২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

রাজ কুমার, আলিপুরদুয়ার: তীব্র দাবদাহে নাজেহাল দক্ষিণবঙ্গবাসী। বাড়ি থেকে বের হতেই গলদঘর্ম অবস্থা। বৃষ্টির অপেক্ষায়  সকলেই। সেই সময়েই বৃষ্টির জেরে ভয়ংকর পরিস্থিতির সম্মুখীন উত্তরবঙ্গের বিস্তীর্ণ এলাকার মানুষ। ভুটান পাহাড়ে প্রবল বৃষ্টিতে জলমগ্ন মাদারিহাটের বিস্তীর্ণ এলাকা। শহর থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছেন প্রায় তিরিশ হাজার মানুষ। ঘরবন্দি বহু। ইতিমধ্যেই  উদ্ধারকাজে হাত লাগিয়েছে প্রশাসন।

[আরও পড়ুনগায়ের রং নিয়ে নিত্য শ্বশুরবাড়ির গঞ্জনা, অভিমানে আত্মঘাতী বধূ]

নিয়ম অনুযায়ী এরাজ্যে বর্ষা প্রবেশ করে ৮ জুন। সময় পেরিয়ে গেলেও এ বছর এখনও বর্ষার দেখা মেলেনি দক্ষিণবঙ্গে। তবে শনিবার রাত থেকে প্রবল বৃষ্টি শুরু হয়েছে ভুটান পাহাড় অঞ্চলে। ডুয়ার্সের প্রায় ১৬ টি নদীতে হরপা বান আসে। জলের তলায় চলে গিয়েছে মাদারিহাটের বিস্তীর্ণ এলাকা। এখানকার নদীগুলিতে সাধারণত সারা বছর জল কম থাকে। ওই নদীর উপরের কাঠের সেতুই শহরের সংযোগকারী পথ। কিন্তু শনিবারের বৃষ্টির জেরে ভেঙে গিয়েছে সেসব সেতু। জলমগ্ন হয়ে পড়েছে নদী, রাস্তাঘাট৷ ফলে শহর থেকে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছেন প্রায় তিরিশ হাজার মানুষ। ঘরবন্দি হয়ে পড়েছেন বহু মানুষ। একদিনের বৃষ্টির জেরে কার্যত ভয়ংকর পরিস্থিতির সম্মুখীন স্থানীয়রা। তবে ইতিমধ্যেই প্রশাসনের তরফে শুরু করা হয়েছে উদ্ধারকাজ। 

চলতি বছর এপ্রিলের শেষ দিকে ভুটান পাহাড়ে প্রবল বৃষ্টিতে জলমগ্ন হয়ে পড়েছিল ডুয়ার্সের বিস্তীর্ণ এলাকা। জলবন্দি হয়ে পড়েছিল প্রায় ১০০ টি পরিবার। বিন্নাগুড়ি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিল বানারহাট। সেই পরিস্থিতিতে প্রশাসনের ভূমিকা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন অনেকেই। যদিও এবারের চিত্রটা অন্য। শনিবার রাত থেকেই বৃষ্টি উপেক্ষা করেই উদ্ধারকাজ শুরু করেছে প্রশাসন। কয়েকদিনের ব্যবধানে ফের বন্যা পরিস্থিতিতে আতঙ্কিত স্থানীয়রা।   

[আরও পড়ুন: টাকা না দেওয়ায় ট্রাকচালককে বেধড়ক মারধর, দাদপুরে পুড়ল পুলিশের আউটপোস্ট] 

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং