Advertisement
Advertisement

মোবাইলে মনুয়ার আপত্তিজনক সেলফির জন্যই কি খুন অনুপম?

অনুপমের মোবাইলে লুকিয়ে কোন রহস্য, বারাসতের 'লাইভ মার্ডার' কাণ্ডের তদন্তে নেমে মনুয়া-অজিতের ষড়যন্ত্রে হতবাক পুলিশও৷

Manua 'intimate' pics in Anupam Singha's mobile might have trigged murder: Investigators
Published by: Sangbad Pratidin Digital
  • Posted:May 25, 2017 3:09 am
  • Updated:May 25, 2017 4:42 am

স্টাফ রিপোর্টার: খুনের পর অনুপমের ঘর থেকে কিছুই খোয়া যায়নি৷ টাকাপয়সা, সোনা গয়না সব কিছুই তার নির্দিষ্ট জায়গাতেই ছিল৷ এমনকী অনুপমের বিয়ের আংটিও আঙুল থেকে খুলে তাঁর দেহের পাশে ফেলে যায় খুনি৷ তবে এত কিছুর মধ্যে রহস্যজনকভাবে উধাও হয়ে গিয়েছিল অনুপমের তিনটি মোবাইল ফোন৷

একটি ফোন অনুপম খুনের অন্যতম অভিযুক্ত তথা মনুয়ার প্রেমিক অজিত ওরফে ‘ব্লেজার কালু’র কাছ থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ৷ বাকি দু’টির কোনও খোঁজ এখনও মেলেনি৷ স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠছে, এত দামি জিনিস থাকতে শুধু মোবাইলগুলি কেন নিয়েছিল অজিত?

Advertisement

তদন্তের স্বার্থে এবিষয়ে যদিও এখনই মুখ খুলতে নারাজ পুলিশকর্তারা৷ তবে পুলিশেরই এক বিশ্বস্ত সূত্রে খবর, কী কারণে খুন, সেই রহস্যটাই লুকিয়ে রয়েছে অনুপমের ওই তিনটি ফোনের একটিতে৷ মনুয়া কোনওমতেই সে তথ্য প্রকাশ্যে আসতে দিতে চায়নি৷ তাই তার নির্দেশেই খুনের পর ওই ফোনগুলি সরিয়ে নেয় অজিত৷

Advertisement

[মনুয়াকে ফোনে স্বামীর চিৎকার শোনাতে এই নৃশংস কাজটি করে অজিত]

কী এমন তথ্য ছিল সেই ফোনে? আর সে তথ্য প্রকাশ্যে এলে, তাতে কী বা এসে যেত মনুয়ার৷ পুলিশ বলছে, এই তথ্য ফাঁস হয়ে গেলে, নিজের পরিবারের কাছেই আর মুখ দেখাতে পারত না মনুয়া৷ সে কারণেই অনুপমকে খুন করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছিল সে৷ অনুপমের ওই মোবাইলে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য ছিল যে, খুনের ফুল প্রুফ প্ল্যানিং করেও আশ্বস্ত হতে পারেনি মনুয়া৷ খুন হয়েছে কি না সেটা নিজের কানে না শোনা পর্যন্ত স্বস্তির নিশ্বাস ফেলতে পারেনি সে৷

প্রতিদিন দুপুরে স্বামীর অনুপস্থিতিতে স্কুটির পিছনে নিত্যনতুন পুরুষ সঙ্গী নিয়ে ফাঁকা বাড়িতে ঢুকত মনুয়া৷ একথা জানিয়েছেন অনুপমের প্রতিবেশীরা৷ মনুয়ার ঘনিষ্ঠদের থেকে জানা যায়, একসঙ্গে একাধিক ছেলের সঙ্গে ফ্লার্ট করত সে৷ দিনরাত শুধু ফোনে কথা আর চ্যাট৷ নিজের উত্তেজক সেলফিও পাঠাত সেই বয়ফ্রেন্ডদের৷ তদন্তে নেমে পুলিশ জানতে পেরেছে, মনুয়ার কিছু অর্ধনগ্ন, উত্তেজক সেলফি ভাইরাল হয়ে গিয়েছিল৷ আর তারই মধ্যে কয়েকটি ছবি চলে আসে অনুপমের হাতে৷ স্ত্রী-র আপত্তিকর ছবি অন্যের থেকে পাওয়ার পর আকাশ ভেঙে পড়ে অনুপমের মাথায়৷ এই নিয়ে দু’জনের মধ্যে ব্যাপক বচসা হয়৷ অজিতের সঙ্গে সম্পর্কের কথা না জানলেও তার বিবাহবহির্ভূত সম্পর্ক থাকার কথা আন্দাজ করতে পারেন অনুপম৷ বিষয়টি মনুয়ার বাবা-মায়ের কাছে জানানোর সিদ্ধান্ত নেন তিনি৷ যদিও সে ছবি তাঁদের দেখাননি অনুপম৷ শুধু স্ত্রীর বেলাগাম জীবনযাত্রার বিষয়ে নালিশ করেন৷ এবং মনুয়াকে শেষবারের মতো সতর্ক করে দেন৷ দ্বিতীয়বার এই ধরনের ঘটনা ঘটলে সেই ছবিগুলি মনুয়ার পরিবারের সবাইকে দেখিয়ে দেবেন বলে চ্যালেঞ্জ নিয়েছিলেন অনুপম৷ সেই তিক্ত সত্য যাতে সামনে না আসে, তার জন্যই খুনের ষড়যন্ত্র সাজায় মনুয়া৷

[মন্ত্রপূত ওষুধেই হবে পড়াশোনায় উন্নতি, টোপ দিয়ে নাবালিকাকে ধর্ষণ ওঝার]

উত্তর ২৪ পরগনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অভিজিত্‍ বন্দ্যোপাধ্যায়কে এবিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “একটি ফোন উদ্ধার করা হয়েছে৷ বাকি দু’টি ফোনের খোঁজে তল্লাশি চলছে৷” এই ফোনে কী রহস্য লুকিয়ে আছে, সে বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি কোনও উত্তর দিতে রাজি হননি৷ তাঁর বক্তব্য, “এতে তদন্ত প্রক্রিয়ার ক্ষতি হতে পারে৷”

পুলিশকে মনুয়া আগাগোড়া মিথ্যা কথা বলে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছে৷ জেরায় সে পুলিশকে বলেছিল, অনুপম তার নাচ এবং চাকরির বিরোধিতা করেন৷ তবে সব্যসাচী দাস ওরফে বুবাই নামে মনুয়ার এক আত্মীয়র থেকে জানা যায়, সে তথ্য মিথ্যা৷ গত ৩ মে সকালে মনুয়ার ফোন পেয়ে সে-ই গিয়ে অনুপমের রক্তাক্ত দেহ দেখতে পায়৷ সব্যসাচীর দাবি, “অনুপমদা মনুয়াকে সব সময় নাচের জন্য উৎসাহ দিত৷ নিজে রাত পর্যন্ত জেগে থেকে রিহার্সালে সঙ্গ দিত৷ এমনকী যখন যেমন টাকা লাগত সবই অনুপমদা দিত৷ কেউ বিরোধিতা করলে এত কিছু করে? মনুয়া পড়শোনা করতে চেয়েছিল বলে নিজেই বিএড কলেজে তাকে ভর্তি করিয়েছিল৷” একথা স্বীকার করেছেন মনুয়া এবং অনুপমের অন্যান্য ঘনিষ্ঠরাও৷ তাই খুনের জন্য মনুয়া যে অত্যাচার এবং স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপের তথ্য দিচ্ছে, তার সত্যতা নিয়ে সংশয় তৈরি হয়েছে তদন্তকারীদের মধ্যেই৷ তাই অনুপমের বাকি মোবাইলগুলি পাওয়া গেলে রহস্যের কিনারা হবে বলে মত তদন্তকারীদের একাংশের৷

[কীভাবে খুন করতে হবে স্বামীকে, প্রেমিককে শিখিয়েছিল মনুয়াই]

 

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ