Advertisement
Advertisement
Kuwait Fire

‘জন্মদিনে আসব’, কথা দিয়েছিলেন মেয়েকে, শেষে কুয়েত থেকে ফিরল বাবার কফিনবন্দি দেহ

গত ২০ বছর ধরে কুয়েতের এক সংস্থায় ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চাকরিরত মেদিনীপুরের দ্বারিকেশ পট্টনায়েক। বুধবার রাতের অগ্নিকাণ্ডে অকালমৃত্যু হয় তাঁর।

Kuwait Fire: Father promised to come on his daughter's birthday but it turned out to be tragic

ছবি: নিতাই রক্ষিত।

Published by: Sucheta Sengupta
  • Posted:June 15, 2024 6:19 pm
  • Updated:June 15, 2024 7:54 pm

সম্যক খান, মেদিনীপুর: কর্মসূত্রে বিশ বছর ধরে ভিনদেশে। একা থাকলেও সেখানে ফ্ল্যাট কিনে নিয়েছিলেন। বাংলায় থাকা পরিবারকে ভালো রাখতে এতটুকুও কসুর করেননি। দাঁতনের পৈতৃক ভিটে বাদেও মেদিনীপুর শহরে মা, স্ত্রী, মেয়ের জন্য আলাদা বাড়ি করেছিলেন। ইচ্ছে ছিল, ভিনদেশের চাকরি ছেড়ে ফিরে আসবেন নিজের ঘরে। বাকি জীবনটা ছোটখাটো কোনও ব্যবসা করে চালাবেন। হয়ত ইচ্ছে আরও অনেক কিছুই ছিল। কিন্তু সেসব অপূরণ রেখে মাত্র ৫২ বছর বয়সেই জীবন সঁপে দিতে হল আগুনের গর্ভে! কুয়েতের ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে মৃত্যু হয়েছে মেদিনীপুরের বাসিন্দা দ্বারিকেশ পট্টনায়েক। দিন তিনেক পর শনিবার সকালে সেই দেহ ফিরল বাড়িতে। আসার কথা ছিল পুজোর সময়, মেয়ের জন্মদিনে। এলেন তার আগেই, কিন্তু কফিনবন্দি হয়ে। এই অবস্থায় বাড়ির সদস্যকে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন সকলে। বাড়িতে গিয়ে তাঁদের পাশে থাকার বার্তা দিলেন মেদিনীপুরের (West Midnapore) নতুন সাংসদ জুন মালিয়া।

বিমানবন্দরে শ্রদ্ধা জানান দমকল মন্ত্রী সুজিত বসু, বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পল।

২৮ বছর ধরে কুয়েতের (Kuwait) এক সংস্থায় ইঞ্জিনিয়ারিং পদে চাকরি করতেন মেদিনীপুরের দ্বারিকেশ। বছর কুড়ি হল কুয়েতে বসবাস। সেখানে ফ্ল্যাটও কিনেছিলেন দ্বারিকেশ। ২ বছর পর পর বাড়িতে ফিরতেন। কিছুটা সময়ে পরিবারের সঙ্গে ফিরে যেতেন মরুদেশে। এবছর দ্বারিকেশের মেয়ে ঐশী অষ্টাদশী হবে। দুর্গাপুজোর (Durgapuja)সপ্তমীতে তার জন্মদিন। তাই বাবা কথা দিয়েছিলেন, মেয়ের ১৮ তম জন্মদিন অর্থাৎ সাবালিকা হয়ে ওঠার মুহূর্তের সাক্ষী থাকবেন। কিন্তু কথা দেওয়াই সার! কথা রাখার বদলে বাবাই চলে গেলেন! বুধবার রাতে কুয়েতের বহুতলে আগুনে পুড়ে মৃত্যু (Death) হল দ্বারিকেশের। প্রথমে অবশ্য তাঁকে ‘নিখোঁজ’ বলে দেখানো হয়েছিল। পরে যে সংস্থায় তিনি চাকরি করতেন, সেই সংস্থার তরফেই মৃত্যু সংবাদ জানানো হয়।

Advertisement

[আরও পড়ুন: বাগদায় বিজেপি প্রার্থী শান্তনুর স্ত্রী? ‘বহিরাগত চাই না’, প্রকাশ্যে পদ্মশিবিরের কোন্দল]

দ্বারিকেশের শ্যালক সায়ন্তন জানান, জামাইবাবু রোজ দুবেলা বাড়িতে ফোন করতেন। বৃহস্পতিবার ফোন না পেয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠেন পরিবারের সদস্যরা। এক বন্ধুর মাধ্যমে খোঁজখবর নেওয়ার চেষ্টা করা হয়। তাতেই জানতে পারেন দুঃসংবাদ। মাথায় বাজ ভেঙে পড়ে। শনিবার দমদম বিমানবন্দর হয়ে তাঁর দেহ মেদিনীপুরে বাড়িতে ফিরল। বিমানবন্দরে তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে যান দমকল মন্ত্রী সুজিত বসু ও বিজেপি নেত্রী অগ্নিমিত্রা পল। আর মেদিনীপুরে দেহ পৌঁছনোর আগেই তাঁদের বাড়িতে চলে যান নবনির্বাচিত সাংসদ জুন মালিয়া (June Mallya)। শেষ শ্রদ্ধা জানিয়ে পরিবারের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

Advertisement

দেখুন ভিডিও: 

[আরও পড়ুন: দুই নারী! বাল সাহিত্য অকাদেমি পেলেন দীপান্বিতা রায়, যুব অকাদেমি কবি সুতপা চক্রবর্তীর]

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ