২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: বাম-কংগ্রেসের শান্তি মিছিলকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা ভাটপাড়ায়৷ দু’বার মিছিল আটকানোর অভিযোগ উঠেছে পুলিশের বিরুদ্ধে৷ এবং এরপরই পুলিশের শীর্ষ কর্তাদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন সোমেন মিত্র, বিমান বসুরা৷ পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে জড়িয়ে পড়েন বাম-কংগ্রেস কর্মীরা৷ এলাকার পরিস্থিতি বেশ গরম হয়ে ওঠে৷ বিশাল বাহিনী নিয়ে এলাকার পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেন বারাকপুরের পুলিশ সুপার মনোজ ভার্মা৷

[ আরও পড়ুন: ধরনাতেই জয় হল মাফুজার, প্রেমের টানে বিয়ের পিঁড়িতে বসলেন প্রেমিক]

জানা গিয়েছে, পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী মঙ্গলবার বিকালে ভাটপাড়া স্টেশন থেকে শান্তি মিছিল শুরু করে বাম-কংগ্রেস নেতৃত্ব৷ পুরোভাগে থেকে মিছিলে নেতৃত্ব দিয়ে দেন বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু ও প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্র৷ দু’দলের নেতাদেরই অভিযোগ, একদম শুরুতেই মিছিল আটকায় পুলিশ৷ তাঁদের শান্তিপূর্ণ মিছিলকে অশান্ত করে তোলার চেষ্টা করা হয়৷ সূত্রের খবর, মিছিল আটকালে নেতাদের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন বাম-কংগ্রেস নেতারা৷ কথাবার্তার মাধ্যমে তাঁদের মিছিলকে বন্ধ করার চেষ্টা করেন পুলিশ কর্তারা৷ কিন্তু তাতেও কোনও কাজ হয়নি৷ স্থানীয় সূত্রে খবর, পুলিশের ব্যারিকেড ভেঙে এগিয়ে যান বাম-কংগ্রেস নেতা-কর্মীরা৷ এরপর আবারও ভাটপাড়া পুরসভার সামনে সেই মিছিল আটকায় পুলিশ৷ দু’দলের নেতৃত্বকে বোঝানোর চেষ্টা করে বারাকপুরের পুলিশ সুপার মনোজ ভার্মা৷ অবশেষে, বিমান বসু, সোমেন মিত্রদের নিয়ে ভাটপাড়া থানায় বৈঠক করেন তিনি৷ অশান্ত ভাটপাড়ায় শান্তি প্রতিষ্ঠা করতেই তাঁদের এই মিছিল বলে জানান সোমেন মিত্র ও বিমান বসুরা৷ এ জন্য সকল রাজনৈতিক দলের এগিয়ে আসা উচিত বলে দাবি করেন তাঁরা৷

[ আরও পড়ুন: কর্মিসভায় ঢুকে ভিডিও রেকর্ডিং, মেজাজ হারিয়ে সাংবাদিককে ঘাড় ধাক্কা সুব্রত বক্সির ]

প্রসঙ্গত, দুই স্থানীয় যুবকের মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে কয়েক দিন আগেই নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে ভাটপাড়া-কাঁকিনাড়ার মতো এলাকা৷ স্থানীয়রা অভিযোগ করেন, পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হয়েছে এলাকার ১৭ বছরের বাসিন্দা রামবাবু সাউ, বছর চল্লিশের ধরমবীর সাউয়ের৷ ইতিমধ্যে ভাটপাড়ায় মৃত দুই ব্যক্তির পরিবারের সঙ্গে দেখা করেছে বিজেপির সংসদীয় দল৷ যে প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন বর্ধমান-দুর্গাপুরের সাংসদ এসএস আলুওয়ালিয়া৷ এছাড়া প্রতিনিধি দলে ছিলেন বিজেপি সাংসদ সত্যপাল সিং ও বিডি রাম৷ দোষীদের চরম শাস্তি দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন তাঁরা৷ পাশাপাশি মৃতদের পরিবারকে ১০ লক্ষ টাকা করে আর্থিক সাহায্য দেওয়ারও ঘোষণা করেছে গেরুয়া শিবির৷ স্থানীয় পুলিশ প্রশাসন ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন বারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং৷ বৈঠকে সকল পক্ষকে সবরকম ভাবে এলাকায় শান্তি ফেরানোর আবেদন করা হয়েছে প্রশাসনের তরফে৷

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং