BREAKING NEWS

১৩ কার্তিক  ১৪২৭  শুক্রবার ৩০ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘সরকারি প্রকল্পের জন্য টাকা চাইলে থানায় যান’, সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে বার্তা মমতার

Published by: Sayani Sen |    Posted: October 7, 2020 2:15 pm|    Updated: October 7, 2020 2:49 pm

An Images

:

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কাটমানি নিয়ে বারবার শাসকদলকে খোঁচা দিয়েছে বিরোধীরা। ঝাড়গ্রামের (Jhargram) প্রশাসনিক বৈঠকে দলীয় নেতাকর্মী এবং প্রশাসনিক আধিকারিকদের কড়া বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। কোনও সরকারি প্রকল্প থেকে যাতে একটিও মানুষ বঞ্চিত না হয়, সেদিকে নজর রাখার নির্দেশ দিয়েছেন রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান। এছাড়াও সমস্যায় পড়লেই সাধারণ মানুষকে পুলিশের দ্বারস্থ হওয়ার পরামর্শও দিয়েছেন তিনি।

বুধবারের প্রশাসনিক বৈঠকে পথশ্রী প্রকল্পের কথা বলতে গিয়ে তিনি জানান, “পথশ্রী প্রকল্পের কাজে বাধা দেবেন না। টেন্ডার নিয়ে কোনও গন্ডগোল যেন না হয়। সব পঞ্চায়েত, সব রাজনৈতিক নেতৃত্বকে বলছি। সরকারি প্রকল্পের সুবিধা দেওয়ার বিনিময়ে কেউ টাকা চাইলে সোজা থানায় যান। সরকার জনগণের। কোনও রাজনৈতিক দলের নয়।” ঝাড়গ্রামে উন্নয়নমূলক প্রকল্পের কথা উল্লেখ করে বিরোধীদেরও খোঁচা দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। তিনি বলেন, “ঝাড়গ্রামে অনেক কাজ হয়েছে। তা সত্ত্বেও যারা বড় বড় কথা বলছেন তারা আগে নিজেরা একটু কাজ করে দেখান।” নির্বাচনের আগে যাতে নতুন করে ঝাড়গ্রামে কোনও অশান্তির পরিবেশ তৈরি না হয় সেদিকে নজর রাখার কথাও বলেন মুখ্যমন্ত্রী।

[আরও পড়ুন: কথা রাখলেন মুখ্যমন্ত্রী, মাওবাদী হানায় মৃত তথা নিখোঁজ ৪ জনের পরিবার হাতে পেল নিয়োগপত্র]

এছাড়াও এদিন ‘মাটির সৃষ্টি’ প্রকল্পের নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হয়। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “পতিত জমিকে উর্বর করে কাজে লাগানোর কথা আগে কেউ ভাবেনি। নতুন মাটি থেকে যে কী সৃষ্টি হতে পারে তা মাটিকে যে না ভালবাসে সে বুঝতে পারবেন না। এই প্রকল্পের মাধ্যমে প্রচুর কর্মসংস্থান হবে। কমপক্ষে ৫ লক্ষ মানুষ কাজ পাবেন। এর আগে চেকড্যামও আমরা করেছিলাম।”

এছাড়াও ঝাড়গ্রামের বর্তমান করোনা পরিস্থিতি নিয়েও এদিন কিছুটা হলেও উদ্বেগ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। চেন্নাই এবং মুম্বই থেকে লরি ঝাড়গ্রামে ঢোকে, তাই আরও সাবধানতা অবলম্বনের কথা বলেন তিনি। মাস্ক পরার জন্য আরও সচেতনতামূলক প্রচার করতে হবে বলেও নির্দেশ মুখ্যমন্ত্রীর।

[আরও পড়ুন: ২ দিন পর অবশেষে বনদপ্তরের খাঁচায় বন্দি রয়্যাল বেঙ্গল টাইগার, স্বস্তিতে বৈকুন্ঠপুরের বাসিন্দারা]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement