৫ আশ্বিন  ১৪২৬  সোমবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

তাপস মণ্ডল, চূঁচূড়া: ফের পচা মাংসের জাল ছড়াচ্ছে রাজ্যে?  রবিবার রাতে হুগলির বলাগড়ের গুপ্তিপাড়ার একটি দোকান থেকে প্রায় ১ কুইন্ট্যাল পচা মাংস বাজেয়াপ্তর ঘটনা সেই আশঙ্কাই উসকে দিল। ইতিমধ্যেই ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে দোকান মালিককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যান্য অভিযুক্তদের খোঁজে শুরু হয়েছে তল্লাশি।

[আরও পড়ুন:যন্ত্রণাহীন মৃত্যু ‘উপহার’ দিচ্ছে কালাচ, বর্ষার শুরুতেই ছড়াচ্ছে সর্পাতঙ্ক]

গত বছর ভাগাড়কাণ্ড নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছিল রাজ্য। তদন্তে নেমে ঘটনার মূল অভিযুক্ত-সহ বেশ কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর থেকেই কলকাতা ও সংলগ্ন এলাকার রেস্তরাঁগুলিতে তল্লাশি চালায় পুলিশ। বিভিন্ন রেস্তরাঁ থেকে উদ্ধার হয় প্রচুর মাংসও। এবার সেই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটল হুগলির বলাগড়ের গুপ্তিপাড়া এলাকায়। জানা গিয়েছে, গোপন সূত্রের খবরের ভিত্তিতে রবিবার সন্ধেয় গুপ্তিপাড়া স্টেশন বাজার সংলগ্ন এলাকায় তল্লাশি চালায় বলাগড় থানার পুলিশ। সেখানেই সুশান্ত দাস নামে এক ব্যক্তির দোকান থেকে উদ্ধার হয় প্রায় ১০০ কেজি পচা মাংস। উদ্ধার হওয়া মাংস পরীক্ষা করে দেখা যায়, আনুমানিক ৬ মাসের পুরনো। এরপরই দোকান মালিককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে খবর, ওই দোকান থেকেই এলাকার বিভিন্ন রেস্তরাঁয় মাংস সরবরাহ করা হত। অভিযোগ, ভাল মাংসের সঙ্গে ওই পচা মাংস মিশিয়েই পাঠানো হত বিভিন্ন দোকানে। জানা গিয়েছে, এলাকার বেশ কিছু রেস্তরাঁয় খাবার খেয়ে অনেকেই খারাপ মাংস পরিবেশনের অভিযোগ তুলেছিলেন। এরপর এলাকারই এক বাসিন্দা গোটা বিষয়টি বলাগড় থানায় জানান। ঘটনার তদন্তে নামে বলাগড় থানার আধিকারিকরা।

এক পুলিশ আধিকারিক জানিয়েছেন, “বেশ কিছু খাবারের দোকানে ভালো মাংসের সঙ্গে খারাপ মাংস মিশিয়ে পরিবেশন করা হচ্ছে বলে পুলিশের কাছে খবর যায়। সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই তদন্তে নেমে গুপ্তিপাড়ার সুশান্ত দাসের দোকানের হদিশ মেলে।”  ধৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ করেই ঘটনার সঙ্গে জড়িত অন্যান্যদের সন্ধান মিলবে বলে আশাবাদী তদন্তকারীরা। 

[আরও পড়ুন:অর্থ দপ্তরের অনুমতি ছাড়া পুরসভায় কাজ কেন? ফিরহাদকে তিরস্কার মুখ্যমন্ত্রীর]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং