BREAKING NEWS

৭ আশ্বিন  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

গভীর নিম্নচাপের জেরে অতি ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস দক্ষিণবঙ্গে, চিন্তা আমফান বিধ্বস্ত এলাকায়

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: August 4, 2020 9:20 am|    Updated: August 4, 2020 9:32 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: গভীর নিম্নচাপের প্রভাব। সোমবার মাঝরাত থেকেই কলকাতা ও সংলগ্ন জেলায় বৃষ্টি শুরু হয়েছে। তবে আবহাওয়া দপ্তরের পূ্র্বাভাস, মঙ্গল ও বুধবার নিম্নচাপের জেরে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিতে ভাসতে চলেছে দক্ষিণবঙ্গের ৮ জেলা। কলকাতা, দুই ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি, নদিয়া ছাড়াও বৃষ্টি চলবে পুরুলিয়া, বাঁকুড়ায়। তার মধ্যে আমফান (Amphan) বিধ্বস্ত সুন্দরবন এবং দিঘা উপকূল প্রবল বৃষ্টিতে ফের বিপর্যস্ত হওয়ার আশঙ্কায় হলুদ সতর্কতা জারি করেছে আলিপুর হাওয়া অফিস।

গত কয়েকদিন ধরে ছিটেফোঁটা বৃষ্টিতে অস্বস্তি বাড়ছিল দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন প্রান্তে। তীব্র আর্দ্রতায় (Humidity) ঘর্মাক্ত হচ্ছিলেন রাজ্যবাসী। সোমবার সেই অস্বস্তি প্রায় চরমে পৌঁছয়। হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, ওইদিন আর্দ্রতা সূচক ছিল পঞ্চাশের উপরে। ফলে দিন কেটেছে অস্বস্তিতেই। মাঝরাত থেকে অবশ্য হালকা বৃষ্টি শুরু হয়েছে কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী উত্তর ২৪ পরগনায়। মঙ্গলবার সকাল থেকে আকাশ মেঘলা, সকালে কার্যত বিকেলের আলো-আঁধারি আবহ। সঙ্গে ঝিরিঝিরি বৃষ্টি। তাতে অবশ্য অস্বস্তি বিশেষ কমেনি।

[আরও পড়ুন: সীতাকুন্ড থেকে অযোধ্যা যাচ্ছে পবিত্র মাটি, রাম মন্দিরের ভূমিপুজোয় সাজবে পুরুলিয়া]

তবে আবহাওয়ায় ব্যপক বদলের ইঙ্গিত দিচ্ছে। হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস, বঙ্গোপাসাগরে তৈরি হওয়া নিম্নচাপ আরও শক্তিশালী হতে চলেছে। ফলে বাড়বে বৃষ্টি। উপকূলীয় এলাকায় ভারী বৃষ্টি চলবে। তার মধ্যে আমফান বিধ্বস্ত সুন্দরবন এবং দিঘায় ফের দুর্যোগের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে হাওয়া অফিসের তরফে। দিঘার সমুদ্রে জলোচ্ছ্বাসের আশঙ্কায় মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। যাঁরা সমুদ্রে রয়েছেন, তাঁদের দ্রুত উপকূলে ফিরে আসার নির্দেশ দিয়েছে জেলা প্রশাসন। দিঘায় শুরু হয়েছে মাইকিং।

[আরও পড়ুন: ওয়াগন বেচে ‘রেকর্ড লাভ’ পূর্ব রেলের, দুর্নীতির অভিযোগ একাংশ কর্মীর]

অন্যদিকে, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনার সুন্দরবন লাগোয়া এলাকাতেও সতর্কতা জারি করা হয়েছে। মে মাসে আমফানে ব্যপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল এসব এলাকা। সেই ক্ষতিই এখনও মেরামত করে ওঠা সম্ভব হয়নি। তার মধ্যে দু দিনের বৃষ্টিতে যদি ফের পরিস্থিতির অবনতি হয়, তা নিয়ে চিন্তার। আলিপুর আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস, এভাবে দু দিন বৃষ্টি চললে, অস্বস্তি কমবে। নামবে তাপমাত্রার পারদ এবং আর্দ্রতাও।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement