BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

মৃত্যুর আগে মৃত ঘোষণা! উত্তাল মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 28, 2016 10:57 am|    Updated: June 28, 2016 10:57 am

An Images

নিজস্ব সংবাদদাতা, বহরমপুর: রোগীর মৃত্যুর আগেই তাঁকে মৃত ঘোষণা করা হয়েছে৷ এই অভিযোগ তুলে হাসপাতালে ভাঙচুর চালালেন রোগীর আত্মীয়রা৷ আত্মীয়দের তাণ্ডবে সোমবার কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল৷ খবর পেয়ে বহরমপুর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে এবং চিকিৎসকে মারধর ও ভাঙচুরের ঘটনায় যুক্ত থাকার অভিযোগে চারজনকে আটক করা হয়৷ তবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সকালের ঘটনা নিয়ে কোনও মন্তব্য করতে চায়নি৷

মৃতের পরিবার ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে,  সোমবার সকালে বহরমপুর থানার রাধারঘাটের বাসিন্দা মিনতি ঘোষ (৪২) হৃদরোগে আক্রান্ত হন৷ তড়িঘড়ি পরিবারের লোকেরা মিনতিদেবীকে মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে৷ অভিযোগ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক এস টি দাস রোগীকে না দেখেই মৃত বলে ঘোষণা করেন এবং বাড়িতে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন৷ চিকিৎসকের পরামর্শমতো মিনতিদেবীর আত্মীয়রা তাঁকে নিয়ে বাড়ির পথে রওনা দেন৷

মৃতের ভাই অর্ঘ্য ঘোষ জানান, “দিদিকে নিয়ে হাসপাতাল থেকে ১০০ মিটার আসতেই দেখি দিদি নড়েচড়ে উঠলেন৷ বিষয়টি নজরে আসতেই ফের দিদিকে হাসপাতালে নিয়ে যাই৷ দিদির দেহে প্রাণের অস্তিত্ব রয়েছে শুনে ওই চিকিৎসক হাসপাতালে ভর্তি করে চিকিৎসক শুরু করেন৷ চিকিৎসা শুরুর কিছুক্ষণের মধ্যেই দিদি মারা যায়৷”

মৃতার অপর এক আত্মীয় জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক এস টি ঘোষের বিরুদ্ধে চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ আনেন৷ এদিকে চিকিৎসকের গাফিলতিতে রোগীর মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়তেই মৃতার পরিবারের সদস্য ও আত্মীয়রা মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চড়াও হয়ে চিকিৎসক এস টি ঘোষকে মারধর করে বলে অভিযোগ৷ হাসপাতালের বহির্বিভাগে ভাঙচুরও চালায় তাঁরা৷ খবর পেয়ে বহরমপুর থানা থেকে বিশাল পুলিশবাহিনী এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে৷

অভিযুক্ত এস টি ঘোষ অবশ্য চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ নস্যাৎ করে বলেন, “রোগীর কোনও পালস পাওয়া যায়নি৷ সেই কারণে রোগীর মৃত্যু হয়েছিল বলে মনে হয়েছিল৷” কিন্তু নিছক ‘মনে হওয়ার’ কারণে একজনকে মৃত বলে ঘোষণা করার ঘটনায় অবাক সকলেই৷ মুর্শিদাবাদ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সুপার মানস সরকার অবশ্য এই ঘটনা নিয়ে মুখ খুলতে চাননি৷ সমস্ত বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে বলে ইঙ্গিত দেন তিনি৷ মৃতার পরিবার এবং হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কেউই এখনও পর্যন্ত কোনও অভিযোগ দায়ের করেনি৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement