BREAKING NEWS

১৪ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ১ অক্টোবর ২০২০ 

Advertisement

‘চোপড়া কাণ্ডে দোষীদের শাস্তি হবেই’, নিহত কিশোরীর বাবাকে আশ্বাস গৌতম দেবের

Published by: Sayani Sen |    Posted: July 20, 2020 4:39 pm|    Updated: July 20, 2020 4:45 pm

An Images

শংকরকুমার রায়, রায়গঞ্জ: চোপড়ায় নিহত কিশোরীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করলেন রাজ্যের নেতামন্ত্রীরা। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) নির্দেশে সোমবার ওই কিশোরীর বাবা, জেঠু-সহ পরিবারের অন্যান্যদের সঙ্গে দেখা করেন গৌতম দেব, মৌসম বেনজির নূর, গোলাম রব্বানি এবং  কানাইয়ালাল আগরওয়াল। দোষীদের রেয়াত করা হবে না বলেই জানান গৌতম দেব।

রবিবার ভোরে বাড়ির পাশেই শৌচালয়ে যায় চোপড়াগজের বিজেপি বুথ সভাপতির বোন। অভিযোগ, ফেরার পথে বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতী চলতি বছরের মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীকে অপহরণ করে। বাড়ি থেকে কিছুটা দূরে সোনারপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের চোপড়াগজের কাছে একটি ফাঁকা জায়গায় নিয়ে যাওয়া হয় কিশোরীকে। সেখানেই তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ। এরপর বিষ খাইয়ে খুনের চেষ্টাও করা হয় বলে অভিযোগ। ওই ফাঁকা জায়গায় অসুস্থ কিশোরীকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায় দুষ্কৃতীরা। ইতিমধ্যেই ছাত্রীর খোঁজখবর করা শুরু হয়। কোথায় গেল সে, তা জানতে এলাকার বিভিন্ন প্রান্তে হানা দেন স্থানীয়রা। বেশ কিছুক্ষণ পর ওই ফাঁকা জায়গা থেকে অচৈতন্য অবস্থায় কিশোরীকে উদ্ধার করা হয়। প্রথমে তাকে চোপড়ার দলুয়া ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ইসলামপুর মহকুমা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। সেখানেই মৃত্যু হয় তার। 

[আরও পড়ুন: হাসপাতালে যাওয়াই সার, ‘রেফার’ রোগে বিনা চিকিৎসায় অ্যাম্বুল্যান্সেই মৃত্যু করোনা রোগীর]

অপহরণ করে ধর্ষণের পর ওই কিশোরীকে খুন করা হয়েছে বলেই অভিযোগ করে নিহতের পরিবার। ঘটনায় তৃণমূল নেতাকর্মীরা জড়িত রয়েছে বলেও অভিযোগ করেন তাঁরা। তারই প্রতিবাদে রবিবার প্রায় রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় চোপড়া। সেই রেশ ছিল সোমবারও। এদিন কিশোরীর ময়নাতদন্ত রিপোর্ট সামনে আসে। যদিও পুলিশের তরফে দাবি করা হয়েছে ধর্ষণ নয়। বিষক্রিয়াতেও মৃত্যু হয়েছে ওই স্কুলছাত্রীর। তবে ময়নাতদন্ত রিপোর্ট মানতে নারাজ তাঁর পরিজনেরা। এরপরই মিছিল করে দেহ সৎকার করতে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই মিছিলে ছিলেন নিশীথ প্রামাণিক-সহ রাজ্য বিজেপির একাধিক নেতৃত্ব। যদিও মিছিলে বাধা দেয় পুলিশ। তা নিয়ে বিক্ষোভও দেখায় গেরুয়া শিবির। 

দেহ সৎকার করে বাড়িতে ফিরে আসার পরই নিহতের বাবার সঙ্গে দেখা করে তৃণমূল নেতৃত্ব। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে মন্ত্রী গৌতম দেব, গোলাম রব্বানি, মৌসম বেনজির নূর এবং জেলা তৃণমূল সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল কিশোরীর বাড়িতে যান। গৌতম দেব বলেন, “অযথা এই ঘটনায় রাজনীতির রং খুঁজবেন না। এই ঘটনায় যারা জড়িত তাদের কেয়াত করা হবে না।”  এছাড়া শোকস্তব্ধ পরিবারকে সমবেদনাও জানান তিনি। 

[আরও পড়ুন: ডায়মন্ড হারবারে বাঁধের পাশের রাস্তায় ফাটল, বিঘ্নিত বকখালি রুটে যান চলাচল]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement