BREAKING NEWS

২ আশ্বিন  ১৪২৭  রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০ 

Advertisement

ফের রাতের অন্ধকারে হামলা, আম্বেদকরের মূর্তি ভাঙা ঘিরে চাঞ্চল্য অন্ডালে

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: April 23, 2020 3:01 pm|    Updated: April 23, 2020 3:14 pm

An Images

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, দুর্গাপুর: লকডাউনের শুনশান পরিবেশের মাঝেই মূর্তি ভাঙা নিয়ে চাঞ্চল্য দুর্গাপুরের অন্ডালে। শ্যামসুন্দরপুর কোলিয়ারির একটি পার্কে সংবিধান প্রণেতা বিআর আম্বেদকরের মূর্তির একটি হাত ভাঙা। আজ সকালে এই দৃশ্য চোখে পড়ে স্থানীয় বাসিন্দাদের। তাঁরা খবর দেন অন্ডাল থানায়। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে তদন্ত শুরু করেছে। কে বা কারা এমন কাজ করল, সে বিষয়ে এখনও অন্ধকারে তদন্তকারীরা।

Ambedkar-statue1

নীল পোশাক পরিহিত বাবাসাহেব আম্বেদকরের একটি মূর্তি বসানো শ্যামসুন্দরপুর কোলিয়ারি এলাকায়। বাঁ হাতে ধরা সংবিধান। বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় মানুষজন দেখেন, ডান হাতের কাঁধের জায়গা থেকে ভাঙা। ওই হাতেরই আঙুলের কিছুটা অংশও ভেঙে ফেলা হয়েছে। এই দৃশ্য দেখে কিছুটা হতভম্ব হয়ে যান তাঁরা। এরপরই তড়িঘড়ি খবর দেন পুলিশে। আম্বেদকর সেবা সমিতির পক্ষ থেকে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে অন্ডাল থানায়।

[আরও পড়ুন: করোনা পজিটিভ উত্তরবঙ্গ মেডিক্যালের আক্রান্ত নার্সের ২১ মাসের সন্তান, ভরতি কোভিড হাসপাতালে]

অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে সবটা খতিয়ে দেখে। শুরু হয়েছে তদন্ত। বাবা সাহেব আম্বেদকর সেবা সমিতির সম্পাদক লক্ষ্মীরাম হরিজন জানান, “মূর্তি ভাঙার বিষয়টি সকালে স্থানীয় বাসিন্দাদের মারফত জানতে পারি। অত্যন্ত নিন্দনীয় ও দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা। কে বা কারা ভেঙেছে, জানি না। পুলিশকে লিখিত অভিযোগ করেছি। তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিক তারা।”

[আরও পড়ুন: মৌসুনি দ্বীপে দুস্থদের খাদ্য সামগ্রী বণ্টন এসএসকেএমের চিকিৎসকদের, দিলেন মাস্ক-স্যানিটাইজারও]

মূর্তি ভাঙার ঘটনা এই প্রথম নয়। এর আগে বাংলার নানা প্রান্তে বিভিন্ন মনীষীদের মূর্তি এমন হামলার মুখে পড়েছে। ভেঙেচুরে তাঁদের অবমাননার মতো লজ্জাজনক ঘটনার নজির থেকেছে বাংলা ছাড়াও দেশের নানা প্রান্ত। কখনও স্বামী বিবেকানন্দ, কখনও মহাত্মা গান্ধী, কখনও বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙার ঘটনা প্রকাশ্যে এসেছে। এবার সংবিধান প্রণেতা বিআর আম্বেদকরের মূর্তির উপরও হামলা। এমন নিন্দনীয় কাজে যারা জড়িত, তাদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে শাস্তির দাবি তুলছেন অন্ডালবাসী।

ছবি: উদয়ন গুহরায়।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement