BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  শনিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ফ্রান্সিসকে জেরা করে ‘বড় মাথা’র হদিশ পেল পুলিশ

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: January 14, 2017 6:11 pm|    Updated: January 14, 2017 6:11 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ব্যুরো: ৮ জানুয়ারি খড়গপুরে এক ভাড়া বাড়িতে শ্রীনু নায়ডুকে হত্যার ছক চূড়ান্ত করেছিল খুনিরা৷ সেই বৈঠকে ছিল ঝাড়খণ্ডের চার সুপারি কিলারও৷ ছিল শ্রীনু ঘনিষ্ঠ শংকর রাও ও ঘরের ভাড়াটিয়া ফ্রান্সিস৷ পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সুদের কারবারি পরিচয় দিয়ে সাত-আটমাস আগে রেল শহর খড়গপুরে ঘর ভাড়া নেয় ফ্রান্সিস৷ সুদের কারবার থাকলেও ফ্রান্সিসের আসল কাজ ছিল ‘অপারেশন শ্রীনু’৷ রাজ্যের বাইরের এক বড় মাথার নির্দেশেই শ্রীনুকে খতম করার পরিকল্পনা করা হয়েছিল বলে জানতে পেরেছে পুলিশ৷ সেই জন্যই তার রেল শহরে পা রাখা বলে পুলিশি জেরায় স্বীকার করে নিয়েছে ফ্রান্সিস৷ পুলিশি জেরায় শ্রীনুর এই তথ্য হাতে আসার পরই নড়েচড়ে বসেছেন পশ্চিম মেদিনীপুর পুলিশের শীর্ষকর্তারা৷ অন্যদিকে আদালতের নির্দেশে পুলিশ হেফাজতে থাকা শ্রীনুর অন্যতম সহযোগী শংকর রাওকে জেরা করে পুলিশ জানতে পেরেছে এই খুনের প্রথম প্লট তৈরি হয়েছিল দক্ষিণ ভারতের ভাইজাগে৷ সেই বৈঠকে ফ্রান্সিস, ছাড়াও ছিল এই খুনের মূল চক্রান্তকারী সেই বড় মাথাও৷ এমনটাই জানা গিয়েছে পশ্চিম মেদিনীপুর পুলিশের৷

(হাওড়ার শালিমারে বসে শ্রীনু খুনের ছক ‘শিষ্য’র)

শ্রীনু নায়ডু খুনের ঘটনায় এখনও অবধি পুলিশের জালে ধরা পড়ল মোট আটজন৷ এদিন ভোরে ফ্রান্সিসকে গ্রেফতার করে পুলিশ৷ এখনও চারজন পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে জানা গিয়েছে৷ তাদের সন্ধানেও তল্লাশি শুরু হয়েছে৷ ভিনরাজ্যেও পাড়ি দিয়েছে পুলিশের টিম৷ বাকিদের তল্লাশির পাশাপাশি এই খুনের পিছনে জড়িত সেই বড় মাথার বিরুদ্ধেও তথ্যপ্রমাণ জোগাড়ের কাজ করছে পুলিশ৷ বড় মাথার গতিবিধিও প্রতিদিন নজরে রাখা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে৷ সেই তদন্ত ক্রমেই এগোচ্ছে মালঞ্চের দিকেই৷ তার অন্যতম কারণ খুনের ধরন৷ যেভাবে দিনের বেলায় ফিল্মি কায়দায় শ্রীনুকে খুন করা হয়েছে, সেরকম নজির আগেও দেখেছে রেল শহর খড়গপুর৷ কী সেই ছক? পুলিশের সূত্র বলছে, দিনের বেলায় সশস্ত্র হামলা চালানো৷ টার্গেটকে প্রতিরোধ বা পালানোর কোনও সুযোগ না দেওয়া৷ কোনওভাবে যেন টার্গেট বেঁচে না যায়, সেটা নিশ্চিত করতে নিখুঁত নিশানায় গুলি চালানো৷ সেই মাথার খোঁজ করতে গিয়ে এখন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা পুলিশ পুরনো খুনের দস্তাবেজ ঘাঁটতে শুরু করেছে৷ তাতে দেখা গিয়েছে, আগের কয়েকটি খুনের স্টাইল প্রায় হুবহু মিলে যাচ্ছে শ্রীনু খুনের সঙ্গে৷

(ঘনিষ্ঠরাই সুপারি কিলার দিয়ে খুন করিয়েছে শ্রীনুকে!)

১৯৯৯ সালের ২৭ জুন খুন হন প্রাক্তন সিপিআই সাংসদ নারায়ণ চৌবের ছোট ছেলে মানস চৌবে৷ বেলা ১১টা নাগাদ ফটকবাজারে পানের দোকানে ভরা বাজারের মধ্যে গুলি করে তাকে খুন করা হয়৷ তার দু’বছর পর ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর খুন হন মানসবাবুর দাদা গৌতম চৌবে৷ রাত সাড়ে আটটা নাগাদ খড়গপুরের মালঞ্চ এলাকায় ডেকে পাঠানো হয় তাঁকে৷ সেখানেই ২২টি গুলি চালিয়ে ঝাঁঝরা করে দেওয়া হয়৷ এক্ষেত্রেও জনবহুল এলাকায় খুন করা হয়৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement