৭ আশ্বিন  ১৪২৭  শুক্রবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

প্রচারে বেরিয়ে ফের আক্রান্ত ফুয়াদ হালিম, সিপিএম নেতাকে মারধরে কাঠগড়ায় তৃণমূল

Published by: Tanujit Das |    Posted: April 27, 2019 1:10 pm|    Updated: April 27, 2019 1:10 pm

An Images

সুরজিৎ দেব, ডায়মন্ড হারবার: ফের হামলার মুখে পড়লেন ডায়মন্ড হারবার লোকসভা কেন্দ্রের সিপিএম প্রার্থী ফুয়াদ হালিম৷ শনিবার সকালে ডায়মন্ড হারবার থানার অন্তর্গত গুরুদাস নগরের বদরতলা এলাকায় নির্বাচনী প্রচারে গিয়ে আক্রান্ত হলেন তিনি৷ অভিযোগের তির তৃণমূলের দিকে৷ যদিও সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে স্থানীয় তৃণমূল নেতৃত্ব৷ বরং সিপিএম সমর্থকদের বিরুদ্ধে মারধর ও মহিলাদের শ্লীলতাহানি করার অভিযোগে সরব হয়েছে শাসকদল৷

[আরও পড়ুন: প্রচারে ভোজপুরী গানে কোমর দুলিয়ে মঞ্চ মাতালেন মুনমুন ]

জানা গিয়েছে, এদিন সকালে বদরতলা এলাকায় প্রচারে যায় দুই দলই৷ একদিকে দলীয় কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে প্রচার করেন সিপিএম প্রার্থী ফুয়াদ হালিম৷ অন্যদিকে তৃণমূল প্রার্থী তথা ওই কেন্দ্রের বিদায়ী সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমর্থনে প্রচার করেন শাসকদলের কর্মীরা৷ স্থানীয় সূত্রে খবর, প্রচার চলাকালীন হঠাৎই মুখোমুখি পড়ে যান দুই দলের সমর্থকরা৷ তখনই তাঁদের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়৷ সেই ঝামেলার মধ্যে পড়ে আক্রান্ত হন সিপিএম প্রার্থী ফুয়াদ হালিম৷ সিপিএমের ডায়মন্ড হারবারের নেতা সমর নাইয়া জানান, ‘‘আমাদের আটকে রেখে মারধর করেছে তৃণমূলের সমর্থকরা৷’’

[আরও পড়ুন: তৃণমূলের জামানত বাজেয়াপ্ত হবে, কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে হুঙ্কার অধীরের ]

যদিও সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল৷ ডায়মন্ড হারবার তৃণমূলের এক নম্বর ব্লকের সভাপতি উমাপ্রসাদ পুরকাইত জানান, ‘‘পুরোটাই সিপিএমের সাজানো ঘটনা৷ সিপিএমের মইদুল ও ফিরাজের নেতৃত্বে আমাদের যুব নেতা গৌতম অধিকারীকে মারধর করা হয়৷ মহিলাদের শ্লীলতাহানি করেছে সিপিএমে সমর্থকরা৷’’ একই সঙ্গে দুই রাজনৈতিক দলকে কীভাবে প্রচারের অনুমতি দিল প্রশাসন, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে৷ পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, বৈধ অনুমতি নিয়েই সকালে ওই এলাকার প্রচার চালায় তৃণমূল৷ কিন্তু সিপিএমের ওই সময় প্রচারের অনুমতি ছিল না৷ তাঁদের বিকালে প্রচারের অনুমতি দেওয়া হয়৷ যদিও সেই অনুমতি না মেনেই সকালে প্রচার চালায় সিপিএম৷

জানা গিয়েছে, ডায়মন্ড হারবার জেলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আহত ওই তৃণমূল সমর্থক৷ ঘটনায় মোট আক্রান্ত হয়েছেন শাসকদলের পনেরো জন সমর্থক৷ এলাকায় এখনও বজায় রয়েছে উত্তেজনা৷ বিশাল পুলিশ বাহিনী পৌঁছে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করছে৷ উল্লেখ্য, গত ৯ এপ্রিল একই ভাবে হামলার মুখে পড়েছিলেন ডায়মন্ড হারবারের কেন্দ্রের সিপিএম প্রার্থী ফুয়াদ হালিম৷ ফলতা থানার স্রোতের পোলের এলাকায় আক্রান্ত হন সিপিএম প্রার্থী-সহ বেশ কয়েকজন বামকর্মী। সিপিএমের অভিযোগ ছিল, একাধিক থানার আইসিরা তৃণমূলের হয়ে কাজ করেছে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement