BREAKING NEWS

৯ আশ্বিন  ১৪২৭  সোমবার ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

কৃষকদের জন্য প্রতি ব্লকে ধানের গুদাম গড়বে রাজ্য

Published by: Sangbad Pratidin Digital |    Posted: June 20, 2016 3:15 pm|    Updated: June 20, 2016 3:15 pm

An Images

ব্রতদীপ ভট্টাচার্য: রাজ্যে দ্বিতীয়বার ক্ষমতায় এসেছে তৃণমূল সরকার৷ মন্ত্রিসভা গঠন হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তৎপর খাদ্য দফতর৷ রাজ্যের মানুষকে দু’টাকা কিলো চাল দেওয়ার পাশাপাশি চালের গোডাউন তৈরি করেছে খাদ্য দফতর৷ এবার শুধু চাল নয়৷ কৃষকদের কথা মাথায় রেখে ধান জমা রাখার জন্য প্রত্যেক ব্লকে গোডাউন বানানোর উদ্যোগ নিয়েছে খাদ্য দফতর৷ কৃষকরা বিনামূল্যে এই গোডাউনে ধান জমা রাখতে পারবেন৷ এমনটাই জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক৷
এবার কৃষকদের সুবিধার্থে অভিনব উদ্যোগ নিতে চলেছে খাদ্য দফতর৷ খাদ্যমন্ত্রী জানান, রাজ্যের সর্বত্র প্রত্যেক ব্লকে কৃষকদের জন্য তৈরি করা হবে ধানের গোডাউন৷ কৃষকরা বিনা খরচে চাষের ধান এই গোডাউনে মজুত করে রাখতে পারবেন৷ প্রত্যেক ব্লকের বিডিও অফিস থেকে পরিচালনা করা হবে এই গোডাউনগুলি৷ খাদ্যমন্ত্রী জানান, খেত থেকে ধান কাটা হয়ে গেলে রাখার জায়গার অভাবে কৃষকরা ধান রাখতে পারেন না৷ ধান ভেঙে চাল করে নিলে সেই চাল দীর্ঘদিন ফেলে রাখা যায় না৷ তাই লোকসান হলেও সেই চাল বিক্রি করে দেন কৃষকরা৷ ধানের গোডাউন হলে সেই ধান আরও বেশি সময় পর্যন্ত কৃষকরা রেখে দিতে পারবেন ও সঠিক সময় তা বিক্রি করতে পারবেন৷ কৃষকদের সুবিধার্থে রাজ্যের খাদ্য দফতরের এই অভিনব উদ্যোগে আশার আলো দেখতে পাচ্ছেন রাজ্যের কৃষকরা৷
গত পাঁচ বছরে রাজ্যের মানুষকে বিভিন্ন প্রকল্প উপহার দিয়েছে খাদ্য দফতর৷ দীর্ঘদিনের দুর্নীতিগ্রস্ত রেশন ব্যবস্থায় স্বচ্ছতায় এসেছে৷ নিম্নমানের খাদ্য সামগ্রীর বদলে মানুষ ভাল মানের জিনিস পাচ্ছে৷ এমনটাই দাবি রাজ্যের খাদ্যমন্ত্রীর৷ সাধারণ মানুষের প্রতিক্রিয়াতেও খাদ্যমন্ত্রীর এই বক্তব্যের সঙ্গে মিল পাওয়া যায়৷ খাদ্যমন্ত্রী আরও জানান, রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে চাল ও অন্যান্য খাদ্য সামগ্রী মজুত রাখার জন্য গোডাউন আগেই তৈরি করা হয়েছে৷ গত পাঁচ বছরে রাজ্যে মোট ৫ লক্ষ ৯১ হাজার মেট্রিক টনের গোডাউন তৈরি করা হয়েছে৷ খাদ্যমন্ত্রী জানান, আগামী পাঁচ বছরে এই সংখ্যা বাড়িয়ে মোট ১২ লক্ষ মেট্রিক টনের গোডাউন তৈরি করা হবে রাজ্য জুড়ে৷ শুধু তাই নয় রাজ্যের প্রত্যন্ত এলাকাগুলিতে অতিরিক্ত চালের গোডাউন তৈরি করার পরিকল্পনা নেওয়া হচ্ছে বলে জানান খাদ্যমন্ত্রী৷ প্রাকৃতিক বিপর্যয় অথবা আপৎকালীন পরিস্থিতির সময়ে খুব সহজেই মানুষকে খাদ্য সামগ্রী দেওয়ার জন্যই এই সিদ্ধান্ত বলে জানান মন্ত্রী৷

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement