BREAKING NEWS

৯ মাঘ  ১৪২৮  রবিবার ২৩ জানুয়ারি ২০২২ 

READ IN APP

Advertisement

এবার ‘বেসুরো’ দিব্যেন্দু অধিকারী, কাঁথির নতুন প্রশাসক নিয়োগ ‘অবৈধ’ বলে তৃণমূলকে চ্যালেঞ্জ

Published by: Sucheta Sengupta |    Posted: January 1, 2021 8:58 am|    Updated: January 1, 2021 8:16 pm

TMC MP Dibyendu Adhikari challenges Govt. decision to appoint new administrator in Kanthi Municipality| Sangbad Pratidin

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: কাঁথির (Kanthi) অধিকারী পরিবারের সঙ্গে তৃণমূলের দীর্ঘ সম্পর্কের সমীকরণ কি এবার বদলে যাবে? পরিবারের চার-চারজন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের ভবিষ্যৎ কী? এসব প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে চলতি সপ্তাহের প্রথম দিন থেকেই। সপ্তাহ শেষে সেসব প্রশ্ন আরও জোরালো হয়ে উঠছে।

কাঁথি পুরসভার পুর প্রশাসকের পদ থেকে শুভেন্দু অধিকারীর ছোট ভাই সৌমেন্দুকে অপসারণের পর অধিকারী গড়েই চাপা ক্ষোভ তৈরি হয়েছে। তা এবার প্রকাশ্যে আনলেন আরেক তৃণমূল সাংসদ তথা অধিকারী পরিবারের সদস্য দিব্যেন্দু অধিকারী (Dibeyendu Adhikari)। কাঁথি পুরসভায় নতুন প্রশাসক নিয়োগ অবৈধ কেন, তা নিয়ে রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন দপ্তরের প্রতি তোপ দেগেছেন তিনি। তাহলে দাদার পথে হেঁটে তিনিও কি গেরুয়া শিবিরে পা ফেলবেন? তা নিয়ে শুরু হয়েছে তুমুল জল্পনা।

[আরও পড়ুন: হাড়োয়ায় মিলল এবার অস্ত্র কারখানার হদিশ, ধৃত ৩]

চলতি সপ্তাহের শুরুতে আচমকাই ভেঙে দেওয়া হয় কাঁথি পুরসভার বোর্ড। অপসারিত হন পুর প্রশাসক সৌমেন্দু অধিকারী-সহ অন্যান্য দায়িত্বপ্রাপ্তরা। রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন দপ্তরের তরফে চিঠি পাঠিয়ে নির্দেশ দেওয়া হয়। এই নির্দেশিকাকে ঘিরেই শুরু জটিলতা। অপসারণ নির্দেশিকার আইনি বৈধতাকে চ্যালেঞ্জ করে সৌমেন্দু অধিকারী কলকাতা হাই কোর্টে মামলা দায়ের করেছেন। আগামী ৪ তারিখ সেই মামলার শুনানি। সৌমেন্দুর বদলে কাঁথি পুরসভার প্রশাসক পদে বসানো হয় তৃণমূল বিধায়ক অখিল গিরির ঘনিষ্ঠ সিদ্ধার্থ মাইতিকে। এই অবস্থায় ভাই সৌমেন্দুর পাশে দাঁড়িয়ে এই নিয়োগের বৈধতা নিয়ে এবার চ্যালেঞ্জ করলেন তমলুকের তৃণমূল সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী। তাঁর প্রশ্ন, কাউন্সিলরই নন, এমন কাউকে কীভাবে পুরপ্রশাসক পদে বসানো যেতে পারে। 

সৌমেন্দুর অপসারণের পরই শিশির অধিকারী এবং দিব্যেন্দু অধিকারী জানিয়ে দিয়েছিলেন, সৌমেন্দুকে ফিরিয়ে আনা না হলে, কাঁথি পুরসভায় তাঁদের জন্য নির্দিষ্ট যে অফিস রয়েছে, সেখানে তাঁরা বসবেন না। সূত্রের খবর, দিব্যেন্দু অধিকারী এই মুহূর্তে অন্যত্র অফিসঘর ভাড়া নিয়ে সেখানে নিজের দপ্তরের কাজ করছেন। সেখানে বসেই শুক্রবার সকালে তাঁর বক্তব্য, ”যাঁকে নতুন পুর প্রশাসক হিসেবে নিয়োগ করা হচ্ছে, সেই সিদ্ধার্থ মাইতি কাউন্সিলরই নন। কীভাবে তাঁকে এই পদে বসানো হচ্ছে? সৌমেন্দুকে নিয়ে কোনও সমস্যা হলে, আমাকেও প্রশাসকের দায়িত্ব দেওয়া যেত। আমি তো কাউন্সিলর।” দিব্যেন্দু অধিকারীর ক্ষোভ স্পষ্ট।

[আরও পড়ুন: বছর শেষে সুখবর, রাজ্যের কোভিড গ্রাফ সামান্য হলেও নিম্নমুখী, বাড়ছে সুস্থতার হার]

এদিকে, নতুন বছরের প্রথম দিন নিজের গড়েই একাধিক কর্মসূচি করবেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। সূত্রের খবর, আজই দাদার হাত ধরে বিজেপিতে যোগ দেবেন কাঁথি পুরসভার অপসারিত প্রশাসক সৌমেন্দু। আর তাঁর মাধ্যমেই নিজের ঘরে এবার পদ্ম ফোটাতে চাইছেন শুভেন্দু। যদিও গত ১৯ ডিসেম্বর বিজেপিতে শুভেন্দুর যোগদানের পর অধিকারী পরিবারের বাকি সদস্যরা তৃণমূলের পাশে রয়েছেন বলে নিজেদের অবস্থান জানিয়েছিলেন। কিন্তু সেই অবস্থান এবার বদলাতে চলেছে। সৌমেন্দু তো বটেই, দিব্যেন্দুও যেভাবে ‘বেসুরো’ হয়েছেন, তাতে তৃণমূলের সঙ্গে তাঁরও দূরত্ববৃদ্ধির ইঙ্গিতই মিলছে।

Sangbad Pratidin News App: খবরের টাটকা আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন সংবাদ প্রতিদিন অ্যাপ
নিয়মিত খবরে থাকতে লাইক করুন ফেসবুকে ও ফলো করুন টুইটারে