BREAKING NEWS

২১ শ্রাবণ  ১৪২৭  বৃহস্পতিবার ৬ আগস্ট ২০২০ 

Advertisement

মালদহে টোটো বিস্ফোরণের ঘটনায় বাড়ছে রহস্য, NIA তদন্তের দাবি সাংসদের, ঘটনাস্থলে STF

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: July 2, 2020 4:39 pm|    Updated: July 2, 2020 4:42 pm

An Images

বাবুল হক, মালদহ: সাধারণ বিস্ফোরণ নয়, উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন কোনও বিস্ফোরক ফেটে টোটোচালকের দেহ ছিন্নভিন্ন হয়ে গিয়েছে। বুধবার বিকেলে মালদহ শহরে টোটো বিস্ফোরণের ঘটনায় প্রায় নিশ্চিত এলাকাবাসী। বিষয়টি নিয়ে হইহই শুরু হতেই গুরুত্ব বুঝে প্রশাসনের তরফে এসটিএফকে পাঠানো হচ্ছে সেখানে। বৃহস্পতিবার সেখানে পৌঁছচ্ছে এসটিএফের তদন্তকারী দল। এছাড়া বিস্ফোরণ নিয়ে খোঁজখবর নিয়েছে NIA-ও। জাতীয় সংস্থাকে দিয়ে তদন্ত করানোর দাবি তুলেছেন উত্তর মালদহের বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মু।

বুধবার বিকেলে মালদহের ঘোড়াপীর এলাকা আচমকাই কেঁপে ওঠে প্রচন্ড শব্দে। ধোঁয়ায় ঢেকে যায় চারপাশ। বিস্ফোরণে ছিন্নভিন্ন হয়ে মৃত্যু হয় টোটো চালকের দেহ। পরে বোঝা যায়, তাঁর টোটোতেই ভয়ংকর বিস্ফোরণটা ঘটেছে। চালকের মাথা, হাত, পা বিচ্ছিন্ন হয়ে বিভিন্ন দিকে ছড়িয়ে পড়ে। ফলে তাঁর দেহ এদিন শনাক্ত করা সম্ভব হয়নি। তবে পরে তাঁর নাম, পরিচয় জানতে পারে পুলিশ। মৃত চালক সুজাপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ব্রমৌত্তর এলাকার বাসিন্দা ইলিয়াস শেখ।

[আরও পড়ুন: বন্ধুর ফোন পেয়ে রাতে বাড়ি থেকে বেরনোই কাল, সকালে পুকুরে মিলল কিশোরীর দেহ]

এই ঘটনার পর সকলের প্রাথমিক অনুমান ছিল, টোটোর ব্যাটারি বিস্ফোরণ হয়ে এমন দুর্ঘটনা ঘটেছে। যদিও দুর্ঘটনার ধরন দেখে অনেকে এই অনুমানও করেছিলেন, ব্যাটারিতে এত জোরাল বিস্ফোরণ হয় না। টোটোয় বিস্ফোরক ছিল কি না, তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেন অনেকে। যদিও বৃহস্পতিবার পর্যন্ত পুলিশ দাবি করেছে, অন্য কোনও বিস্ফোরকের খোঁজ মেলেনি। জেলা পুলিশ সুপার অলোক রাজোরিয়া বলেন, ”নমুনায় এখনও বারুদের হদিশ পাইনি। ব্যাটারি বিস্ফোরণ হয়েছে বলেই মনে হচ্ছে। ১২ দিন আগে চালক কালিয়াচকের একটি দোকান থেকে ব্যাটারি বদল করেছিলেন বলে জানা গিয়েছে। সেই দোকানে গিয়েও খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে।” গ্রামবাসীদের অভিযোগ, পুলিশ আসল সত্য ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করছে। এদিকে আজ ঘটনাস্থলে যাচ্ছে স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্সের (STF) আধিকারিকরা। তাঁরা সবদিক খতিয়ে দেখতে পারেন। আজ ফরেনসিক দলের যাওয়ার কথা থাকলেও, কেউ যাননি। শুক্রবার ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা যাবেন বলে খবর।

[আরও পড়ুন: সাপে কাটার পর ঝাড়ফুঁক, পরে হাসপাতালে নিয়ে গিয়েও বাঁচানো গেল না যুবককে]

বৃহস্পতিবার ঘটনাস্থলে যান উত্তর মালদহের বিজেপি সাংসদ খগেন মুর্মু। তাঁর কথায়, ”টোটোর ব্যাটারি বিস্ফোরণে কারও দেহ এমন ছিন্নভিন্ন হতে পারে না। অন্য কোনও বিস্ফোরক ছিল। খাগড়াগড় থেকেই দেখা যাচ্ছে, নানা জায়গায় এমন ঘটে চলেছে। একমাত্র NIA তদন্ত করলেই সত্যিটা বেরিয়ে আসবে। তাই এই তদন্তে NIAকে চাই।” সূত্রের খবর, ঘটনার খবর পেয়ে NIAও এ নিয়ে খোঁজখবর করেছে। গতিপ্রকৃতির দিকে নজর রাখছেন সংস্থার আধিকারিকরা। এসটিএফের পাশাপাশি কি তাহলে মালদহের ভয়াবহ বিস্ফোরণের তদন্তভার যাবে NIA’র হাতে? সেই অবকাশ থাকছেই।

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement