৩০ ভাদ্র  ১৪২৬  মঙ্গলবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

জ্যোতি চক্রবর্তী:  শেষ দফার ভোটেও রাজ্যে বিক্ষিপ্ত অশান্তি। একাধিক বুথে ছাপ্পা ভোট করানোর অভিযোগ উঠেছে শাসক-বিরোধী উভয়ের বিরুদ্ধে। এরই মাঝে পুলিশের পোশাকে ভোট করাতে গিয়ে ধৃত এক ব্যক্তি। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রে হাড়োয়া এলাকায়।

[আরও পড়ুন: উপনির্বাচনের ভাটপাড়ায় অশান্তি, উন্মত্ত জনতার হাতে আক্রান্ত মদন মিত্র]

জানা গিয়েছে, রবিবার সকালে পুলিশের গাড়িতে উর্দি পরে এক ব্যক্তি বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রের হাড়োয়ার বকজুড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৫ নম্বর বুথে হাজির হন। অভিযোগ, ভোটের লাইনে থাকা দৃষ্টিশক্তিহীন ভোটারদের সঙ্গে নিয়ে বুথের ভিতর ঢুকছিলেন তিনি। তাঁর আচরণে সন্দেহ হয় বুথের বাইরে থাকা তৃণমূল কর্মীদের। নিছকই সন্দেহের বশে ওই ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন তৃণমূল কর্মীরা। এরপর তাকে বুথে কর্তব্যরত সেনাবাহিনীর জওয়ানদের হাতে তুলে দেন তাঁরা।

[আরও পড়ুন: বিক্ষিপ্ত অশান্তি এবং চাপা উত্তেজনার মধ্যেও ভোটে ব্যাপক সাড়া ভাঙড়বাসীর]

সেনাবাহিনীর জওয়ানরা জেরা শুরু করে ওই ব্যক্তিকে। চাপের মুখে ভেঙে পড়েন তিনি। জানা যায়, ওই ব্যক্তির নাম বাবুর আলি শেখ। বাড়ি,  উত্তর ২৪ পরগনার বসিরহাট লোকসভা কেন্দ্রেরই মালতিপুরে। যাত্রাদল থেকে পুলিশে উর্দি ভাড়া নিয়েছিলেন তিনি। আর সেই উর্দি পরেই বুথের চত্বরে ঘোরাফেরা করছিলেন বাবুর। ছাপ্পা ভোটও দিচ্ছিলেন। পুলিশের দাবি, জেরায় বাবুর আলি শেখ স্বীকার করেছেন যে, বিজেপির নির্দেশেই পুলিশের উর্দি পরে হাড়োয়ার বকজুড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের ১৫ নম্বর বুথে ছাপ্পা ভোট দিচ্ছিলেন তিনি। ঘটনার তদন্তে নেমেছে পুলিশ।

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং