০৮ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  মঙ্গলবার ২৪ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

বনধে কয়েকটি জেলায় বিক্ষিপ্ত অশান্তি, রাজ্যে সচল জনজীবন

Published by: Shammi Ara Huda |    Posted: September 10, 2018 10:14 am|    Updated: September 10, 2018 8:31 pm

Cong-Left’s Bharat Bandh a failure in West Bengal

ছবিতে বহরমপুরে স্বাভাবিক জনজীবন, সকাল থেকেই বাসে যাত্রীর ভিড়।

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে বাম-কংগ্রেসের ডাকা ভারত বনধের সমর্থনে জেলায় জেলায় তেমন কোনও প্রভাব পড়েনি। কয়েকটি জায়গায় বিক্ষিপ্ত কিছু ঘটনা ছাড়া এখনও পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। দুর্গাপুরের ওয়ারিয়া স্টেশনে ট্রেন আটকানোর চেষ্টা করে কিছু সিপিএম সমর্থক। এর জেরে কিছু সময়ের জন্য আটকে পড়ে অগ্নিবিণা এক্সপ্রেস। তবে অশান্তির আঁচ পেয়ে আগে থেকেই মোতায়েন পুলিশকর্মীদের তৎপরতায় তা সফল হয়নি। লাঠি হাতে বনধ সমর্থকদের দিকে তেড়ে গেলে তারাও আক্রমণের চেষ্টা করে। সামান্য ধস্তাধস্তি হলেও পুলিশ বনধ সমর্থকদের হটিয়ে দেয়। সেখানে ফের ট্রেন চলাচল শুরু হয়েছে।

বনধের প্রভাব পড়েছে শিয়ালদা দক্ষিণ শাখার দক্ষিণ বারাসত স্টেশনে। অভিযোগ, বনধ সমর্থকরা রেললাইনের ওভারহেড তারে কলাপাতা ফেলে দেয়। এর জেরে রেল চলাচল বিঘ্নিত হচ্ছে। ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে পুলিশবাহিনী। বনধ সমর্থকদের হটিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা হচ্ছে। শেষ পর্যন্ত পাওয়া খবর অনুযায়ী শিয়ালদা দক্ষিণ শাখার লক্ষ্মীকান্তপুর লাইনে রেল চলাচল ব্যাহত হয়েছে। মাঝপথে ট্রেন আটকে পড়ায় বিপাকে পড়েছেন যাত্রীরা। বনধের সমর্থনে সিপিএম সমর্থকরা হুগলির শ্রীরামপুর রেল স্টেশনেও ভিড় করে। তবে পুলিশি তৎপরতায় রেল চলাচল বিঘ্নিত হয়নি। সময়মতো খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে বনধ সমর্থকদের হটিয়ে দেয় পুলিশ। এদিকে হাওড়ার দাসনগরের পথে নেমে বাস আটকানোর চেষ্টা করেছে সিপিএম সমর্থকরা। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে কর্তব্যরত পুলিশকর্মীদের সঙ্গে বনধ সমর্থকদের একটা হাতহাতিও হয়। গন্ডগোলের চেষ্টার অভিযোগে চার সিপিএম সমর্থককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। পূর্ব মেদিনীপুরে বাস আটকানোর চেষ্টা করে বনধ সমর্থকরা। মধ্যমগ্রাম চৌমাথায় বনধের সমর্থনে পথে নেমেছে সিপিএম সমর্থকরা। মুর্শিদাবাদের বহরমপুরে বনধের তেমন কোনও প্রভাব পড়েনি। যানবাহন সচল থাকায় নিত্যযাত্রীরা হাঁফ ছেড়ে বেঁচেছেন। তবে বনধের সমর্থনে সকাল সকাল  পথে নেমে পড়েছেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরি। পেট্রোপণ্যের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে ডাকা এই বনধ সফল করতে জন্য রাজ্যবাসীকে আহ্বান জানিয়েছেন।  এদিকে সচল রয়েছে ব্যারাকপুর শিল্পাঞ্চল। উলুবেড়িয়া ও হুগলির বিভিন্ন কারখানাতেও কাজকর্ম স্বাভাবিক। সচল দুর্গাপুর শিল্পাঞ্চলও। দুর্গাপুরে বাস কম থাকলেও ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। তবে  ক্যান্টনমেন্টে রেল অবরোধের জেরে  শিয়ালদা-বনগাঁ শাখার ট্রেন চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। একই অবস্থা শিয়ালদা-হাসনাবাদ শাখাতেও। ভ্যাবলায় বনধ সমর্থকদের অবরোধের জেরে থমকে ট্রেন। দুর্ভোগ চরমে। 

[গড়িয়ার নিখোঁজ গবেষকের দেহ উদ্ধার বাগনানে, পকেটে মিলল চিরকূট]

বাম কংগ্রেসের ডাকা ভারত বনধে উত্তরের ছবিটা একটু দেখা যাক। বনধের সমর্থনে কোচবিহার শহরে মিছিলে হাঁটল তৃণমূল সমর্থিত শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্যরা। তবে সরকারি বাস চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। বনধের প্রভাব পড়েনি উত্তর দিনাজপুরেও। আর পাঁচটি কাজের দিনের মতোই স্বাভাবিক রয়েছে রায়গঞ্জ শহর। উল্লেখ্য, বনধে অশান্তির হুমকি দিয়ে কালই রাজ্যের ঘাড়ে দায় চাপানোর চেষ্টা করেছিলেন সিপিএম নেতা সূর্যকান্ত মিশ্র। বলা বাহুল্য, কেন্দ্রের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে কংগ্রেসের ডাকা বনধে সিপিএম পূর্ণ সমর্থন জানালেও শাসকদল তৃণমূল কিন্তু পুরোপুরি সেপথে হাঁটেনি। বনধে নৈতিক সমর্থন জানিয়েও রাজ্যকে সচল রাখতে তৎপর সরকার। তাই সকাল থেকেই পথে নেমেছে পুলিশ প্রশাসন। নিত্যযাত্রীদের অসুবিধার কথা মাথায় রেখে অতিরিক্ত বাসও চলছে পথে। অশান্তি এড়াতে পথে নেমেছে অতিরিক্ত দু’হাজার ফোর্স। মোটের উপর জেলায় জেলায় পরিস্থিতি স্বাভাবিকই রয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, কলকাতা থেকে মোট ৯৯ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর মধ্যে ১২ জন এসইউসিআই সমর্থক এবং ৭৭ জন কংগ্রেস সমর্থক। কোথাও কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি বলেও জানিয়েছে পুলিশ। 

 

[‘লোকসভায় দলকে ৪২টি আসনই পাইয়ে দিও!’ তারা মায়ের কাছে প্রার্থনা অনুব্রতর]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে