২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

রূপায়ণ গঙ্গোপাধ্যায়: মিড ডে মিলের টাকায় পড়ুয়াদের জন্য কেনা হয়েছিল ডিম৷ কিন্তু তা পাত পর্যন্ত পৌঁছয়নি৷ কোনও অজ্ঞাত কারণে তার আগেই নিখোঁজ হয়ে গিয়েছে৷ ফলে ছাত্রীদের খাদ্য তালিকায় স্থান পয়েছে ফ্যান ভান ও নুন৷ সোমবার চুঁচুড়ার বালিকা বাণী মন্দির বিদ্যালয়ে গিয়ে এই দৃশ্য দেখে চমকে উঠলেন হুগলির সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়৷ অভিযোগ করলেন, মিড ডে মিলের টাকা লুট করছে  স্থানীয় তৃণমূল নেতারা৷ শিশুদের খাবার নিয়ে স্কুলে স্কুলে দুর্নীতি চলছে৷ যদিও অভিযোগ মানতে নারাজ স্কুল পরিচালন সমিতির প্রধান তথা চুঁচুড়া পুরসভার চেয়ারম্যান গৌরীকান্ত মুখোপাধ্যায়৷ বরং, এই ঘটনায় অন্তর্ঘাতের সাফাই দিয়েছেন তিনি৷

[ আরও পড়ুন: বয়স্কদের সাহায্যের নামে টাকা হাতানোর অভিযোগ, ধৃত প্রতারণা চক্রের ৪ পাণ্ডা]

এদিন স্কুল পরিদর্শনের পর লকেট চট্টোপাধ্যায় জানান, বহুদিন ধরেই চুঁচুড়ার বালিকা বাণী মন্দির বিদ্যালয় সম্পর্কে তাঁর কাছে অভিযোগ আসছিল৷ তিনি জানতে পারেন, সরকারের দ্বারা প্রস্তাবিত খাদ্য কেনা হলেও, তা পড়ুয়ারা পাচ্ছে না৷ কয়েকদিন আগে ২৫ হাজার টাকার ডিম কেনা হলেও তা পৌঁছয়নি পড়ুয়াদের পাত পর্যন্ত৷ এমনকী, ২৫৬ বস্তা চালেরও হদিশ নেই স্কুল কর্তৃপক্ষের কাছে৷

এরপরই শুক্রবার হঠাৎ ওই স্কুলে পৌঁছে যান হুগলির সাংসদ৷ মিড ডে মিল পরিবেশনের সময় পড়ুয়াদের জন্য নির্ধারিত খাবার দেখে চমকে যান তিনি৷ দেখেন কেবলমাত্র ফ্যান ভাত ও নুন পরিবেশন করা হচ্ছে পড়ুয়াদের৷ এই দৃশ্য দেখেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন বিজেপি নেত্রী৷ স্কুলের শিক্ষিকাদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি৷ অভিযোগ করেন, দীর্ঘ কয়েক মাস ধরে এখানে মিড ডে মিল নিয়ে বড় দুর্নীতি চলছে৷ ২৫ হাজার টাকার ডিম ও ২৫৬ বস্তা চালের কোনও হদিশ দিতে পারেনি স্কুল কর্তৃপক্ষ৷ স্কুল পরিচালন কমিটির মাথারা টাকা লুট করছে৷ বিশাল বড় চুরি হচ্ছে৷ ঘটনার সঙ্গে তৃণমূলের মাথারা জড়িত রয়েছে৷ এখানেই শেষ নয়, এই ইস্যুতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেও আক্রমণ শানান লকেট চট্টোপাধ্যায়৷ বলেন, ‘‘কন্যাশ্রীর জন্য মুখ্যমন্ত্রী বিশ্বসেরার সম্মান আনছেন, এদিকে তাঁর রাজ্যের কন্যারা খেতে পাচ্ছে না৷’’ সমগ্র ঘটনার তদন্ত চেয়ে হুঁশিয়ারি দেন হুগলির সাংসদ৷ স্পষ্ট জানান, শেষ দেখে ছাড়ব৷

[ আরও পড়ুন: স্টেশনে কাঁচি নিয়ে যুবতীর উপর হামলা, চাঞ্চল্য বেলুড়ে ]

এমনকী, ঘটনার দায় স্কুল পরিচালন সমিতির প্রধান গৌরীকান্ত মুখোপাধ্যায়ের উপরেই চাপিয়েছেন অধিকাংশ শিক্ষিকা৷ যদিও, সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন গৌরীশংকর মুখোপাধ্যায়৷ উলটে, শিক্ষিকাদের উপরে দোষ চাপিয়েছেন তিনি৷ সাফাই দিয়ে জানিয়েছেন, তৃণমূলকে বদনাম করার জন্য এই ষড়যন্ত্র করা হয়েছে৷ এই ঘটনা অন্তর্ঘাতের ফল৷ বিষয়টি শিক্ষামন্ত্রীর কান পর্যন্ত পৌঁছেছে। তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং