BREAKING NEWS

১ মাঘ  ১৪২৭  শুক্রবার ১৫ জানুয়ারি ২০২১ 

READ IN APP

Advertisement

‘তোলাবাজ ভাইপোর দলকে বাংলা ছাড়া করবই’, ফের তৃণমূলকে উৎখাতের ডাক শুভেন্দুর

Published by: Tiyasha Sarkar |    Posted: January 3, 2021 1:58 pm|    Updated: January 3, 2021 1:58 pm

An Images

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ঝাড়গ্রাম থেকে ফের তৃণমূলকে উৎখাতের ডাক দিলেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। নিশানা করলেন মুখ্যমন্ত্রী ও সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আবারও চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে বললেন, “একুশে বিজেপি ক্ষমতায় আসবেই।”

প্রায় প্রতিদিনই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের বহু মানুষ যোগ দিচ্ছেন পদ্মশিবিরে। রবিবার ঝাড়গ্রামের (Jhargram) লোধাশুলিতে আয়োজন করা হয়েছিল যোগদান কর্মসূচির। বেলা ১২ টা নাগাদ সেখানে পৌঁছন শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। জানান, রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের (Dilip Ghosh) নির্দেশেই সেখানে গিয়েছেন তিনি। এরপরই সভামঞ্চ থেকে শাসকদলকে নিশানা করেন তিনি। রাজ্যের বেকারত্ব, দরিদ্রদের দুর্দশার জন্য মুখ্যমন্ত্রীকে দায়ী করে বলেন, “রাজ্য কেন্দ্রের প্রকল্পগুলোর নাম পালটে নিজেদের নামে চালাচ্ছে। আদতে মানুষের কোনও লাভ হচ্ছে না। কেন্দ্রের প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছে না। তাই মোদিজির হাতে বাংলাকে তুলে দিতেই হবে। কেন্দ্র-রাজ্যে এক সরকার এলে তবেই মানুষের সুদিন ফিরবে।” এরপরই সুর চড়িয়ে শুভেন্দু বলেন, “তোলাবাজ ভাইপোর পার্টিকে হারাতেই হবে। ভোটে ওদের অর্ধনগ্ন করে ছাড়তে হবে। হাওয়া করে দিতে হবে। দিলীপ-শুভেন্দু বাংলায় পদ্ম ফোটাবেই। দক্ষিণ কলকাতার দেড়জনের কোম্পানিকে হারাবই।”

[আরও পড়ুন: বিজেপিতে যোগ দিলেন বেচারাম মান্নার ‘জেঠতুতো ভাই’, আত্মীয় মানতে নারাজ তৃণমূল বিধায়ক]

এরপরই ফিরে আসেন বিজেপির সঙ্গে তাঁর ‘ডিল’ প্রসঙ্গে। বলেন, “বিজেপির সঙ্গে আমার ডিল হয়েছে প্রতিবছর এসএসসি করতে হবে। বেকারত্ব দূর করতে হবে।” এদিন ফের শাসকদলের বিরুদ্ধে ভোটে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে সরব হন শুভেন্দু। আমফানের (Amphan) ত্রাণ থেকে শুরু করে সমস্ত প্রকল্পে কাটমানি নেওয়া ও স্বজনপোষণের অভিযোগ করে তিনি বলেন, “ঝাড়গ্রামের প্রত্যন্ত এলাকায় অধিকাংশ মানুষের বাড়ি কাঁচা। কিন্তু তৃণমূল নেতাদের পাকা বাড়ি-গাড়ি। যার কিছুদিন আগেও কিছু ছিল না। আজ তিনি প্রচুর সম্পত্তির মালিক।” সব মিলিয়ে আজও শুভেন্দুর নিশানায় ছিল শাসকদল। সেই সঙ্গে লক্ষ্যে অবিচল তিনি। ‘বাংলায় পদ্ম ফোটাবই’, চ্যালেঞ্জ শুভেন্দুর।

[আরও পড়ুন: পীরজাদা আবাস সিদ্দিকির সঙ্গে সাক্ষাৎ ওয়াইসির, রাজ্য রাজনীতিতে নতুন সমীকরণের ইঙ্গিত]

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement