BREAKING NEWS

১৯  মাঘ  ১৪২৯  রবিবার ৫ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ 

READ IN APP

Advertisement

উৎসবের আবহে বিষাদের সুর দুর্গাপুরে, বিপাকে কয়েক হাজার শ্রমিক

Published by: Kumaresh Halder |    Posted: October 21, 2018 5:14 pm|    Updated: October 21, 2018 5:14 pm

Thousands of Durgapur workers in the face of uncertain future

সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়, দুর্গাপুর: উমা বিদায়ের বিষাদের আবহে আরও মন ভাঙল দুর্গাপুরের৷ দ্বাদশীতে দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানা পরিদর্শনে গিয়ে শ্রমিকদের কোনও আলোর দিশা দেখাতে পারলেন না স্টিল অথরিটি অফ ইন্ডিয়ার (সেইল) চেয়ারম্যান অনিল কুমার চৌধুরী৷ উলটে, কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত বলেই শ্রমিক সংগঠনগুলিকে ইঙ্গিত  দিয়েছেন সেইলের চেয়ারম্যান৷

[নির্ভয়াকাণ্ডের ছায়া রাজ্যে, গণধর্ষণের পর গৃহবধূর যৌনাঙ্গে ঢোকানো হল রড]

দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানায় রেলের চাকা তৈরির কাজ চলছে৷ ইতিমধ্যেই ডিএসপি থেকে মেট্রো রেলের জন্যে চাকাও পাঠানো হয়েছে৷ সেই প্রক্রিয়াই পরিদর্শন করতে দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানা পরিদর্শনে যান সেইলের নবনিযুক্ত চেয়ারম্যান অনিল কুমার চৌধুরী৷ কারখানা পরিদর্শনের পর শ্রমিক সংগঠনগুলির সঙ্গেও বৈঠক করন তিনি৷ সেখানেই বিভিন্ন দাবির সঙ্গে মিশ্র ইস্পাত কারখানার আধুনিকীকরণ ও সম্প্রসারণের দাবি জানান শ্রমিক সংগঠনগুলি প্রতিনিধিরা৷ কেন্দ্রীয় সরকারের কৌশলগত বিলগ্নীকরণের প্রস্তাব বাতিল করে বিনিয়োগের প্রস্তাব দেওয়া হয় চেয়ারম্যানকে৷ প্রায় ঘণ্টাখানেকের বৈঠকে মিশ্র ইস্পাত কারখানার ভবিষ্যৎ নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করেন শ্রমিক সংগঠনগুলি৷ তবে, কেন্দ্রের এই বিলগ্নীকরণের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা, পরিবর্তন বা বাতিল না হলে সেইলের পক্ষ থেকে বিশেষ কিছু করার নেই বলেও বৈঠকে উল্লেখ করেছেন অনিল কুমার চৌধুরি৷ সমস্ত শ্রমিক সংগঠনের তরফেই সুনির্দিষ্ট প্রস্তাব রাখা হয় সেইলের চেয়ারম্যানের কাছে৷

[টিউবওয়েল থেকে জল নেওয়া নিয়ে বিবাদ, হাঁসুয়ার কোপে খুন যুবক]

ডিএসপির সিটুর যুগ্ম সম্পাদক সৌরভ দত্ত বলেন, ‘‘শীঘ্রই এএসপি কারখানায় বিনিয়োগের দাবি করা হয়েছে৷ কোনভাবেই এএসপি ও ডিএসপির মধ্যে সংযুক্তিকরণ করা যাবে না বলেও বলা হয়েছে তাঁকে৷ এএসপিকে পূর্ণ স্বাধীন দিয়েই তার উৎপাদিত বিশেষ ইস্পাত প্রস্তুতের জন্যে আধুনিকীকরণ ও সম্প্রসারণ করতে হবে বলে দাবি করা হয়েছে৷ তবে, তাঁর কাছ থেকে আশানুরূপ কোন সাড়া পাওয়া যায়নি৷ তাই কারখনা বাঁচানোর আন্দোলন অব্যাহত থাকবে৷’’

[কোজাগরী লক্ষ্মীপুজোকে কেন্দ্র করে উৎসবের মেজাজ অণ্ডালে]

অন্যদিকে বিএমএসের পক্ষ থেকেও চেয়ারম্যানের কাছে প্রায় একই দাবি রাখা হয়েছে৷ বিএমএসের ডিএসপি ইউনিটের সম্পাদক অরূপ রায় জানান,“মিশ্র ইস্পাত কারখানার সার্বিক আধুনিকীকরণ ও সম্প্রসারণের দাবি জানানো হয়েছে৷ দুই কারখানার সংযুক্তিকরণ আমরাও কোনভাবেই মানব না৷” যদিও সেইলের চেয়ারম্যান শ্রমিক সংগঠনের মিশ্র ইস্পাত কারখানা নিয়ে তাদের প্রস্তাব অত্যন্ত ধৈর্য ধরেই শুনেছেন বলে শ্রমিক সংগঠনগুলির দাবি৷

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে