BREAKING NEWS

১৩ জ্যৈষ্ঠ  ১৪২৭  বুধবার ২৭ মে ২০২০ 

Advertisement

বিদ্যুতের দাবিতে রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ, জনতা-পুলিশ সংঘর্ষে উত্তপ্ত কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়ে

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: May 23, 2020 12:29 pm|    Updated: May 23, 2020 1:06 pm

An Images

ব্রতদীপ ভট্টাচার্য ও সুরজিৎ দেব: আমফান পরবর্তী সময়ে টানা তিনদিন বিদ্যুৎ নেই, জলকষ্টেও ভুগতে হচ্ছে। এই অবস্থায় ধৈর্যের বাঁধ যেন আর মানছে না আমজনতার। শুক্রবারও দেখা গিয়েছে আমফান বিধ্বস্ত জেলা বিভিন্ন প্রান্তে জল, বিদ্যুৎ ফেরানোর দাবিতে বিক্ষোভ। শনিবারও তার ব্যতিক্রম হল না। উত্তর ২৪ পরগনার খড়দহের কাছে কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়েতে বিক্ষোভকারীদের হঠাতে গিয়ে হামলার মুখে পড়তে হল পুলিশকে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশও পালটা লাঠিচার্জ করে। অন্যদিকে, মহেশতলার কাছে বজবজ ট্রাঙ্ক রোড অবরোধ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তা তুলতে গেলে জনতা-পুলিশ খণ্ডযুদ্ধ বাঁধে।

আজ সকাল থেকে খড়দহের কাছে কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়ের দোগেড়িয়া মোড়ে রাস্তা অবরোধ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। তাঁদের অভিযোগ, তিনদিন ধরে বিদ্যুৎ নেই। বিদ্যুৎ অফিসে বারবার আবেদন জানানো সত্বেও সুরাহা হচ্ছে না। অফিসার, কর্মীরা টালবাহানা করছেন বলে অভিযোগ তুলে সকালেই প্রতিবাদে শামিল হন বাসিন্দারা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে অবরোধ তোলার চেষ্টা করে খড়দহ থানার পুলিশ। তাতে উলটে পুলিশকেই হামলার মুখে পড়তে হয়। এরপর তারাও পালটা লাঠিচার্জ করে। এছাড়া সকাল থেকে হাবড়াতেও বিক্ষোভ দেখান সাধারণ মানুষ।

[আরও পড়ুন: ২৪ ঘণ্টায় উত্তরবঙ্গে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা, ভিজতে পারে কলকাতা-সহ দক্ষিণের কয়েকটি জেলাও]

শুক্রবার রাতে টিটাগড়ের কাছে এই বিদ্যুৎ, জলের দাবিতে তুমুল উত্তেজনা হয়। বিটি রোড অবরোধ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পুলিশের সঙ্গে তুমুল বচসার পর একটি খড়বোঝাই গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয় উত্তেজিত জনতা। রাত প্রায় ১১টা নাগাদ এমন পরিস্থিতির কথা শুনে ঘটনাস্থলে বারাকপুর পুলিশ কমিশনারেটের বিশাল পুলিশ বাহিনী টিটাগড়ে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে। এছাড়া কামারহাটি, বেলঘরিয়ার নীলগঞ্জ রোড এবং ওল্ড নিমতা রোডে অবরোধ করেন এলাকাবাসী।

Titagarh-block

অন্যদিকে, আজ দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার মহেশতলা পৌরসভার ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের স্থানীয় মানুষজন বিদ্যুতের দাবিতে BBT রোড অবরোধ করে সারেঙ্গাবাদ এলাকায়। অবরোধকারীদের দাবি গতকাল রাত আটটার সময় বিদ্যুতের দাবীতে স্থানীয়রা পথ অবরোধ করলে, তখন পুলিশ প্রশাসন এবং সিইএসসি র পক্ষ থেকে বলা হয় আজ সকালে বিদ্যুৎ ব্যবস্থা পুনরায় চালু করা যাবে। কিন্তু সকাল নটা বেজে গেলেও কোন প্রকার হেলদোল কারও পক্ষ থেকে না দেখানোয়, আজ সকাল নটায় স্থানীয়রা পুনরায় বজবজ ট্রাঙ্ক রোড অবরোধ করে। অবরোধ তুলতে গেলে পুলিশের সঙ্গে স্থানীয়দের বচসা এবং হাতাহাতি বেঁধে যায়। যদিও পরবর্তী সময়ে স্থানীয়রা পুলিশের অনুরোধে অবরোধ তুলে নেয়। প্রায় ঘণ্টা দেড়েক চলে এই অবরোধ, আপাতত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement