BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

আমডাঙায় তৃণমূলের বিরুদ্ধে নন্দীগ্রামের ধাঁচে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি অর্জুন সিংয়ের

Published by: Tanujit Das |    Posted: June 2, 2019 6:33 pm|    Updated: June 2, 2019 6:33 pm

An Images

ব্রতদীপ ভট্টাচার্য, বারাসত: নৈহাটির পর এবার আমডাঙা৷ রবিবার আবারও বারাকপুর জুড়ে নন্দীগ্রামের মতো আন্দোলনে নামার হুঁশিয়ারি দিলেন সাংসদ অর্জুন সিং৷ রাজ্য সরকারে বিরুদ্ধে স্পষ্ট অভিযোগ করলেন, বিজেপি কর্মীদের উপর অত্যাচার করছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা৷ সরকারের মদতে বিজেপি কর্মীদের মিথ্যা মামলায় গ্রেপ্তার করছে পুলিশ৷

[ আরও পড়ুন: ধাপে ধাপে উঠবে গ্যাসের ভরতুকি’, দিলীপের বার্তায় অশনি সংকেত দেখছেন জনতা]

এদিন বারাকপুরের সাংসদ অভিযোগ করেন, ‘‘এখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একমাত্র অস্ত্র পুলিশ ও গুন্ডা৷ পুলিশের সঙ্গে গুন্ডারা যাচ্ছে এবং বিজেপি কর্মীদের মারধর করছে৷ আমডাঙা ও দত্তপুকুরের পুলিশ এই কাজ করছে৷ বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিজেপি কর্মীদের ভয় দেখানো হচ্ছে৷ বিজেপি করার জন্য তাঁদের ভয় দেখানো হচ্ছে৷’’ এরপরই অর্জুন সিং হুঁশিয়ারির সুরে বলেন, ‘‘সঠিক পদক্ষেপ না নিলে, আগামী দিনে নন্দীগ্রামের মতো আন্দোলনের জন্য তৈরি থাকুক পুলিশ৷’’ সেই লোকসভা নির্বাচনের সময় থেকেই উত্তপ্ত রয়েছে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্র৷ প্রত্যেকদিন বিভিন্ন এলাকা থেকে তৃণমূল-বিজেপি কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের খবর আসছে৷ বিজেপি কর্মীদের উপর পুলিশ ও তৃণমূলের অত্যাচারের প্রতিবাদে রবিবার আমডাঙা থানার সামনে অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচি প্রদর্শন করেন বারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং৷ পুলিশের কাছে ডেপুটেশন জমা দেন বিজেপি নেতারা৷ অবস্থান বিক্ষোভের ফলে স্তব্ধ হয়ে যায় ৩৪ নম্বর জাতীয় সড়ক৷ তৈরি হয় যানজট৷ এরপর দত্তপুকুর থানাতেও একইভাবে বিক্ষোভ দেখান বিজেপি নেতা-কর্মীরা৷ পরবর্তীকালে অন্যান্য থানাতেও একই কায়দায় বিক্ষোভ দেখানো হবে বলেও আগাম হুমকি দেন বারাকপুরের এই দোর্দণ্ডপ্রতাপ বিজেপি নেতা৷

[ আরও পড়ুন: দাম্পত্যের সুবর্ণ জয়ন্তীতে মহৎ আয়োজন, সংকট মেটাতে রক্তদান শিবির দম্পতির ]

প্রসঙ্গত, চলতি সপ্তাহে বৃহস্পতিবার নৈহাটির ধরনা কর্মসূচিতে যাওয়ার সময় মুখ্যমন্ত্রীর গাড়ি দেখে করে ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগানে দেন একদল বিজেপি কর্মী-সমর্থক৷ যা শুনে মেজাজ হারিয়ে ফেলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ১০ জনকে গ্রেপ্তারও করে পুলিশ৷ যার পর থেকে আরও উত্তপ্ত বারাকপুর৷ শনিবারও কাঁচরাপাড়ায় বিজেপি সমর্থকদের বিক্ষোভের মুখে পড়েন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক৷ তাঁর কনভয় ঘিরে ওঠে ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি। এবং একইদিনে নৈহাটি শহরে এক পদযাত্রায় অংশ নেন অর্জুন সিং। পরে থানায় এসে পুলিশ আধিকারিককে স্মারকলিপি জমা দেন তিনি। 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement