২ কার্তিক  ১৪২৬  রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ 

Menu Logo পুজো ২০১৯ মহানগর রাজ্য দেশ ওপার বাংলা বিদেশ খেলা বিনোদন লাইফস্টাইল এছাড়াও বাঁকা কথা ফটো গ্যালারি ভিডিও গ্যালারি ই-পেপার

দেবব্রত মণ্ডল, বারুইপুর: সময় পালটাচ্ছে, আধুনিক হচ্ছে মানুষ। কিন্তু তা সত্ত্বেও মধ্যযুগীয় কুসংস্কার যেন কিছুতেই পিছু ছাড়ছে না। ফের তা প্রমাণিত হল  দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তীর ঘটনায়। ফের কুসংস্কারের বলি হতে হল এক নাবালিকাকে। সাপে কামড়ানোর পর গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় কিশোরীকে হাসপাতালের পরিবর্তে নিয়ে যাওয়া হয় ওঝার কাছে। চলে ঝাড়ফুঁক। তাতে কাজ না হওয়ায় কিশোরীকে পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও শেষ রক্ষা হয়নি। 

[আরও পড়ুন: ১৫ লক্ষ টাকা মুক্তিপণ না পেয়ে কিশোরীকে খুন, আসানসোলে উদ্ধার অর্ধনগ্ন দেহ]

সোমবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তী থানার জয় গোপালপুর গ্রামে। জানা গিয়েছে, অন্যান্যদিনের মতোই এদিন রাতে খাওয়াদাওয়া সেরে ঘুমোতে যায় রিমি মণ্ডল নামে ওই কিশোরী। সেই সময় বিছানায় তাকে সাপে কামড়ায়। যন্ত্রণায় ছটফট করতে থাকে সে। বিষয়টি পরিবারের সদস্যদের নজরে পড়তেই হাসপাতালের পরিবর্তে তড়িঘড়ি তাকে নিয়ে ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে দীর্ঘক্ষণ ধরে চলে ঝাড়ফুঁক-তুকতাক। কিন্তু তা সত্ত্বেও ক্রমশ অবস্থার অবনতি হচ্ছিল ওই কিশোরীর।

এরপর রিমিকে ওঝার বাড়ি থেকে বাসন্তী গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যান পরিবারের সদস্যরা। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে ক্যানিং হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়। সেখানে ভরতির কিছুক্ষণের মধ্যেই মৃত্যু হয় ওই কিশোরীর।

হাসপাতাল সূত্রে খবর, সাপ কামড়ানোর পরপরই চিকিৎসা শুরু না করে দীর্ঘ সময় চলে যায় ঝাড়ফুঁকে। ততক্ষণে ওই কিশোরীর গোটা শরীরে ছড়িয়ে পড়ে বিষ। যার জেরে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ অকেজো হয়ে পড়তে শুরু করে। তাই পরে হাসপাতালে ইঞ্জেকশন দেওয়া হলেও তা কাজে লাগেনি বলেই দাবি চিকিৎসকদের। সেই কারণেই মৃত্যু হয় কিশোরীর। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে দেহটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠায়।

প্রসঙ্গত, কয়েকদিন আগেই দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলতলি এলাকায় সাপ কামড়ানোর পর হাসপাতালের পরিবর্তে ওঝা ডেকে ঝাড়ফুঁকের কারণে মৃত্যু হয়েছিল একজনের। কয়েকদিনের ব্যবধানে ফের একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি প্রশ্ন তুলে দিচ্ছে, গ্রামবাংলায় সচেতনতা বাড়ছে কোথায়? অন্ধকার কাটছে কই?

[আরও পড়ুন: সদস্য সংগ্রহ লক্ষ্যপূরণে ব্যর্থ, দলীয় নির্দেশে মাঠে নামলেন পুরুলিয়ার বিজেপি সাংসদ]

আরও পড়ুন

আরও পড়ুন

ট্রেন্ডিং