২৬ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

অধ্যাপকের শাস্তি চেয়ে পোস্টার, ফের শোরগোল বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে

Published by: Subhamay Mandal |    Posted: July 19, 2019 8:58 am|    Updated: July 19, 2019 8:58 am

An Images

সৌরভ মাজি, বর্ধমান: ফের পোস্টার বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসে। কোথাও অধ্যাপকের বিরুদ্ধে, আবার কোথাও পড়ল কাটমানি ফেরতের দাবিতে ছাত্র নেতার বিরুদ্ধে। ঘটনাচক্রে এই দুইজনের বিবাদ সাম্প্রতিককালে প্রকাশ্যে এসেছিল।

বৃহস্পতিবার বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের গোলাপবাগ ক্যাম্পাসের বিভিন্ন জায়গায় অধ্যাপক শুভপ্রসাদ নন্দী মজুমদারের বিরুদ্ধে পোস্টার পড়ে। পরে সেই সব পোস্টার সোশ্যাল মিডিয়াতেও ভাইরাল হয়েছে। সেই সব পোস্টারের কোথাও সাদা কাগজে লাল কালিতে লেখা হয়েছে, ইচ্ছাকৃতভাবে ভুল তথ্য দিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের বিভ্রান্তকারী শুভপ্রসাদ নন্দী মজুমদারের অবিলম্বে শাস্তি চাই। আবার কোথাও লেখা হয়েছে, ফেলোশিপ-এর দায়িত্ব কেড়ে নেওয়ার আগে, ফেলোশিপ সংক্রান্ত বিষয়ে স্কলারদের ভোগানো হত কেন শুভপ্রসাদ নন্দীমজুমদার জবাব দাও। এমনকী বিশ্ববিদ্যালয়ে শুভপ্রসাদবাবুর ঘরের সামনের দরজার পাশেও পোস্টার সাঁটানো হয়েছে। যা নিয়ে শোরগোল পড়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ে। সোসাল মিডিয়াতেও।

সেই সব পোস্টারের ছবি তুলে অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে অধ্যাপকের পাশে দাঁড়িয়েছেন। দেবমাল্য ঘোষ নামে বিশ্ববিদ্যালয়েরই এক আধিকারিক ফেসবুক পেজে ছবি পোস্ট করে লিখেছেন, “শুভ তুই তো সেলিব্রিটি হয়ে গেলি। আর নতুন কী হবে? তবে যারা লিখেছে তারা নিজেদের পর্দার আড়ালে মুখ লুকিয়ে জবাব চাইছে, এটা বহোত না ইনসাফি। যাক কাটমানির অভিযোগ তো নেই।” অনেকেই সে পোস্টে কমেন্ট করেছেন। শুভপ্রসাদবাবুও কমেন্ট করেছেন ওই পোস্টে। তিনি লিখেছেন, “ছাত্র ভর্তিতে এবার কাটমানিটা সুবিধা করা যাচ্ছে না তাই।”

[আরও পড়ুন: প্রধানমন্ত্রী আবাস যোজনার টাকা ‘আত্মসাৎ’, কাঠগড়ায় তৃণমূল নেতা]

ঘটনাচক্রে এদিন ফের তৃণমূল ছাত্র পরিষদ নেতা আমিনুল ইসলাম ওরফে রামিজের বিরুদ্ধে পোস্টার পড়েছে কাটমানি ফেরতের দাবিতে। কয়েকমাস আগে ফেলোশিপে ভর্তি নিয়ে রামিজের সঙ্গে বিবাদ হয়েছিল শুভপ্রসাদবাবুর। কয়েকদিন আগেও রামিজের বিরুদ্ধে কাটমানি ফেরতের দাবিতে পোস্টার পড়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ও ছাত্রাবাসের সামনে। পোস্টার প্রসঙ্গে রামিজের দাবি, অপপ্রচার করতে একশ্রেণীর লোকজন ওই কাজ করছে। তৃণমূল ছাত্র পরিষদের তরফে উপাচার্যর কাছে আগেই পোস্টার সাঁটানোর ঘটনার তদন্তের দাবি করা হয়েছিল।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement