BREAKING NEWS

৪ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

বৃষ্টির জেরে জলমগ্ন উত্তরবঙ্গ, চরম বিপাকে পর্যটকরা

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 24, 2016 5:28 pm|    Updated: June 24, 2016 6:10 pm

An Images

স্টাফ রিপোর্টার: রাতভর তুমুল বৃষ্টিতে ফের ভাসল উত্তরবঙ্গের বিস্তীর্ণ এলাকা৷ ডুয়ার্সের চা বাগানে জলের তোড়ে ভেঙে গিয়েছে মাটির বাঁধ৷ ফলে লিস নদীর জল ঢুকছে গ্রামে৷ এদিকে, জল থইথই নিউ জলপাইগুড়ি স্টেশন চত্বর৷ বিপাকে পর্যটকরা৷ অন্যদিকে, কোচবিহারে মূল তোর্সা থেকে মরা তোর্সায় জল ঢোকার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে৷ সারারাতের বৃষ্টিতে জলপাইগুড়ির টাকিমারি চর এলাকায় নতুন করে জলবন্দি হয়ে পড়েছে প্রায় দু’শো পরিবার৷ চাপাডাঙায় প্লাবিত এলাকায় শুরু হয়েছে মেডিক্যাল ক্যাম্প৷ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নির্দেশে বিধানসভার অধিবেশন বাতিল করে উত্তরবঙ্গে ফিরে এসেছেন আলিপুরদুয়ারের তৃণমূল বিধায়ক সৌরভ চক্রবর্তী৷ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণে শুক্রবার সকাল থেকেই সরেজমিন পরিদর্শন শুরু করেছেন তিনি৷ পাহাড়-সমতলে ভারী বৃষ্টির জেরে জল বাড়ছে মহানন্দা, তিস্তা-তোর্সা, জলঢাকা, কালজানি, ডিমা, রায়ডাক, সঙ্কোশ, ডায়না নদীতে৷

মালবাজারের মহকুমাশাসক জ্যোতির্ময় তাঁতি বলেছেন, কালিম্পং পাহাড়ে প্রবল বৃষ্টির জেরে মূর্তি, নেওড়া, মাল, চেল-ঘিস নদীতে মারাত্মক জলস্তর বেড়েছে৷ ওইসব নদীর জল গিয়ে পড়ছে তিস্তায়৷ ফলে তিস্তায় জলোচ্ছ্বাস দেখা দিয়েছে৷ এদিন সকাল থেকে তিস্তা দিয়ে প্রতি ঘণ্টায় প্রায় দু’হাজার কিউমেক জল প্রবাহিত হচ্ছে৷ জারি রাখা হয়েছে জরুরিকালীন ব্যবস্থা৷ নদীর জলস্তর বৃদ্ধিতে মালবাজার মহকুমার বেশকিছু এলাকা প্লাবিত হয়েছে৷ এদিকে, ডুয়ার্সে লিসলিভার চা বাগানে কলাইগাছি লাইনে ভেঙে গিয়েছে মাটির বাঁধ৷ গতবছরও ওই বাঁধটি ভেঙেছিল বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা৷ এনজেপি স্টেশনের বাইরে জল থইথই৷ জল জমে গিয়েছে স্টেশনের ইয়ার্ডেও৷ উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের এনজেপির সিনিয়র এরিয়া ম্যানেজার পার্থসারথি শীলের অভিযোগ, দখলদারদের দাপটেই জল বেরনোর রাস্তা বন্ধ হয়ে গিয়েছে৷ নিকাশি নালা করা যাচ্ছে না৷ দু’দিন আগে সেবকে তিস্তার জলস্তর বেড়ে রেললাইন ছুঁই ছুঁই হয়ে যাওয়ায় বন্ধ করে দেওয়া হয় ডুয়ার্স রুটের ট্রেন চলাচল৷ এনজেপি-র সিনিয়র এরিয়া ম্যানেজার বলেছেন, রম্ভি ড্যাম থেকে অতিরিক্ত জল ছেড়ে দেওয়ার কারণেই তিস্তার জলস্তর আচমকাই অনেকটা বেড়ে গিয়েছিল৷ ঝুঁকি এড়াতে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়৷ তবে, এখন পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে৷ শিলিগুড়ি জংশন থেকে ডুয়ার্স ও অসম রুটে ট্রেন চলছে৷ টয়ট্রেন পরিষেবাও স্বাভাবিক৷ সেচমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, প্রতিনিয়ত পরিস্থিতির খোঁজখবর নিচ্ছেন তিনি৷ প্রয়োজন হলেই উত্তরবঙ্গে আসবেন৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement