BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

প্রাক্তনীর দানে ৩৫০ কোটি টাকার মাল্টি স্পেশালিটি হাসপাতাল ও মেডিক্যাল কলেজ

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: May 15, 2016 12:25 pm|    Updated: May 15, 2016 12:25 pm

An Images

গঙ্গা পাড়ের শহর থেকে মেধার সিড়ি চেপে জাঁকিয়ে বসেছিলেন ওবামার দেশে৷ কিন্তু মাটির টান তাঁকে ফিরিয়ে নিয়ে এসেছে ধানসিড়িটির তীরেই৷ যে প্রতিষ্ঠানের দৌলতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছেন,  তাকেই ফিরিয়ে দিতে চান সারা জীবনের সঞ্চয়৷ অর্থমূল্য ৩৫০ কোটি টাকা৷

১৯৬৮তে শিবপুর আইআিইএসটি থেকে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করেন মহাদেব কুণ্ডু৷ তার পরই পাড়ি জমান মার্কিন মুলুকে৷ শুরু করেন কনসালট্যান্সির ব্যবসা৷ ব্যবসা বাড়তে বাড়তে তিনি এখন বিলিওনার৷ ও দেশের অগ্রণী ব্যবসায়ীদের মধ্যে তাঁর নাম উল্লেখযোগ্য৷ ব্যবসার বার্ষিক টার্ন ওভার প্রায় কয়েকশো কোটি টাকা৷ সেই প্রাক্তনীই নিজের কলেজে হাসপাতাল ও মেডিক্যাল কলেজ গঠনে বাড়িয়ে দিয়েছেন সাহায্যের হাত৷

যদিও বিষয়টি এখন একদমই প্রাথমিক স্তরে৷ হাসপাতাল তৈরির জন্য যে বিশাল জমি প্রয়োজন তা নিয়ে সমস্যা দেখা দিয়েছে৷ অধিকর্তা অজয় রায় জানান, “টাকা পেলেই হবে না৷ তারও আগে প্রয়োজন জমি৷ রাজ্য সরকারকে এ নিয়ে বেশ কয়েকবার চিঠিও দিয়েছি৷ জমি পাওয়াটাই সমস্যার হয়ে দাঁড়িয়েছে৷”

অজয়বাবু জানান, “লিখিত কোনও কোনও প্রস্তাব মহাদেববাবুর কাছ থেকে এখনও পাওয়া না গেলেও আলোচনা ভালভাবেই এগোচ্ছে৷ মতপার্থক্য যা হচ্ছে আলোচনার মাধ্যমেই মিটিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করা হচ্ছে৷” অজয়বাবুর কথায়, “মহাদেববাবু জানিয়েছেন, আগামী দশ বছর ধরে টাকাটা তিনি দেবেন৷ প্রথম দফায় তিন থেকে চার কোটি টাকা দেবেন আগামী এক বছরের মাথায়৷” রেজিস্ট্রার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, “সেনেট মিটিংয়ে আলোচনা হয়েছে বিষয়টি নিয়ে৷ রেজুলেশনও নেওয়া হয়েছে৷ দেখা যাক৷” কী ভাবে এল এই প্রস্তাব? বিমানবাবু জানান, খড়গপুর আইআইটির এক অধ্যাপকের সঙ্গে মহাদেববাবুর যোগাযোগ রয়েছে৷ তাঁর মাধ্যমেই এই প্রস্তাব আসে৷

টাকার থেকেও এখন কলেজ কর্তৃপক্ষের মাথা ব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে জমির সমস্যা৷ কারণ, হাসপাতাল তৈরি করতে প্রয়োজন অন্তত ১৫ একর জমি৷ কলেজ লাগোয়া ৩৩ একর ফাঁকা জমি পড়ে রয়েছে দীর্ঘদিন ধরে৷ জানা গিয়েছে জমিটি হনুমান ইন্ডাস্ট্রির৷ কলেজ কর্তৃপক্ষ রাজ্য সরকারের কাছে আবেদন জানিয়েছে সরকার সেই জমিটি অধিগ্রহণ করে তুলে দিক তাদের হাতে৷ এ নিয়ে বেশ কয়েকবার চিঠিও দেওয়া হয়েছে রাজ্য সরকারের কাছে৷ কিন্তু কোনও কারণে বিষয়টি এগোয়নি৷ অজয়বাবু বলেন, “আমি জেলাশাসককেও বলেছি জমিটি খাস ঘোষণা করে আমাদের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য৷”

প্রাথমিকভাবে জানা গিয়েছে, এই প্রস্তাবিত মাল্টি স্পেশালিটি হাসপাতালটির নামকরণ করা হবে ওই ব্যবসায়ীর চিকিৎসক স্ত্রী উষাদেবীর নামে৷ নাম হবে ‘উষা কুণ্ডু এমডি মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতাল’৷ হাসপাতালটি হবে ২০০ শয্যাবিশিষ্ট৷ মহাদেববাবুর ইচ্ছা, দেশের সেরা ফ্যাকাল্টিরা এখানে পড়াবেন৷ ক্লাসরুম হবে অত্যন্ত আধুনিকমানের৷ গড়ে তোলা হবে থ্রি-ডি অ্যানাটমি ক্লাসরুম৷ ফরেন্সিক মেডিসিন নিয়ে গবেষণা করা হবে এখানে৷ ডাক্তারি পড়ুয়াদের জন্য ভিডিও টেলিকাস্টের মাধ্যমে দেশের বড় বড় হাসপাতালের অস্ত্রোপচার সরাসরি সম্প্রচার করা হবে৷ কলকাতা ও হাওড়ার মানুষ এখানে অত্যন্ত কম খরচে চিকিৎসা পরিষেবা পাবেন৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement