৯ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

২ দিন পর উদ্ধার মাধ্যমিকের হারানো উত্তরপত্র, তদন্তের নির্দেশ পর্ষদ সভাপতির

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: March 15, 2020 11:35 am|    Updated: March 15, 2020 11:35 am

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: দু’দিন পর মিলল কোচবিহার থেকে হারিয়ে যাওয়া মাধ্যমিকের ইংরেজি উত্তরপত্র। যে শিক্ষকের কাছ থেকে উত্তরপত্রগুলি হারিয়েছিল তিনিই রবিবার ফোনে পর্ষদ সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায়কে ফেরত পাওয়ার বিষয়টি জানান। দু’দিন পর উদ্ধার হওয়া উত্তরপত্রগুলি আসল কি না তা খতিয়ে দেখা হবে। গোটা ঘটনার পর্যালোচনার পর এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন পর্ষদ সভাপতি।

ঘটনার সূত্রপাত শুক্রবার। খাতা দেখা শেষে এদিন মাধ্যমিকের ইংরেজি খাতা মুখ্য পরীক্ষকের কাছে দিতে যাচ্ছিলেন কোচবিহারের এক শিক্ষক। মুখ্য পরীক্ষকের কাছে পৌঁছে তিনি দেখেন বাইকে খাতার ব্যাগটি নেই। অনুমান করেন, কোনওভাবে বাইক থেকে ব্যাগটি পড়ে গিয়েছে। এরপরই মুখ্য পরীক্ষককে বিষয়টি জানান তিনি। শুরু হয় খোঁজাখুঁজি। হদিশ না মেলায় বিষয়টি জানানো হয় মধ্যশিক্ষা পর্ষদ ও তুফানগঞ্জ থানায়। তড়িঘড়ি তদন্ত শুরু করে তুফানগঞ্জ থানার পুলিশ। ওই পরীক্ষক যে রাস্তা দিয়ে মুখ্য পরীক্ষকের বাড়ি গিয়েছিলেন, সেই রাস্তায় শুরু হয় তল্লাশি।

[আরও পড়ুন: উচ্চ মাধ্যমিকেও জনসংযোগে তৃণমূল! পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে অভিভাবকদের জন্যও বিশেষ ব্যবস্থা]

শনিবার সকালে তুফানগঞ্জ থেকে বলরামপুর-চোপথি হয়ে দিনহাটা যাচ্ছে যে রাস্তা, সেখানে খোঁজাখুঁজি করে পুলিশ। বাড়ি বাড়ি গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়। এরপর রবিবার সকালে ওই শিক্ষক ফোনে পর্ষদ সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায়কে জানান যে, হারানো খাতাগুলি উদ্ধার হয়েছে। এপ্রসঙ্গে পর্ষদ সভাপতি বলেন, উদ্ধার হওয়া খাতাগুলিতে কিছু করা হয়েছে কি না। তা খতিয়ে দেখা হবে। প্রয়োজনে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তারপর সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে নিয়ম অনুযায়ী আপাতত খাতা থাকবে পুলিশের কাছে।

এবিষয়ে মধ্যশিক্ষা পর্ষদের আহ্বায়ক মিঠুন বৈশ্য জানান, রাস্তায় খাতার ব্যাগটি পড়ে যাওয়ার এক ব্যক্তি সেটি পেয়েছিলেন। এরপর খাতা হারিয়ে যাওয়ার বিষয়টি প্রকাশ্যে তিনি নিজেই তুফানগঞ্জ থানায় যোগাযোগ করে বিষয়টি জানান। এবিষয়ে এখনও পর্যন্ত অভিযুক্ত শিক্ষকের কোনও প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

[আরও পড়ুন: পুরভোটের মুখে ছন্দপতন, আচমকা ইস্তফা ঝালদা পুরসভার ভাইস চেয়ারম্যানের]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement