১৪  আষাঢ়  ১৪২৯  বুধবার ২৯ জুন ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

Advertisement

অন্ধকারে অচেনা মানুষের আনাগোনা, আতঙ্ক ডায়মন্ডহারবার-ফলতায়

Published by: Bishakha Pal |    Posted: February 8, 2019 8:31 pm|    Updated: February 8, 2019 8:31 pm

Outsiders roaming in various localities at Dimond Hourbour

ছবি: প্রতীকী।

সুরজিৎ দেব, ডায়মন্ডহারবার: সন্ধে নামলেই এখন আতঙ্ক দক্ষিণ ২৪ পরগণার এক বিস্তীর্ণ এলাকার মানুষের। আতঙ্কের কারণ অচেনা লোকজনের এলাকায় আনাগোনা। শুধু আনাগোনাই বা বলি কেন তারা নাকি রীতিমত অত্যাচারও চালাচ্ছে সাধারণ মানুষের ওপর। বিশেষ করে এলাকার মহিলাদের ওপর। অন্ধকার নামলেই বাড়ির দরজার কড়া নড়ে উঠছে। আর দরজা খুললেই নাকি অচেনা লোক ঢুকে পড়ছে ঘরের মধ্যে। মারধর করছে বাচ্চা থেকে বুড়ো সকলকেই। মহিলাদের শ্লীলতাহানির চেষ্টারও অভিযোগ উঠছে কোথাও কোথাও। এমনই এক গুজবে এখন প্রচন্ড আতঙ্কিত ফলতা, নোদাখালি, রামনগর ও ডায়মন্ডহারবার এলাকার মানুষ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া একটি ছবি থেকেই এই আতঙ্কের সূত্রপাত। ছবিটিতে দেখা গেছে লম্বা-চওড়া এক যুবককে ধরে বেধড়ক মারধর করছে কিছু উন্মত্ত মানুষ। আর বেদম মার খেয়ে ওই যুবকের স্বীকারোক্তি তাকে নাকি একদল দুষ্কৃতী ৫০০ টাকা ও এক বোতল মদের বিনিময়ে গাড়িতে করে এনে নামিয়ে দিয়ে গিয়েছে এলাকায় আতঙ্ক ছড়ানোর জন্য। ব্যাস আর যায় কোথায়, বিদ্যুৎ গতিতে গুজব ছড়াতে শুরু করে ডায়মন্ডহারবার, একতারা, ফলতা, নোদাখালি, রামনগর-সহ দক্ষিণ ২৪ পরগণার এক বিস্তীর্ণ এলাকায়। অভিযোগ, সন্ধে নামলেই জাল ঘেরা গাড়িতে করে লম্বা-লম্বা অচেনা লোকজনকে ওইসব এলাকায় ছেড়ে দিয়ে যাচ্ছে কিছু দুষ্কৃতী। মাথায় ফেট্টি বাঁধা আর ট্র্যাকস্যুট পরা অচেনা সেই ব্যক্তিরা এলাকার গ্রামগুলিতে নাকি ক্রমাগত আতঙ্ক ছড়িয়ে বেড়াচ্ছে। জোরালো টর্চের আলো পড়ছে গ্রামের বাড়িতে বাড়িতে। কখনও মারধর করছে পথচলতি মানুষজনকে। আবার কখনও ঢুকে পড়ছে এর-ওর বাড়িতেও। অত্যাচার চালাচ্ছে বাড়ির মহিলাদের ওপর। কখনও কখনও আবার এইসব অচেনা-অজানা লম্বা মানুষ নাকি কেবল আতঙ্ক ছড়াতেই ঘরের দরজার কড়া নেড়ে অন্ধকারে লুকিয়ে পড়ছে। দিন পনেরো ধরে চলা এই মারাত্মক গুজবে অবশেষে স্থানীয় বাসিন্দারা রাতপাহারাও শুরু করেছে কোথাও-কোথাও। বেশ কিছু অচেনা যুবক ওইসব রাত পাহারাদারদের হাতে ধরা পড়ে উত্তম-মধ্যম খেয়েও ফেলেছে ইতিমধ্যেই। ফলতার ভাটোয়ালি পাড়া, ধানকল মোড়, নোদাখালির গোদাখালি ও ডায়মন্ডহারবারের আবদালপুর গ্রামে গত কয়েকদিনে এমন ঘটনা ঘটেছে কয়েকটি। অচেনা ওই যুবকদের এলাকায় সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করতে দেখে তাদের ধরে ফেলে গ্রামের মানুষ। শুরু হয় গণপিটুনি। শেষমেশ পুলিশকে গিয়ে তাদের উদ্ধার করে আনতে হয়।

দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানায় বিষাক্ত গ্যাস লিক, গুরুতর অসুস্থ তিন কর্মী ]

গতকাল এমনই একটি ঘটনা ঘটেছে নোদাখালি থানার গোদাখালিতে। অভিযোগ, খোকন পাত্র নামে বত্রিশ বছরের ওই অপরিচিত যুবককে সন্ধ্যেবেলায় এলাকায় প্রথমে সন্দেহজনকভাবে ঘোরাফেরা করতে দেখেন গ্রামের মানুষ। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে গেলে সে ওই বাসিন্দাদের মারধর করে। এ খবর গ্রামে ছড়িয়ে পড়লে উন্মত্ত বাসিন্দারা এসে তাকে গণধোলাই দেয়। বিশাল পুলিশবাহিনী ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই যুবককে উদ্ধার করে। পরে তাকে গ্রেপ্তার করে আদালতে পাঠানো হয়।

এমনই আরেকটি ঘটনা ঘটে গতকালই রাতে ডায়মন্ডহারবারের আবদালপুরে। বেশ কয়েকটি বাড়িতে হঠাৎ হঠাৎ কড়া নড়ে ওঠে। কিন্তু দরজা খুলতে কাউকেই দেখতে পাননি তাঁরা। আতঙ্কিত বাসিন্দারা এরপর পাহারা দিতে শুরু করেন। ধরাও পড়ে এক অচেনা যুবক। সে গণপিটুনির শিকার হয়। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায় পুলিশ। এদিকে, পুলিশ সাধারণ মানুষকে কোনওরকম গুজবে কান না দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছে। কোনও অচেনা ব্যক্তির উপস্থিতি চোখে পড়লে সঙ্গে সঙ্গে স্থানীয় থানায় জানানোর কথা বলা হয়েছে। ফলতার তৃণমূল নেতা জাহাঙ্গীর খান জানান, কোনও কোনও এলাকায় সাধারণ কিছু চুরির ঘটনা ঘটছে বটে তবে সম্প্রতি যে গুজব রটেছে তা নিয়ে সাধারণ মানুষের মনে আতঙ্ক থাকলেও বিষয়টি সম্পর্কে এখনও তেমন কোনও প্রমাণ মেলেনি। তবে পুলিশ প্রশাসনকে বিষয়টির ওপর সজাগ দৃষ্টি রাখার আবেদন জানানো হয়েছে।

চিটফান্ড মামলার তদন্তে আপনার এত ভয় কীসের? মমতাকে প্রশ্ন মোদির ]

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে