০২ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৯  বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

পাঁজির প্যাঁচে রাত ১২টার মধ্যেই শেষ হবে এবারের কালীপুজো

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: October 16, 2017 6:46 am|    Updated: October 16, 2017 6:46 am

Kali Puja must be concluded ahead of midnight this year

ফাইল ছবি

গৌতম ব্রহ্ম: অমাবস্যা লাগছে বুধবার রাত ১২ টা ৪৬ মিনিটে। ছাড়ছে বৃহস্পতিবার রাত ১১ টা ৫৭ মিনিটে। পাঁজির প্যাঁচে এবার তাই রাত বারোটার মধ্যেই শেষ করতে হবে কালীপুজো।

হ্যাঁ, রাত জেগে মাতৃ আরাধনার সুযোগ এবার আর নেই। ভোররাত পর্যন্ত উপোসও করতে হবে না। বারোটার মধ্যেই পুজোপাঠ সেরে ফেলতে হবে। এমনটাই বলছেন পুরোহিতদের একাংশ। দক্ষিণেশ্বর ও কালীঘাট মন্দিরের পুরোহিতরাও সেই চেষ্টাই করবেন বলে জানা গিয়েছে। পুরোহিতদের আরেক অংশ জানাচ্ছে, বৃহস্পতিবার রাত ১১ টা ৫৭ মিনিটে অমাবস্যা ছাড়বে। তার আগে সংকল্প করে নিয়ে পুজোয় বসে গেলেই হল। পুজো আরও ঘণ্টা দেড়েক চললেও অসুবিধা নেই।

[জানেন, কীভাবে ঘরোয়া টোটকাতে কাবু করা যেতে পারে ডেঙ্গুকে?]

আসলে, কালীপুজো মানেই রাত জেগে শক্তির আরাধনা। এটাই নিয়ম হয়ে গিয়েছে। এবার সেই নিয়মে যতিচিহ্ন পড়ছে। ‘বঙ্গীয় পুরোহিত কল্যাণ পরিষদ’-এর পক্ষে সুরজিৎ চট্টোপাধ্যায় ও আচার্য গৌতম ত্রিপাঠী জানিয়েছেন, “রাত বারোটার এক দণ্ড আগেও যদি অমাবস্যা লাগত তাহলে পুজোটা বুধবারই হত। কিন্তু ভূত চতুর্দ্দশী ছাড়ছে রাত ১২ টা ৪৫ মিনিটে। ফলে, পুজো বৃহস্পতিবারই করতে হবে। এবং তা অমাবস্যা থাকতে শেষ করাই বিধেয়। ‘বৈদিক পণ্ডিত পুরোহিত মহামিলন কেন্দ্র’—র সম্পাদক পণ্ডিত নিতাই চক্রবর্তীও পাঁজি মেনে পুজো করারই বিধান দিয়েছেন। নিতাইবাবুর মত, রাত জেগে কালীপুজো হবে, এটাই বারোয়ারি কালচার হয়ে গিয়েছে। রাত বারোটার মধ্যে পুজো শেষ করে ফেলাটা একটা ‘কালচারাল ধাক্কা’-র মতো। কেউ রাত জেগে পুজো করতেই পারে তবে সংকল্পটা অমাবস্যা থাকতে থাকতে সেরে নিতে হবে। তান্ত্রিকদের একাংশ অবশ্য বুধবারই শ্মশানে শক্তি আরাধনায় বসবেন।

কালীঘাট মন্দিরেও বৃহস্পতিবার সন্ধ্যাতেই মায়ের পুজো শুরু হবে। কালীঘাট মন্দিরের ‘কাউন্সিল অফ সেবায়েত’-এর কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য দুর্জয় মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, সূর্যাস্তের পর ‘অ-লক্ষ্মী’ বিদায় করে মহালক্ষ্মীর পুজো হবে। তারপর শুরু হবে কালীপুজো। হোমের টিকা মাকে পরানোর পর পুজো সমাপন হবে।

দক্ষিণেশ্বর মন্দিরেও বৃহস্পতিবার পুজো হবে। অছি পরিষদ জানিয়েছে, রাত সাড়ে ন’টা-দশটায় জোয়ার আসে। ওই সময় ঘট স্নান করিয়ে জল ভরে মন্দিরে আনা হয়। তারপর শুরু হয় পুজো। জানা গিয়েছে, বেশিরভাগ পারিবারিক পুজো পাঁজি মেনে রাত বারোটার মধ্যেই শেষ করা হবে। কিন্তু বারোয়ারি পুজোগুলোর একটা অংশ নিয়মের ফাঁক গলে ভোররাত পর্যন্ত পুজো করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে, একটা ব্যাপারে সবাই একমত, পুজো বৃহস্পতিবারই হবে।

[বাঁকুড়ার কালীতলার মাতৃ আরাধনায় ফিরে আসে অগ্নিযুগের ইতিহাস]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে