১৪ চৈত্র  ১৪২৬  শনিবার ২৮ মার্চ ২০২০ 

Advertisement

মুখ্যমন্ত্রীর ধমকই সার, অণ্ডালে সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্যে বন্ধ রাস্তা নির্মাণ

Published by: Sucheta Chakrabarty |    Posted: February 20, 2020 5:31 pm|    Updated: February 22, 2020 3:29 pm

An Images

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, দুর্গাপুর: অণ্ডাল বিমানবন্দরে রাস্তার নির্মাণ আটকাল স্থানীয় সিন্ডিকেট। বিমাননগরীর মুল রাস্তা নির্মাণ আটকে যাওয়ায় প্রশ্নের মুখে প্রশাসন ও পুলিশের তৎপরতা। ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য অণ্ডাল বিমাননগরীতে।

মুখ্যমন্ত্রীর স্বপ্নের প্রকল্প অণ্ডাল বিমাননগরী। মুখ্যমন্ত্রীর এই স্বপ্নপূরণে দুই নম্বর জাতীয় সড়ক থেকে অণ্ডাল বিমানবন্দর যাওয়ার রাস্তা সংস্কারের উদ্যোগ নেয় পূর্ত দপ্তর। ৪.৩৫ কিলোমিটার লম্বা এই রাস্তার জন্য বরাদ্দ করা হয় প্রায় ৯৫ লক্ষ টাকা। দুই নম্বর জাতীয় সড়কের মেরামতির বরাত পান কাঁকসার এক ঠিকাদার সংস্থা। তবে বৃহস্পতিবার এই সংস্কারের কাজ করতে গিয়েই বিপত্তি বাধে। এদিন সকাল ছ’টা নাগাদ ঠিকাদার সংস্থার পাথর বোঝাই গাড়ি বিমানবন্দর এলাকাতে পৌঁছাতেই পথ আটকায় অণ্ডালের সিন্ডিকেট বাহিনী। তাঁদের দাবি, তাঁদের কাছ থেকে নির্মাণ সামগ্রী না নিলে রাস্তার কাজ করতে দেওয়া হবেনা। গাড়ি থেকে গাড়ি চালকদের নামিয়েও দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ করেন সিন্ডিকেটের সদস্যরা। খবর পেয়ে সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার সংস্থা ও পূর্ত দপ্তরের আধিকারিকরা ঘটনাস্থলে এসেও কোন সমাধান সূত্রে বের করতে পারেনি। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সিন্ডিকেটের সদস্যদের প্রভাবও বাড়তে থাকে। বাধ্য হয়েই পূর্ত দপ্তর দুর্গাপুরের মহকুমা শাসকের দ্বারস্থ হয়। মহকুমা শাসকের নির্দেশে ঘটনাস্থলে অণ্ডাল থানার পুলিশ যায়। পুলিশের উপস্থিতিতে পাথরবোঝাই গাড়ি খালি করা হয়।

[আরও পড়ুন: কন্যাসন্তান-সহ অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত বধূ, আত্মহত্যায় প্ররোচনার অভিযোগে ধৃত স্বামী]

মহকুমা শাসক অনির্বাণ কোলে জানান, “পূর্ত দপ্তরের পক্ষ থেকে বিষয়টি আমাকে জানানো হয়। আমি স্থানীয় বিডিওকে বিষয়টি দেখতে বলি। স্থানীয় গ্রামবাসীরা তাদের কাছ থেকে নির্মাণ সামগ্রী নেওয়ার জন্যে বলে। তাই নিয়ে কিছু সমস্যা হলেও আমরা ওই ঠিকাদার নিজের ইচ্ছায় সামগ্রী নেবে বলে নির্দেশ দিই। তারপর সমস্যা মিটেও যায়।” নির্মাণ সামগ্রীর দাম আলোচনার মাধ্যমে সিন্ডিকেট কমানোর পর বিবাদ মিটে যায়। বিবাদের জেরে এদিন কোন কাজ না হলেও শুক্রবার থেকে ফের কাজ শুরু হবে বলে জানিয়েছে নির্মাণ সংস্থার ঠিকাদার দেবব্রত বিশ্বাস।

ছবি: উদয়ন গুহরায়

Advertisement

Advertisement

Advertisement

Advertisement