BREAKING NEWS

২৭ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ১২ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

কাটোয়া হাসপাতালে অবাধ যৌনতা! ভিডিও ভাইরাল হতেই আত্মহত্যার চেষ্টা ডেপুটি সুপারের

Published by: Sayani Sen |    Posted: June 30, 2020 12:35 pm|    Updated: June 30, 2020 1:31 pm

An Images

ধীমান রায়, কাটোয়া: কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালের (Katwa Sub Divisional Hospital) ভিতরে অবাধে চলছে যৌনতা! আর তার সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে রয়েছেন খোদ হাসপাতালের ডেপুটি সুপার অনন্য ধর। কাজ দেওয়ার নাম করে তিনি হাসপাতালে মধুচক্র চালান বলেই অভিযোগ। তাঁর ‘কুকীর্তি’র একটি ভিডিও সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরালও হয়ে যায়। আর তারপরই ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন তিনি। বর্তমানে কাটোয়া হাসপাতালেই চিকিৎসা চলছে তাঁর। 

মধুচক্রের দুনিয়ায় বা অবৈধ সম্পর্কের কানাগলিতে এধরণের একটি দৃশ্য তেমন কিছুই নয়। স্মার্টফোনের দৌলতে যৌনতার এমন ভিডিও ফুটেজ হামেশাই নেটদুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। কিন্তু পূর্ব বর্ধমান জেলার কাটোয়া এলাকার বাসিন্দা এক মহিলা ফেসবুক গ্রুপে ৫৩ সেকেন্ডের যে ভিডিও সোমবার গভীর রাতে পোষ্ট করা হয়েছে, তা নিয়ে চলছে জোর শোরগোল। ওই ভিডিওটিতে দেখা গিয়েছে, হাসপাতালের মধ্যেই একটি ঘর। দরজা খোলা। ঘরের মধ্যে বসে এক মহিলা। তার পাশে দাঁড়িয়ে এক পঞ্চাশোর্ধ্ব পুরুষ। পুরুষটি ধীরে ধীরে এগিয়ে এলেন। মাথা হেঁট করে বসেছিলেন মহিলা। পুরুষটি মহিলার শাড়ি সরিয়ে নিতম্বের উপর একটা চুম্বন করলেন। মহিলা বাধা দেননি। তার অভিব্যক্তি বলে দেয় যেন কোনও অসহায়তার শিকার তিনি। পুরুষটি অবশ্য এইটুকুতেই থেমে যান। তারপর মহিলা উঠে পড়ে ঘরের বাইরে যাওয়ার জন্য এগিয়ে যান। পরের ঘটনা জানা নেই। কারণ ৫৩ সেকেন্ডের ভিডিও ফুটেজের এখানেই সমাপ্তি।

দেখুন ভিডিও:

[আরও পড়ুন: ১০ দিন পর ধসে নিখোঁজ মহিলার দেহ উদ্ধার, ইসিএলের বিরুদ্ধে ক্ষোভে ফুঁসছে অন্ডাল]

ভিডিওয় দেখতে পাওয়া ওই কামাতুর পঞ্চাশোর্ধ্ব পুরুষটি হলেন কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালের ডেপুটি সুপার অনন্য ধর। যদিও ভিডিওতে স্পষ্টতই দেখা যাচ্ছে অনন্যবাবুর পরনে প্যান্ট শার্টের সঙ্গে রয়েছে হাফ শোয়েটার। তাই ভিডিও ফুটেজটি যে পুরনো তা বলার অবকাশ রাখে না। যদিও পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ভাইরাল এই ভিডিওর সত্যতা যাচাই করেনি সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল।

এ বিষয়ে রতন শাসমল ডেপুটি সুপারের আত্মহত্যার কথা স্বীকার করে নেন। তিনি জানান ডেপুটি সুপারের শারীরিক অবস্থা বর্তমানে স্থিতিশীল। বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “ভিডিও সত্য হলে ডেপুটি সুপারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। মিথ্যা হলে যে বা যারা ভিডিওটি ছড়িয়েছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” 

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement