ্ছিত ভিড় থেকেই আটক করে অভিযুক্তদের। ভোটারদের ভয় দেখানোর অভিযোগ ছিল তাদের বিরুদ্ধে।এদিকে কাঁকসার ৬৮ নম্বর বুথে ফের বিকল ইভিএম। কাঁকসার রেলপাড়ের ৭৫, ৭৬, ৭৭ নম্বর বুথে গাড়ি দাঁড় করিয়ে চালক সেজে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ। ঘটনাস্থলে আসে পুলিশ।

 দুপুর ১.০৮: উত্তর দমদমে আটক ৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শেখ নাজিমুদ্দিন। বিজেপি প্রার্থীর অভিযোগের ভিত্তিতে আটক করা হয়েছে তাঁকে। তাঁর বিরুদ্ধে গোলমালের অভিযোগ উঠেছে। 

বেলা ১২.৫৮: স্বরূপ নগর পাতুয়া লস্কর পোতায় ১৫৬ নং বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে লাঠিচার্জের অভিযোগ। আহত  তৃণমূল কর্মী মইদুল মণ্ডল। অভিযোগ, বুথ ক্যাম্পে বসেছিলেন মইদুল-সহ অন্য কর্মীরা। আচমকা কেন্দ্রীয় বাহিনী  লাঠি চালায় বলে অভিযোগ। লাঠির আঘাতে আহত হয়েছেন তৃণমূল কর্মী। ঘটনায় উত্তেজনা ছড়িয়েছে এলাকায়। পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ঘিরে ধরে বিক্ষোভ গ্রামবাসীদের।

বেলা ১২.৪১: কোভিড পরিস্থিতিতে ভোট নিয়ে কমিশনের ভূমিকায় অসন্তুষ্ট কলকাতা হাই কোর্ট। কমিশনের হাতে চূড়ান্ত ক্ষমতা থাকলেও তার সঠিক ব্যবহার করেনি বলে মন্তব্য হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতির। 

বেলা ১২.৩৫: হাবড়ার নারায়ণপুর বিদ্যালয়ে উত্তেজনা। কেন্দ্রীয় বাহিনীর সঙ্গে বচসায় জড়ালেন তৃণমূল প্রার্থী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। বুথের সামনে বসে পড়েছেন তিনি। তাঁর অভিযোগ, কেন্দ্রীয় বাহিনীর দাপট চলছে। ভোট  শেষ না হওয়া পর্যন্ত তিনি বসে থাকবেন বলে জানিয়েছেন।  ঘটনাস্থলে কেন্দ্রীয় বাহিনীর কমান্ডার। 

বেলা ১২.২৮: গলসি বিধানসভার চাকতেঁতুল পঞ্চায়েতে সকাল থেকে বিজেপি কর্মীরা এলাকায় ব্যাপক সন্ত্রাস চালাচ্ছে বলে অভিযোগ তৃণমূলের। পালটা তৃণমুলের অভিযোগ কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপস্থিতিতেই বিজেপি কর্মীরা এলাকায় ভয় দেখাতে শুরু করে ভোটারদের। তৃণমূল নেতা জাকির হসেন অভিযোগ করেন, “আমাদের সমর্থক প্রিয়রঞ্জন মণ্ডল নস্করবাঁধে ভোট দিয়ে বের হওয়ার পরেই বুদ্ধদেব ঘোষের নেতৃত্বে একদল বিজেপি কর্মী লাঠিসোঁটা নিয়ে ব্যাপক মারধর করে তৃণমূল সমর্থককে।” এই নিয়ে ব্যাপক উত্তেজনা দেখা দেয় এলাকায়। সকাল থেকেই কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপস্থিতিতেই এখানে বিজেপির দাপট দেখা গিয়েছে বলে অভিযোগ তৃণমূলের। তৃণমূলের অভিযোগস বহিরাগত বিজেপি দুষ্কৃতীরা মুখে গামছা বেঁধে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে। নস্করবাঁধেপ দিকে বিশাল পুলিশ বাহিনী এবং কেন্দ্রীয় বাহিনী গিয়েছে।

বেলা ১২.২৭: সারাফুল নির্মাণ গ্রাম পঞ্চায়েত কাটাবাগান ১৫০ নম্বর বুথে মেশিন খারাপ। গন্ডগোল চলছে।

বেলা ১২.২৫: বাদুড়িয়া বিধানসভার রুদ্রপুর ১২০ নম্বর রুদ্রপুর হাই স্কুলের ফার্স্ট পোলিং অফিসার সাবিনা ইয়াসমিন হঠাৎ ভোট কেন্দ্রের মধ্যে অসুস্থ হয়ে পড়েন। তাঁকে দ্রুত চিকিৎসার জন্য রুদ্রপুর গ্রামীণ হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। কিছুক্ষণের জন্য ভোট বন্ধ হয়ে যায়।

বেলা ১২.২৩: অশোকনগরের বিড়ায় বোমাবাজির অভিযোগ। গুলিও চলেছে বলে খবর।

বেলা ১২.৩০: অশোকনগর বিধানসভার দীঘারা মালিক বেরিয়ার ৬৯ নম্বর বুথে পঞ্চায়েত প্রধানকে সেনাবাহিনী দ্বারা হেনস্তার অভিযোগ। পঞ্চায়েত প্রধানের অভিযোগ, বিজেপি ও আইএসএফ-এর প্ররোচনায় সেনাবাহিনীর সন্ত্রাস চালাচ্ছে। পঞ্চায়েত প্রধান চিন্ময়কুমার মণ্ডলকে সেনাবাহিনী তুলে নিয়ে যায় বলে অভিযোগ। অবশ্য তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

বেলা ১২.১৮: কেন্দ্রীয় বাহিনীর সামনেই আমডাঙায় বোমাবাজির অভিযোগ। উত্তপ্ত বারাকপুরও। বিজেপি প্রার্থী চন্দ্রমণি শুক্লার সামনেই তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ।

সকাল ১১.৫৪: ভাতার বিধানসভা কেন্দ্রের পাটনা গ্রামে ৫৬ নম্বর বুথের সামনে জমায়েত হঠাতে কেন্দ্রীয় বাহিনীর লাঠিচার্জ। আহত দুই।

সকাল ১১.৫১: বেলা ১১টা পর্যন্ত বাংলায় ভোট পড়ল ৩৭ শতাংশ।

সকাল ১১.৪২: আউশগ্রামের শিবদা গ্রামে ২১০, ২১১, ২১২ নম্বর বুথের বাইরে ব্যাপক ঝামেলা। বিজেপি কর্মীদের মারধরের অভিযোগ। আহত প্রায় ৬ জন।

সকাল ১১.৪০: আমডাঙার ৮৩ নম্বর বুথ সংলগ্ন রংমহল এলাকায় ঝোপের মধ্যে বোমা উদ্ধারের ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে বিশাল কেন্দ্রীয় বাহিনী। 

সকাল ১১.৩৫: হাবড়া বিধানসভার ৬২ ও ৬৩ নম্বর বুথের কাছে তৃণমূলের ক্যাম্প অফিস ভাঙচুর করার অভিযোগ কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে।

সকাল ১১.২৬: মঙ্গলকোটের বারোগ্রামে ৯ নম্বর বুথের তৃণমূল কংগ্রেসের এজেন্টকে মারধর। মাথা ফেটেছে বলে অভিযোগ।

সকাল ১১.২৪: গলসি বিধানসভার শিরোরাই এলাকায় হিন্দু ভোটারদের হুমকি দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। বুথ নম্বর ২৪২, ২৪৪ এর ভোটাররা ভয়ে ভোট দিতে যাননি বলে অভিযোগ। ঘটনাস্থলে এসেছে কেন্দ্রীয় বাহিনী।

সকাল ১১.২৩: স্বরূপ নগর বিধানসভার একাধিক বুথে এজেন্ট দিতে পারেনি বিজেপি। দলীয় প্রার্থী বৃন্দাবন সরকার বলেন, “অনেক জায়গায় আমাদের পোলিং এজেন্টদের বসতে বাধা দিয়েছিল। কিছু কিছু জায়গায় বসিয়েছি। অনেকে তৃণমূলের ভয়ে বিজেপির এজেন্ট হতে চায়নি।”

সকাল ১১.২১: শাসকদলের দুষ্কৃতীরা একাধিক বিজেপি এজেন্টকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়েছে ৷ এমন অভিযোগ করলেন গলসির বিজেপি প্রার্থী বিকাশ বিশ্বাস ৷ এদিন সকালে ভোট দিতে এসে এই অভিযোগ তুললেন গলসি বিধানসভার বিজেপি প্রার্থী ৷ বৃহস্পতিবার সকালে কাঁকসার গৌড়তলা শিশু শিক্ষা কেন্দ্রের ৬৫ নম্বর বুথে তিনি ভোট দেন । ভোট দিয়ে বেরনোর সময় অভিযোগ করেন, “গতকাল রাতে শাসক দলের লোকেরা বেশ কয়েক জন বিজেপি পোলিং এজেন্টকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গিয়েছে ।” এছাড়াও তৃণমূলের বিরুদ্ধে এলাকায় বোমা মজুত করারও অভিযোগ করেন ৷ গলসির বিজেপি প্রার্থী জানান, “ইতিমধ্যে বিষয়টি তিনি পুলিশকে জানিয়েছেন ৷ অভিযোগ করেছেন নির্বাচন কমিশনেও ৷”

সকাল ১১.১৭: জগদ্দলে নিখোঁজ তৃণমূলের সাত বুথ এজেন্ট। এই ঘটনার পিছনে বিজেপির হাত রয়েছে বলে অভিযোগ তৃণমূলের। 

সকাল ১১.১৫: রায়গঞ্জে আক্রান্ত বুথ লেভেল অফিসার অভিজিৎ কুণ্ডু। কলেজপাড়ার ১৫৬ বুথের ঘটনা। অভিযোগ কেন্দ্রীয় বাহিনীর বিরুদ্ধে। তিনি হাসপাতালে ভরতি। মারের হাত থেকে বাঁচতে বুথ থেকে বেরিয়ে একটি বাড়িতে আশ্রয় নেন। 

সকাল ১০.৫১: হালিশহর কোনা কলোনি সংলগ্ন এলাকায় তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী মাধব দাসকে লক্ষ্য করে ছুরি চালায় বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। এমনই অভিযোগ তৃণমূল কর্মীদের। খবর পেয়ে ছুটে আসে বীজপুর থানার বিশাল পুলিশবাহিনী ও কেন্দ্রীয় বাহিনী।

সকাল ১০.৫০: বারাকপুরের লিচুবাগানে বিজেপি-তৃণমূল সংঘর্ষ। অশান্তিতে পা ভাঙল বিজেপি কর্মীর। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে লাঠিচার্জ করল কেন্দ্রীয় বাহিনী। 

সকাল ১০.৪৯: কেতুগ্ৰামের ব্রাহ্মণডিহি গ্রামে লিটন মণ্ডল নামে বিজেপি কর্মীকে মারধরের অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। 

সকাল ১০.৩৮: পূর্বস্থলী ১ নম্বর দোল গোবিন্দপুর জিএসপি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩৫ নম্বর বুথে মকপোল হওয়ার সময় হঠাৎই নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা থার্ড পোলিং অফিসার ‘জয় শ্রীরাম’ বলাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়াল। থার্ড পোলিং অফিসার সৌম্যজিৎ ভট্টাচার্য মকপোল শেষে বলেন, “জয় শ্রীরাম সবকিছু ঠিকঠাক হয়ে গিয়েছে।” এ কথা বলার পরই তৃণমূল এজেন্ট আপত্তি জানান। এর পরই অভিযুক্ত ওই থার্ড পোলিং অফিসারকে সরিয়ে দেয় নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে আধিকারিকরা। এরপরই ওই বুথ পরিদর্শনে যান বিদায়ী মন্ত্রী তথা পূর্বস্থলী দক্ষিণ বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী স্বপন দেবনাথ। স্বপনবাবু বলেন, “ওর বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা না নেওয়া হয়, তবে আমি সমস্ত বুথে গিয়ে জয় বাংলা বলব।”

সকাল ১০.২১: বুধবার রাতে বিজেপি প্রার্থী শীলভদ্র দত্তের বাড়িতে বোমাবাজির ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে আজ সকালে রহড়া থানার পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনীর যৌথ উদ্যোগে বন্দিপুর এলাকা থেকে আগ্নেয়াস্ত্র-সহ প্রসেনজিৎ সাহাকে আটক করল পুলিশ।

সকাল ১০.১০: হালিশহরের ১২ নম্বর ওয়ার্ডে উত্তেজনা। আক্রান্ত বিজেপির মণ্ডল সভাপতির পরিবার। বাড়িতে ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। জখম হয়েছেন বিজেপি নেতার দাদা ও মা। 

সকাল ১০.০৬: খড়দহে ৭০ নম্বর বুথে বিজেপি এজেন্টকে বন্দুক দেখানোর অভিযোগ তৃণমূল কর্মীর বিরুদ্ধে। ওই বিজেপি এজেন্টকে বুথ থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগও উঠেছে। পরে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। সূত্রের খবর, ধৃত নেতা খড়দহের তৃণমূল প্রার্থী ঘনিষ্ঠ।  

সকাল ১০.০২: সকাল ৯টা পর্যন্ত রাজ্যের ৪৩ আসনে ভোট পড়ল ১৭.১৯ শতাংশ। নদিয়া ১৮.০৩ শতাংশ ভোট পড়েছে। 

 

সকাল ৯.৫৮: হেমতাবাদ বিধানসভা কেন্দ্রের তিন বুথের ভোট বয়কট। কুলিক নদীর উপর সেতুর দাবিতে নদীর পাড়ে বিক্ষোভ  দেখান প্রায় তিন হাজার ভোটার। তিন বুথে ভোট কর্মীরা আছেন কিন্তু নেই কোনও ভোটার।

সকাল ৯.৫৬: কেতুগ্ৰামের ৯৩ ও ৯৪ নম্বর বুথের কাছে বিজেপির ক্যাম্প অফিস ভাঙচুর করার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। ঘটনাস্থলে বিশাল পুলিশবাহিনী। কেতুগ্ৰামে উত্তেজনা নিয়ন্ত্রণ করছে পুলিশ।

সকাল ৯.২৮: খড়দহে ৭৬ নম্বর বুথে উত্তেজনা। বিজেপি এজেন্টকে মারধরের অভিযোগ। অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল। 

সকাল ৯.২৭: সকাল ন’টা পর্যন্ত ২০ শতাংশ ভোট পড়েছে উত্তর দিনাজপুরে।

সকাল ৯.২৫: স্বরূপ নগর বিধানসভার শায়েস্তানগর ১ নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের লবঙ্গ সরকারপাড়া ২৭০ নম্বর বুথে হুমকি পোস্টার পড়ে। এলাকাবাসীরা দেখতে পান, “সেই পোস্টারে লেখা আছে, বিজেপিতে ভোট দিলে বাঁচতে পারবে না। তোদের রাস্তা ধরে জমি দখল হয়ে যাবে। ফল খারাপ হবে। রাতে ঘুমোতে পারবে না। এই পোস্টার ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়।”

সকাল ৯.২৪: গলসি বিধানসভার কাঁকসার বনফুলঝোড় গ্রামের ৮ নম্বর সংসদে বিদ্যুৎ না থাকায় ভোটারদের দেখতে অসুবিধা হচ্ছিল। জানা গিয়েছে, দশ জনের মতো ভোটার ভোট দেওয়ার পরেই ভোটগ্রহণ বন্ধ রাখা হয়। পরে বিদ্যুৎ সংযোগ ঠিক হলে প্রায় এক ঘণ্টা পর শুরু হয় ভোটগ্রহণ। কাঁকসারই অজয়পল্লির ১৫ নম্বর বুথে ইভিএম মেশিন খারাপ । ভোটারেরা সকালে লাইনে দাঁড়িয়ে ছিলেন। ইভিএম বদল করার পর শুরু হয় ভোট। পানাগড় ৭৭ নম্বর বুথে ইভিএম মেশিন খারাপ থাকায় আধঘণ্টা ভোট গ্রহণ বন্ধ থাকে এবং পরে আবার ভোট গ্রহণ শুরু হয়। পানাগড় বাজারে একটি বুথ জ্যাম করার অভিযোগে এক তৃণমূল কর্মী আটক করার খবর আসছে। কাঁকসা বালিকা বিদ্যালয়ের সামনে ভোট গ্রহণ কেন্দ্রের সামনে বিজেপির পতাকা টাঙানো রয়েছে বলে অভিযোগ তৃণমূলের। বুদবুদের শুকডালে ১৩৪ নম্বর বুথে জ্যাম করছে তৃণমূল বলে অভিযোগ বিজেপির। বুদবুদের তিলডাঙায় বিজেপির এজেন্ট বসতে দেয়নি তৃণমূল, এমনটাই অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের। তাদের এজেন্টকে মারধর করার অভিযোগ করেছে বিজেপি। ২১৩ এবং ২১৪ নম্বর বুথে এজেন্ট বসতে দেয়নি এমনটাই অভিযোগ আনছে বিজেপি-তৃণমূল উভয় পক্ষই ।

সকাল ৯.১৪: বারাকপুর বিধানসভার ঘুষিপাড়ায় তৃণমূল প্রার্থী রাজ চক্রবর্তীকে ঘিরে বিক্ষোভ। উঠল গো ব্যাক স্লোগান। বিজেপি কর্মীরা তাঁকে ঘিরে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান দেয় বলে খবর। ঘটনা প্রসঙ্গে তৃণমূলের তারকা প্রার্থীর প্রতিক্রিয়া, “আমরাই জিতছি, এ ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী। এসব প্রতিবাদ বিক্ষোভ দেখিয়ে মা মাটি মানুষকে আটকানো যাবে না।”

সকাল ৯.১১: কেতুগ্রামে বোমাবাজির অভিযোগ। ১০১ নম্বর বুথে তৃণমূল-বিজেপি সংঘর্ষ। সন্ত্রাসের পরিবেশ তৈরি করতে বোমাবাজি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ বিজেপির। 

সকাল ৯.০৩: ভাতারের ১৮৫ নম্বর বুথে ইভিএম খারাপ।

সকাল ৯.০২: আউশগ্রামের ৬৫ ও ৬৬ নম্বর বুথের সামনে তৃণমূল কর্মীদের ব্যাপক জমায়েত। ভয় দেখানোর অভিযোগ তুলেছে বিজেপি । আউশগ্রামের ৯১ নম্বর বুথে বিজেপির এজেন্ট বসতে বাধা। আউশগ্রামের ২২৭, ২২৭ এ, এবং ২২৮ এ ভোটারদের ভয় দেখানোর অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে।

সকাল ৮.৫৮: আমডাঙার বহিষগাছিতে উত্তেজনা। আইএসএফ ভোটারদের ভোটার কার্ড কেড়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। 

সকাল ৮.৫০: চোপড়ায় গুলি চলেনি বলে দাবি নির্বাচন কমিশনের। তাদের কথায়, গুলি চলার ঘটনা কেবলই রটনা। 

সকাল ৮.৪০: মঙ্গলকোট বিধানসভার ৯৪ ও ৯৫ নম্বর বুথে বিরোধীদলের এজেন্টদের বসতে দেওয়ায় বাধা দেওয়ার অভিযোগ।

সকাল ৮.৪১: আউশগ্রাম বিধানসভার প্রতাপপুরের ডাঙাপাড়া এলাকায়  পুলিশকে হুঁশিয়ারি তৃণমূল নেতা অরূপ মিদ্যার। তাঁর কথায়, “শীতলকুচি করতে যাবেন না। তিনদিন বাদে আমাদের সরকার আসছে। তখন আপনাকে দেখে নেব।” এলাকায় বিজেপি ভোটারদের ভয় দেখানোর অভিযোগ উঠেছে ওই নেতার বিরুদ্ধে। ঘটনার তীব্র নিন্দা করেছে বিজেপি।

সকাল ৮.৩৭: আউশগ্রাম বিধানসভার ২২৩, ২২৪ বুথে ছাপ্পার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। অভিযোগ করল বিজেপি। আউশগ্রামের ৫০ নম্বর বুথে বিজেপি সমর্থক পরিবারদের ভোট দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে।

সকাল ৮.৩৬: হাবড়ার বিভিন্ন বুথ পরিদর্শনে বিজেপির হেভিওয়েট প্রার্থী রাহুল সিনহা। জয়ের বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী তিনি। 

সকাল ৮.২০: উত্তর দিনাজপুরের চোপড়ায় ভোটের আগের রাতে চলল গুলি। রাতে খুনিয়ায় একটি বাড়ির সামনে গুলি চলে বলে খবর। আতঙ্কিত গ্রামবাসীরা। ভোট দিতে যাবেন কিনা, তা নিয়ে চিন্তায় তাঁরা।

সকাল ৮.১৯: তেহট্ট বিধানসভার সাধু বাজার শিশু শিক্ষা কেন্দ্রের ১৬৫ নম্বর বুথে ইভিএম খারাপ ছিল। অবশেষে আটটা পাঁচে ভোটগ্রহণ শুরু হয়।

সকাল ৮.১৪: পূর্বস্থলীর বিদ্যানগর গয়ারাম বিদ্যামন্দির স্কুলে ২৮ নম্বর বুথে ভোট দিলেন রাজ্যের মন্ত্রী তথা পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূল সভাপতি ও তৃণমূল প্রার্থী স্বপন দেবনাথ।

সকাল ৮.১৩: উত্তর দমদম বিধানসভার ২৫৬ নম্বর বুথে বিজেপি এজেন্টকে পাওয়া যাচ্ছে না। প্রাথমিক ভাবে জানা গিয়েছে, তৃণমূলে আশ্রিত দুষ্কৃতীরা তাঁকে কোথাও আটকে রেখেছে।

সকাল ৮.১০: গোবিন্দপুর পঞ্চায়েত ৫২ নম্বর বুথ তরুণীপুর এখনও পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চালু হয়নি। ইভিএম খারাপ থাকায় সমস্যা।

সকাল ৮.০০: রায়গঞ্জ শহরের উকিলপাড়ার রামকৃষ্ণ স্কুলের ১২০ নম্বর বুথে ইভিএম মেশিন বিকল হয়ে যায়, ভোটারদের দীর্ঘ লাইন পড়ে। সেখানে তৃণমূলের পুরকাউন্সিলর অনিরুদ্ধ রায়ের সঙ্গে কেন্দ্রীয়বাহিনীর বচসায় জড়িয়ে পড়েন। উত্তেজনা ছড়ায়।

সকাল ৭.৪৬: রক্তাক্ত কাঁচরাপাড়া ২০ নম্বর ওয়ার্ড। এই ওয়ার্ডের কাউন্সিলর উৎপল দাশের মাথা ফাটানোর অভিযোগ উঠেছে বিজেপির বিরুদ্ধে। আজ সকালে তাঁর মাথা ফাটানো হয়েছে। যদিও গেরুয়া শিবিরের দাবি, তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরেই এই ঘটনা ঘটেছে।

সকাল ৭.৪৩: হাবরার কৈপুকুরে রাস্তার পাশের ডোবা থেকে রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার হয়েছে। মৃতের পরিচয় এখনও জানা যায়নি। 

সকাল ৭.৩৯: ভাতার বিধানসভা কেন্দ্রের ১১৯ নম্বর বুথের ইভিএম খারী। ভোট এখনও শুরু করা যায়নি।

সকাল ৭.৩৫: সকালেই কাঁচরাপাড়ায় ভোট দিলেন  কৃষ্ণনগর উত্তরের বিজেপি প্রার্থী মুকুল রায়।

 

সকাল ৭.৩২: সাত সকালে ব্যারাকপুরের বুথ পরিদর্শনে তৃণমূল প্রার্থী রাজ চক্রবর্তী। ‘কমপক্ষে ৩০ হাজার ভোট জিতব’, আত্মবিশ্বাসী তারকা প্রার্থী। 

সকাল ৭.২৮: দুর্গানগর নেপালচন্দ্র হাই স্কুল ২৪৮ নম্বর বুথে ইভিএম কাজ করছে না। ভোট গ্রহণ শুরু হতে দেরি হচ্ছে বলে খবর।

সকাল ৭.২৩: ভোটগ্রহণ শুরু হওয়ার আধঘণ্টার মধ্যে পূর্ব বর্ধমানের মঙ্গলকোট এলাকা থেকে একাধিক অভিযোগ সামনে আসছে। তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলেছে বিজেপি। গেরুয়া শিবিরের দাবি,  মঙ্গলকোট বিধানসভা ৯৭ নম্বর বুথে তৃণমূল কর্মীরা বিজেপি এজেন্টের বাড়ি ঘিরে রেখেছে। মঙ্গলকোট বিধানসভা রসুনিয়া ১৭, ১৮ নম্বর বুথে তৃণমূল ভোট দিতে বাধা দিচ্ছে বলে দাবি বিজেপির। মঙ্গলকোট বিধানসভা গদিষ্ঠা ৫৩, ৫৪, ৫৮ নম্বর বুথেও ভোটে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। 

সকাল ৭.২২: ভোটের দিন সকালেই টুইট করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। সকলকে নিজের ভোট দিয়ে নতুন সরকার গড়ার ডাক দিলেন তিনি।

 

সকাল ৭.২০: ভাটপাড়ায় ভোটার কার্ড থাকা সত্ত্বেও ভোট দিতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ উঠছে। আধার কার্ড ছাড়া দেওয়া যাবে না ভোট। এমন দাবি করা হচ্ছে ভাটপাড়ার ৬১ ও ৩৯ নম্বর বুথে। 

সকাল ৭.১৭: স্বরূপনগর মাঝেরপাড়া বাংলানী গ্রাম পঞ্চায়েত ২০২ নম্বর বুথ ইভিএম খারাপ শুরু হয়নি ভোট দান পর্ব। এই বিধানসভা কেন্দ্রের সারাফুল নির্মাণ গ্রাম পঞ্চায়েত কাটাবাগান ১১৮ নম্বর বুথে সিসিটিভি খারাপ।

সকাল ৭.১৬: ভোটের দিনই করোনা আক্রান্ত হলেন খড়দহের তৃণমূল প্রার্থী কাজল সিনহা। 

সকাল ৭.১৪: কাটোয়া বিধানসভা কেন্দ্রের ১৩১।নম্বর বুথের ইভিএম খারাপ। ভোট দিতে পারছেন না তৃণমূল প্রার্থী রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়। অপেক্ষা করছেন।

সকাল ৭.১১: সকাল সকাল জগদ্দলের ১৪৪ নম্বর বুথে ভোট দিলেন বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিং ও তাঁর ছেলে তথা ভাটপাড়ার বিজেপি প্রার্থী পবন সিং।

 

সকাল ৭.০৪: স্বরূপনগরের গোয়ালবাথানের ৯১ নম্বর বুথে বিজেপি এজেন্টকে বসতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। 

সকাল ৭.০২: ষষ্ঠ দফা ভোটের আগের রাতে উত্তপ্ত আমডাঙাও। তৃণমূল নেতার বাড়ি লক্ষ্য করে রাতভর বোমাবাজি চলে বলে অভিযোগ উঠছে। 

সকাল ৬.৫৪: নবদ্বীপে বিজেপি কার্যালয়ে হামলা। প্রায় ১৫০ জন দুষ্কৃতী হামলা চালায় বলে অভিযোগ। জখম অন্তত ২০ বিজেপি কর্মী।

সকাল ৬.৫২: কড়া নিরাপত্তায় মুড়ে ফেলা হয়েছে চার জেলার ৪৩টি বিধানসভা এলাকা। মোতায়েন করা হয়েছে ৭৭৯ কোম্পানি বাহিনী। 

সকাল ৬.৪০: গতকাল রাতে উত্তপ্ত হয় বনগাঁ-ও। তৃণমূল কর্মীদের উপর লাঠিচার্জের অভিযোগ। জখম ২ দলীয় কর্মী। 

সকাল ৬.৩৭: ভোটের আগের রাতে ইটাহারে বোমাবাজি। 

সকাল ৬.৩০: ভোটগ্রহণ শুরুর আগেই গোলমাল। উত্তর দমদমের ৭৬ এবং ৭৭ নম্বর বুথে অশান্তি। বিজেপি এজেন্টকে বসতে বাধা দেওয়ার অভিযোগ। অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে। তবে বিজেপি প্রার্খী অর্চনা মজুমদারের অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল।

 

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement