৩০ আশ্বিন  ১৪২৬  শুক্রবার ১৮ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

ধীমান রায়, কাটোয়া: বর্ধমানের ভাতারে বিজেপি কর্মীর বাড়িতে বোমাবাজির প্রতিবাদে ভাতার থানা অবরোধ ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে উঠল এলাকা৷ প্রায় ঘণ্টাখানেক ধরে ভাতার থানা ঘিরে বিক্ষোভ দেখালেন বিজেপি কর্মী-সমর্থকরা৷ পরে পুলিশের আশ্বাসে ওঠে অবরোধ৷

[আরও পড়ুন: বিজেপির থানা ঘেরাও কর্মসূচিতে রণক্ষেত্র গুড়াপ, পুলিশের বিরুদ্ধে গুলি চালানোর অভিযোগ]

ঘটনার সূত্রপাত বুধবার সন্ধেবেলা৷ ভাতারের এরুয়ার গ্রামের বিজেপি কর্মী শ্যামল অধিকারী ভাতার বাজারে গিয়েছিলেন, পার্টি অফিসে বৈঠকে যোগ দিতে৷ অভিযোগ, সেসময়ই তাঁকে স্থানীয় তৃণমূল কর্মীদের কয়েকজন মিলে বাড়িতে হামলা চালানোর হুমকি দেয়৷ এমনকী শ্যামল অধিকারীর বাড়িতে গিয়েও হুমকি দেওয়া হয়৷ এরপর আজ ভোরে, প্রায় ৪টে নাগাদ তাঁর বাড়িতে হামলা চলে বলে অভিযোগ৷

শ্যামল অধিকারী অভিযোগ করেন, জনা ৪০ তৃণমূল কর্মী, সমর্থক তাঁর বাড়িতে হামলা চালায়৷ চলে বোমাবাজি, ৩ রাউন্ড গুলিও চালানো হয়৷ মাটির বাড়ির অ্যাসবেস্টসের চালে মুহূর্মুহূ বোমা পড়তে থাকে বলে অভিযোগ৷ জানলা, দরজাও ক্ষতিগ্রস্ত হয়৷ ভোরের দিকেই ভাতার থানায় গিয়ে অভিযোগ করেন বিজেপি কর্মী শ্যামল অধিকারী৷ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান ভাতার থানার পুলিশ৷ অশান্তি এড়াতে এখনও এরুয়ার গ্রামে পুলিশ মোতায়েন রয়েছে৷

[আরও পড়ুন: পুঞ্জীভূত হচ্ছে বর্ষার মেঘ, সপ্তাহান্তে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা দক্ষিণবঙ্গে]

তবে বেলা গড়াতেই ফের উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ভাতার থানা এলাকা৷ শ্যামল অধিকারীর বাড়িতে বোমাবাজিতে অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেপ্তারির দাবিতে ভাতার থানায় বিক্ষোভ দেখান শ দেড়েক বিজেপি কর্মী, সমর্থক৷ ঘণ্টা খানেকের উপর চলে তাঁদের বিক্ষোভ৷ তাঁর বাড়ি থেকে উদ্ধার কয়েকটি গুলির খোলও তুলে দেওয়া হয় পুলিশের হাতে৷ পরে পুলিশের আশ্বাসে ওঠে বিক্ষোভ৷ অভিযোগের তির ভাতার পঞ্চায়েত সমিতির ভূমি কর্মাধ্যক্ষ মানগোবিন্দ অধিকারীর দিকে৷ তবে তিনি সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেছেন, ‘আমরা কোনও হামলা চালাইনি৷ বিজেপি নিজেরাই লোকজন জড়ো করে গন্ডগোল পাকিয়েছে৷’ আরেকদিকে, ভাতারের বিজেপি পর্যবেক্ষক গোলাম জারজির পালটা অভিযোগ, ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই হামলাকারীদের গ্রেপ্তার করে যথাযথ শাস্তি দেওয়া না হলে, বড় আন্দোলনে নামা হবে৷  

ছবি: জয়ন্ত দাস৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং