BREAKING NEWS

৯ আষাঢ়  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

জানেন, ঘূর্ণিঝড় ‘যশ’-এর নামকরণ করেছে কোন দেশ? এর অর্থই বা কী?

Published by: Abhisek Rakshit |    Posted: May 21, 2021 7:57 pm|    Updated: May 21, 2021 8:10 pm

Cyclone 'Yaas' Likely to Hit Coasts of Bengal, Odisha on May 26; Know Origin, Meaning of Name | Sangbad Pratidin

ছবি: প্রতীকী

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ঘূর্ণিঝড় তওকতের ধাক্কায় বিপর্যস্ত পশ্চিম ভারত। কিন্তু এই বিপর্যয়ের এক সপ্তাহের মধ্যেই এবার আরও একটি ঘূর্ণিঝড় ধেয়ে আসতে চলেছে। এই ঘূর্ণিঝড়ের নাম ‘যশ’। গতবছর আমফানের পর এবার যশের আগমনের খবরে ইতিমধ্যে ভয়ে আতংকগ্রস্ত ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দারা। আবহাওয়া অফিস সূত্রে খবর, উত্তর আন্দামান সাগরে যে নিম্নচাপটি রয়েছে, সেটিই আগামী ২২ মে ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নেবে। তারপরই তা স্থলভাগের দিকে ধীরে ধীরে সরতে থাকবে। শেষে ২৬ মে সকালেই ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গ উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘যশ’ (Yaas)। এই ঘূর্ণিঝড় প্রতিরোধে ইতিমধ্যে একাধিক পদক্ষেপও করেছে প্রশাসন।

কিন্তু কেন এমন নাম ঘূর্ণিঝড়টির? কী এর নামের মানে? আসলে এবারের ঘূর্ণিঝড়ের নামটি রেখেছে ওমান। এই যশ বা ইয়াস শব্দটির মানে হল হতাশা। ভারত, ইরান, মালদ্বীপ, বাংলাদেশ, মায়ানমার, ওমান, পাকিস্তান, কাতার, সৌদি আরব, শ্রীলঙ্কা, থাইল্যান্ড, সংযুক্ত আরব আমিরশাহি, ইয়েমেন- এই ১৩টি দেশ নিয়ে তৈরি কমিটিই ঠিক করেছে নামটি।

[আরও পড়ুন: অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে টানাটানি, আসানসোলে হেনস্থার শিকার রেড ভলান্টিয়ার্স!]

আবহবিদদের মতে, সাধারণ মানুষের কাছে ঝড় সম্পর্কে তথ্য পৌঁছে দিতে তার নাম থাকাটা দরকারি। নইলে একই সময় একই সমুদ্রে একাধিক ঝড় থাকলে চিহ্নিত করতে সমস্যা হয়। ঝড় চলে গেলেও একই সমস্যায় পড়েন আবহবিদরা। আন্তর্জাতিক নিয়ম অনুসারে যে মহাসাগরে ঘূর্ণিঝড় তৈরি হয়, তার অববাহিকায় থাকা দেশগুলি নামকরণ করে। চলতি শতকের শুরুর দিকে এই পদ্ধতি চালু হয়। পৃথিবীতে মোট ১১টি সংস্থা নাম ঠিক করে। যদিও কয়েক দশক আগে এসব নিয়ম ছিল না। তখন নানা ঘটনা থেকে ঝড়ের নাম ঠিক হত। কোনও ঝড়ে কোনও জাহাজ ডুবে গেলে সেই জাহাজের নামে হত ঝড়ের নাম।

২০০০ সালে ঝড়ের নামকরণের জন্য নিয়ম বানানো হয়। তাতে ওয়ার্ল্ড মেটেরোলজিক্যাল অর্গানাইজেশন ও ইউনাইডেট নেশনস ইকোনমিক অ্যান্ড সোশ্যাল কমিশন ফর এশিয়ার সদস্য দেশগুলি ঘূর্ণিঝড়ের নামকরণ শুরু করে। এতে থাকা ওই ১৩টি দেশ ১৩টি করে নাম দেয়। অর্থাৎ সবমিলিয়ে ১৬৯টি নাম জমা পড়ে। সেই তালিকা থেকেই ফণী, হুদহুদ, আমফান, নিঃসর্গ, তাওকত প্রভৃতি নামগুলি এসেছে। আর তাওকতের পরের নামটিই হল এই ‘যশ’।

[আরও পড়ুন: রবিনসন স্ট্রিটের পুনরাবৃত্তি হাওড়ায়, স্বামী ও বোনের পচাগলা দেহ আগলে মহিলা]

তবে এই যশের পর আরও যে যে ঘূর্ণিঝড়ের নাম ঠিক করা হয়েছে সেগুলি হল – গুলাব (পাকিস্তান), সাহিন (কাতার), জাওয়াদ (সৌদি আরব), অশনি (শ্রীলঙ্কা), সীতরাং (থাইল্যান্ড), মানদৌস (সংযুক্ত আরব আমিরশাহি) এবং মোচা (ইয়েমেন)। এদিকে, সাইক্লোন যশের মোকাবিলা করতে ইতিমধ্যে একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে ওড়িশা-পশ্চিমবঙ্গ, দুই রাজ্যের সরকারই। মৎস্যজীবীদের ইতিমধ্যে সমুদ্র থেকে ফেরত আসতে বলা হয়েছে। উপকূলবর্তী এলাকাগুলি থেকে মানুষজনকে সরানোর প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। তৈরি থাকতে বলা হয়েছে বিপর্যয় মোকাবিলাকারী দলকেও। এছাড়া বাতিল করা হয়েছে পুরকর্মীদের ছুটিও। পাশাপাশি প্রশাসনের তরফ থেকে আরও বেশ কিছু নির্দেশও দেওয়া হয়েছে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement