BREAKING NEWS

১৯ আষাঢ়  ১৪২৭  রবিবার ৫ জুলাই ২০২০ 

Advertisement

বঙ্গোপসাগরে তৈরি হচ্ছে নিম্নচাপ, বাংলায় আবার কি ধেয়ে আসবে ঘূর্ণিঝড়?

Published by: Paramita Paul |    Posted: June 6, 2020 4:47 pm|    Updated: June 6, 2020 7:15 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আমফানের ক্ষত এখনও দগদগে। এর মধ্যেই বঙ্গোপসাগরে নতুন করে তৈরি হচ্ছে নিম্নচাপ। যা ফের ঘূর্ণিঝড়ের (Cyclone) আকার নিতে পারে বলে আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। মৌসম ভবন বলছে, আগামী ১০ জুন নাগাদ সেটি সম্পূর্ণ তৈরি হয়ে যাবে। সেটি ঘূর্ণিঝড় হবে কি না তারপরই নিশ্চিত হওয়া যাবে।

ঘূর্ণিঝড় আমফানের তাণ্ডবে দুই ২৪ পরগণার একটি বিরাট অংশ লণ্ডভণ্ড হয়ে গিয়েছে। বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ওই ঘূর্ণিঝড় রাজ্যের বহু মানুষের প্রাণ কেড়েছে। সেই ক্ষয়ক্ষতিই এখনও সামাল দেওয়া যায়নি। সুন্দরবন ও সাগর উপকূলবর্তী অঞ্চলে ক্ষতচিহ্ন এখনো বর্তমান। লজঝড়ে বাঁধ টপকে আসা জোয়ারের জল গ্রামের পর গ্রাম দিনে দুবার করে প্লাবিত করছে। জলে ডুবে বিস্তীর্ণ এলাকা। মাত্র কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে বঙ্গোপসাগরে তৈরি হচ্ছে আরও একটি নিম্নচাপ। এমনটাই জানিয়েছে দিল্লির মৌসম ভবন। তবে তা ঘূর্ণিঝড়ের আকার নেবে তা এখনও নিশ্চিত নয়। নিশ্চিত নয় সেই নিম্নচাপের প্রভাব বাংলায় পড়বে কি না। কিন্তু বাংলার মানুষ যে প্রলয়কে সামনে থেকে দেখেছেন, তারপর থেকে নিম্নচাপের কথা শুনলেই সিদুঁরে মেঘ দেখছেন।

[আরও পড়ুন : আমফানে ক্ষতিগ্রস্তদের প্রাপ্য অন্যদের পাইয়ে দেওয়ার অভিযোগ, তৃণমূল নেতার বাড়ি ভাঙচুর]

এ প্রসঙ্গে মৌসম ভবনের আধিকারিক ড কুলদীপ শ্রীবাস্তব জানিয়েছেন, ১০ জুন নাগাদ নিম্নচাপটি সম্পূর্ণ তৈরি হয়ে যাবে। তারপর সেটি প্রচুর জলীয়বাষ্প নিয়ে মধ্যপ্রদেশে, দিল্লি ও উত্তরপ্রদেশের দিকে যাত্রা শুরু করবে। এর ফলে উত্তর ভারতের ওইসব এলাকায় ৫০-৬০ কিলোমিটার বেড়ে ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে বৃষ্টি হতে পারে। ১১ জুন থেকে ১৩ জুন পর্যন্ত বৃষ্টি হবে। কমবে দিল্লি ও সন্নিহিত অঞ্চলের তাপমাত্রা। তবে এই নিম্নচাপের প্রভাব বাংলায় পড়বে না বলেই মনে করছে আবহাওয়াবিদরা।

[আরও পড়ুন :আমফান কেড়েছে নদীবাঁধ, কোটালের আগে ফের প্লাবনের আশঙ্কায় কাঁটা সুন্দরবন]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement