১৯ অগ্রহায়ণ  ১৪২৬  শুক্রবার ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

ধীমান রায়, কাটোয়া:  সদ্য বিয়ে হয়েছে। কর্মসূত্রে স্বামী বেশিরভাগ সময়েই বাইরে থাকেন। রাতে ঘরে একাই ছিলেন এক গৃহবধূ। মদ্যপ অবস্থায় শ্বশুরবাড়িতে গিয়ে ভাগ্নিকেই ধর্ষণের চেষ্টা করল তাঁর মামা৷ ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

[আরও পড়ুন: অসুস্থতা নাকি অত্যাচার, বারুইপুর সংশোধানাগারে বন্দির মৃত্যুতে রহস্য]

স্কুলের পড়াশোনা এখনও শেষ হয়নি। আঠেরো বছর হতে না হতেই বিয়ে করে ফেলেছেন ভাতারের কামারপাড়া গ্রামের এক তরুণী। স্বামী খালাসির কাজ করেন। বেশিরভাগ সময়েই বাইরে থাকেন। ওই তরুণীর দাবি, মঙ্গলবার রাতে শ্বশুর-শাশুড়ি পাশের ঘরে ঘুমাচ্ছিলেন। নিজে ঘরে একাই ছিলেন তিনি। ঘরের দরজাও ততটা শক্তপোক্ত নয়। অভিযোগ, রাতে মদ্যপ অবস্থায় পাঁচিল টপকে ওই তরুণীর ঘরের দরজায় টোকা দেয় তাঁর মামা। দরজা খুলতেই ভাগ্নিকে ধর্ষণের চেষ্টা করে সে। শেষপর্যন্ত ওই তরুণীর চিৎকারে যখন তাঁর শ্বশুর-শাশুড়ি বাইরে বেরিয়ে আসেন, তখন অভিযুক্ত পালিয়ে যায়। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

জানা গিয়েছে, নির্যাতিতা তরুণীর মামারবাড়ি ভাতারের কামারপাড়া গ্রামের কাছেই। মামার নাম রমেশ প্রামাণিক। যাকে মামা বলে ডাকেন, সে-ই যে এমন কাণ্ড ঘটাবে, তা ভাবতে পারছেন না ওই তরুণী। বিয়ের আগে তিনি মামার বাড়িতেই থাকতেন বলেও জানা গিয়েছে।

রাজ্যজুড়েই মহিলাদের ধর্ষণ, শ্লীলতাহানির ঘটনা বাড়ছে। বিকৃত যৌন লালসার হাত থেকে রেহাই পাচ্ছে না শিশুরাও। আবার কখনও কখনও আত্মীয়দের বিরুদ্ধেও পরিবারের কোনও কিশোরী কিংবা যুবতীকে ধর্ষণ বা তাঁর শ্লীলতাহানির করার মতো ঘটনাও ঘটছে। কয়েক মাস আগে খাস কলকাতায় মামার বাড়িতে বেড়াতে এসে  বিকৃত যৌন লালসার শিকার হতে হয় এক মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীকে। নারকীয় অত্যাচার চলে তার উপর। অভিযুক্তকে গ্রেপ্তারও করে পুলিশ।

[ আরও পড়ুন: সরকারি দপ্তরই ডেঙ্গুর আঁতুড়ঘর! পুরসভার ভূমিকায় বাড়ছে ক্ষোভ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং