২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

দেবাদৃতা মণ্ডল, চুঁচুড়া: থানা ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশ গুলি চালিয়েছে বলে অভিযোগ। গুলিবিদ্ধ হয়েছেন দলের এক কর্মী। বৃহস্পতিবার হুগলির গুড়াপে গিয়ে পুলিশকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিলেন বিজেপির রাজ্য সম্পাদক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর হুঁশিয়ারি, ‘এখনও সময় আছে, শুধরে যান। আপনাদের বাড়িতে ছেলে-মেয়ে আছে। আমরা ক্ষমতায় এসে যদি ধর্ষণ-আফিম-গাঁজার কেস দিই। তখন কেমন লাগবে!’

[আরও পড়ুন: ‘বিজেপির প্রস্তাব ছিল, না বলে দিয়েছি’, দাবি বহিষ্কৃত প্রাক্তন সিপিএম বিধায়কের]

সকাল থেকে বিভিন্ন জায়গায় টাওয়ার জ্বালিয়ে অবরোধ চলছিলই। বৃহস্পতিবার বেলা বাড়তেই ফের অশান্তি ছড়ায় হুগলির গুড়াপে। দলের কর্মীর উপর হামলা ও গুলি চালানোর প্রতিবাদে গুড়াপ থানায় বিক্ষোভ দেখাতে যান বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। অশান্তি আশঙ্কায় থানা চত্বরে মোতায়েন ছিল প্রচুর পুলিশ। করা হয়েছিল ব্যারিকেডও। কিন্তু, ব্যারিকেড ভেঙে থানার দিকে এগিয়ে থাকেন বিক্ষোভকারীরা।থানা লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টিও করা হয় বলে অভিযোগ। পরিস্থিতি সামাল দিতে শেষপর্যন্ত লাঠিচার্জ করে পুলিশ, ফাটানো হয় কাঁদানে গ্যাসের শেলও। ছত্রভঙ্গ হয়ে যান বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। তখনকার মতো পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। কিন্তু রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে রাজ্য বিজেপির প্রতিনিধিরা যখন গুড়াপে পৌঁছান, তখন ফের উত্তেজনা ছড়ায়। দলের রাজ্য সম্পাদক রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে গুড়াপের মহেশ্বরপুর মোড়ে ফের পথ অবরোধ করেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা। অবরোধ চলাকালীন পুলিশকেই মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দেন বিজেপি নেতা রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন গুড়াপে আক্রান্ত দলের দুই কর্মীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন রাজ্য বিজেপি প্রতিনিধিরা।

বুধবার রাতে গুড়াপের বাথানগড়িয়া এলাকায় আক্রান্ত হন এক বিজেপি কর্মী। বাড়ির কাছেই তাঁকে টাঙ্গি দিয়ে কোপায় একদল দুষ্কৃতী। ঘটনার পর রাতে যখন থানা ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিলেন দলের কর্মী-সমর্থকরা, তখন এক পুলিশকর্মী আবার বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে গুলি চালানো বলে অভিযোগ। গুলিবিদ্ধ হন এক বিজেপি সমর্থক। গেরুয়া শিবিরের অভিযোগ, কাটমানি থেকে নজর ঘোরাতে খোদ ধনেখালির বিধায়ক ও মন্ত্রী অসীমা পাত্রের নির্দেশে বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা চালাচ্ছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। মন্ত্রী অসীমা পাত্রের অবশ্য দাবি, গুড়াপের বাথানগড়িয়ায় বিজেপি কর্মীর উপর হামলার ঘটনার সঙ্গে তৃণমূলের কোনও সম্পর্ক নেই। নেহাতই গ্রাম্য বিবাদকে থেকে এই ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু গুড়াপ থানা ঘেরাওয়ের সময়ে বিজেপি কর্মীদের উপর গুলি চলল কেন? পুলিশের বক্তব্য, বিক্ষোভ চলাকালীন এক পুলিশকর্মীর হাত থেকে বন্দুক ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন বিজেপি কর্মীরা। ধস্তাধস্তির সময়ে গুলি ছিটকে বেরিয়ে আহত হয়েছেন একজন।

[আরও পড়ুন: বিজেপি কর্মীর বাড়িতে বোমাবাজি, প্রতিবাদে ভাতার থানায় বিক্ষোভ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং