১৫ অগ্রহায়ণ  ১৪২৮  বৃহস্পতিবার ২ ডিসেম্বর ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

মৌচাকে ঢিল মারায় মোর্চার এত গোঁসা, গুরুংকে জবাব মমতার

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 10, 2017 12:36 pm|    Updated: October 7, 2019 3:13 pm

Morcha furious as hegemony challenged, lashes Mamata Banerjee

ব্রতীন দাস, শিলিগুড়ি: তিনি কতটা ‘রাফ অ্যান্ড টাফ’ তা দু’ দিনে ভালমতো টের পেয়েছে গুরুং বাহিনী। এবার সমতলে দাঁড়িয়ে পাহাড় পরিস্থিতির দাওয়াই দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মোর্চাকে ইঙ্গিত করে মুখ্যমন্ত্রীর বক্তব্য, তাঁর লাগাতার পাহাড় সফরে গুরুংদের মৌরসিপাট্টায় ঘা লেগেছে। রাজনৈতিকভাবে দেওলিয়া হয়ে মোর্চা সন্ত্রাসের পথে হাঁটছে বলে অভিযোগ করেন মুখ্যমন্ত্রী।

[কোথায় বনধ! মেজাজেই পাহাড়]

দিনভর পাহাড় চষে বেড়ানো। সামনে থেকে দাঁড়িয়ে প্রশাসনকে তৎপর রাখা। পর্যটকদের বরাভয় দেওয়া। শুক্রবার এভাবেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখেছিলেন রাজ্যবাসী। কথা মতো আটকে থাকা প্রত্যেক পর্যটকের ফেরানোর ব্যবস্থার পর শুক্রবার রাতে শিলিগুড়ি নামেন মুখ্যমন্ত্রী। শনিবার পাহাড় পরিস্থিতি নিয়ে উত্তরকন্যায় মুখ্যমন্ত্রীর নেতৃত্বে শুরু হয় প্রশাসনিক বৈঠক। মুখ্যসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, ডিজির উপস্থিতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বুঝিয়ে দেন পাহাড়ে গত কয়েক দিনে যা হয়েছে তাতে তিনি বেজায় ক্ষুব্ধ। সাংবাদিকদের সামনে ঘুরিয়ে মোর্চাকে একহাত নেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বুঝিয়ে দেন  মৌচাকে ঢিল মারায় মোর্চার এত গোঁসা। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কথায়, ‘আমি প্রতি মাসে পাহাড়ে যাই। তাতে অনেকের রাগ হয়। আগে লুটেপুতে খেত। এখন সেটা হচ্ছে না। রাজনৈতিকভাবে জবাব দিতে না পেরে গুরুংবাহিনী সন্ত্রাসের রাস্তা নিয়েছে।‘ এর ওষুধও যে তাঁর কাছে আছে তাও বুঝিয়ে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মোর্চার ওপর চাপ আরও বাড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রী জানান, ‘জিটিএর মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছে। ২ আগস্টের মধ্যে শপথ নিতে হবে। যে কোনও দিন ভোট হতে পারে।’ জিটিএ কী কাজ করেছে তা মানুষই মূল্যায়ন করবে বলে মোর্চাকে বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী।

[জিটিএ নিয়ে পরস্পরবিরোধী মন্তব্য, দলেই প্রশ্নের মুখে গুরুং]

এদিন আরও একবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বনধের বিরোধিতা করলেও, পাহাড়ের চা বাগানে নতুন করে অচলাবস্থা তৈরি হয়েছে। চা শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি-সহ একাধিক ইস্যুতে চা বাগানগুলিতে আগামী সোম ও মঙ্গলবার ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে ২৪টি সংগঠন। মোর্চা, বিজেপি, বাম ও কংগ্রেসের শ্রমিক সংগঠনগুলিও এই কর্মসূচিতে রয়েছে। যা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিন পাহাড়ের  প্রশাসনিক কিছু রদবদল হয়েছে। কালিম্পংয়ের আইসি ভানু রায় এবং কার্শিয়াং থানার আইসি দীপঙ্কর সোমকে বদলি করা হয়েছে। ভানু রায় যাচ্ছেন মুর্শিদাবাদের আইসি হোমগার্ডে। তাঁর স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন  দিনহাটার আইসি তীর্থসারথি নাথ। শিলিগুড়ি পুলিশ কমিশনরাট থেকে একজনকে কার্শিয়াংয়ের আইসির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে