ad
ad
Arms

রাজ্য পুলিশের এসটিএফের বড় সাফল্য, বাংলা-ঝাড়খণ্ড সীমানায় বিপুল অস্ত্র-সহ গ্রেপ্তার ২

বিহার থেকে আনা হয়েছিল অস্ত্রগুলি, অনুমান এসটিএফের।

STF of West Bengal Police arrested two from Salanpur, West Burdwan with huge arms and ammunitions | Sangbad Pratidin
Published by: Sucheta Sengupta
  • Posted:September 5, 2022 12:41 pm
  • Updated:September 5, 2022 12:52 pm

শেখর চন্দ্র, আসানসোল: ফের বাংলা-ঝাড়খণ্ড সীমানা থেকে উদ্ধার হল বিপুল পরিমাণ অস্ত্রশস্ত্র। পশ্চিম বর্ধমানের সালানপুরে (Salanpur) রাজ্য পুলিশের এসটিএফের অভিযানে অস্ত্র উদ্ধারের পাশাপাশি দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ওয়ান শটার, পিস্তল, কার্তুজ-সহ একাধিক আগ্নেয়াস্ত্রের সিজার লিস্ট তৈরি করেছে এসটিএফের। ভাগলপুর ও মুঙ্গের থেকে অস্ত্রগুলি আনা হচ্ছিল বলে অনুমান তদন্তকারীদের। কোথায় সেসব পাচার হচ্ছিল, তা জানার চেষ্টা চলছে।

সামনে দুর্গাপুজো, বছর পেরলেই পঞ্চায়েত নির্বাচন (Panchayet Election)। তার আগে বাংলা-ঝাড়খণ্ড সীমানার সালানপুর (Salanpur)এলাকার রূপনারায়ণপুরের বিহার রোড থেকে অস্ত্রশস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় নতুন করে আতঙ্ক ছড়াল। নিরাপত্তা নিয়ে একাধিক প্রশ্নও উঠল। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে এসটিএফের একটি দল অভিযান চালায় সালানপুরের রূপনারায়ণপুরের বিহার রোড। সেখানে থেকে পিস্তল, কার্তুজ-সহ একাধিক সামগ্রী বাজেয়াপ্ত করেছে পুলিশ। সূত্রের খবর, উদ্ধার হয়েছে –

  • ২টি নাইন এমএম মেশিন কার্বাইন, ৩টি ম্যাগাজিন
  • ২টি সেভেন এমএম পিস্তল
  • ৩টি নাইন এমএম পিস্তল
  • ৫টি ওয়ান শটার
  • এছাড়া মোট ৩৫ রাউন্ড কার্তুজ

অস্ত্র নিয়ে যাওয়ার সময় এসটিএফের হাতে গ্রেপ্তার হয়েছে ২ জন। তাদের নাম ছোটু ও বলরাম। বিহারের মুঙ্গের (Munger) ও ভাগলপুর (Bhagalpur) থেকে সেসব নিয়ে আসা হচ্ছিল বলে অনুমান। ছোটু-বলরামের মাধ্যমে তা এ রাজ্যে পাচারের ছক ছিল। কিন্তু কোথায় কোথায় অস্ত্র সরবরাহ করা হত, তা জানতে মরিয়া তদন্তকারীরা। সালানপুর থানায় তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। আজ তাদের আসানসোল আদালতে পেশ করা হবে।

[আরও পড়ুন: এসেছিলেন ভাইপোকে ভরতি করাতে, এখন বিনা বেতনে সেই স্কুলেরই শিক্ষক ‘মিলন মাস্টার’]

এমনিতেই এই রাজ্যে ‘মুঙ্গেরি’ অস্ত্রের কারবার বহুদিনের। বিভিন্ন সময়ে বিশেষত নির্বাচনের আগে এই আনাগোনা আরও বাড়ে। এবারও তাই এত সংখ্যক অস্ত্র বিহার থেকে  আসার নেপথ্যে বড়সড় কোনও চক্র সক্রিয় হচ্ছে বলেই আশঙ্কা এসটিএফের। 

Sangbad Pratidin News App

খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ